অ্যান্ড্রয়েড কি এবং Android version এর ইতিহাস

আজ পৃথিবীর ৯০% লোক এন্ড্রয়েড মোবাইল ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু অনেকের মনেই এই প্রশ্নটি থাকতে পারে অ্যান্ড্রয়েড কাকে বলে এটি একটি এপ্লিকেশন না সফটওয়্যার। তাই যদি আপনি একজন অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারী হয়ে থাকেন ‘এন্ড্রয়েড কি‘ এটা আপনার জানা দরকার। তাই চলুন দেরী না করে জেনে নিন এন্ড্রয়েড কি, অ্যান্ড্রয়েড ওয়ান কি এবং এন্ড্রয়েড ভার্সন এর ইতিহাস

অ্যান্ড্রয়েড কি?

অ্যান্ড্রয়েড হলো একটি অপারেটিং সিস্টেম। যেটি মোবাইল সিস্টেম কে চালনা করার জন্য এক ধরনের সিস্টেম সফটওয়্যার। Linux নামক একটি সফটওয়্যার, কম্পিউটার এবং ডেস্কটপ এ ব্যবহার করা হয়। যেটি, মাইক্রোসফট উইন্ডোজের পরে কোন কোন কম্পিউটার বা ল্যাপটপ কে চালনা করার জন্য ব্যবহার করা হয়।

এই লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেমের ওপর base করে Android system software টি মোবাইলের জন্য তৈরি করা হয়। মানে কম্পিউটার বা সার্ভারের লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেমকে মডিফাই করে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম তৈরি করা হয়।

ইন্টারনেটের সবথেকে বড় কোম্পানি গুগলের দ্বারা অ্যান্ড্রয়েড নামক সিস্টেম সফটওয়্যার টি প্রধানত মোবাইলের জন্য তৈরি করা হয়। যার মাধ্যমে যেকোনো মোবাইল ব্যবহারকারী খুব সহজ ইউজার ইন্টারফেস এবং অসংখ্য funtion এবং features এর মাধ্যমে, মোবাইল ব্যবহার করতে পারে। এটি মোবাইলের জন্য তৈরি করা অপারেটিং সিস্টেম হওয়া সত্ত্বেও আজকের দিনে এই অপারেটিং সিস্টেম এর সাহায্যে Smart টিভি, Tablet, Car Player ও চালিত হয়।

অ্যান্ড্রয়েড ফোন কাকে বলে?

যে সকল মোবাইল ফোনের মধ্যে এন্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহৃত হয় তাকে এন্ড্রয়েড ফোন বলা হয়। অ্যান্ড্রয়েড গুগোল এর দ্বারা তৈরি এক ধরনের সিস্টেম সফটওয়্যার। কোন মোবাইল কোম্পানি গুগলের দ্বারা মিলিত হয়ে তার মোবাইলে android operating system চালিত করলে তাকে এন্ড্রয়েড ফোন বলে।

এন্ড্রয়েড ভার্সন কি?

যখনই আমরা এক জায়গা থেকে শুরু করে অন্য জায়গায় যাই তখন আমাদের অনেকটা পথ অতিক্রম করতে হয়। তেমনি অ্যান্ড্রয়েড এর ক্ষেত্রেও শুরু থেকে আজ পর্যন্ত, অ্যান্ড্রয়েড যতটা পথ অতিক্রম করেছে তার এক একটি পায়ের ছাপ কে অ্যান্ড্রয়েড ভার্সন বলা হয়।

সোজাসুজি মানে হল, অ্যান্ড্রয়েড মার্কেটে আশার শুরুর দিকে খুবই কম ফিচার এর মধ্য দিয়ে ব্যবহারকারীর হাতে পৌঁছায়। কিন্তু যত দিন যায় ধীরে ধীরে নতুন নতুন জিনিস তার অপারেটিং সিস্টেমের মধ্যে যোগ করতে থাকে। এই ফিচারগুলো ধীরে ধীরে যুক্ত হওয়াকে এন্ড্রয়েড ভার্সন বলা হয়।

অ্যান্ড্রয়েড যতবারই তার ভার্সন চেঞ্জ করেছে ততবার এক একটি নতুন নাম দিয়ে নতুন ফিচারের সাথে মার্কেটে এসেছে। যেটা ব্যবহারকারীর কাজকে খুবই সহজ সরল করে দিয়েছে। ২০০৫ থেকে আজ পর্যন্ত অ্যান্ড্রয়েড তার ভার্সনকে মোট ১৬ বার আপগ্রেড করেছে।

  • Android Alfa – ২০০৮
  • Android Petit Four (Beta) – ২০০৯
  • Android Cupcake – ২০০৯
  • Android Donut – ২০০৯
  • Android Eclair – ২০০৯
  • Android Froyo – ২০১০
  • Android Honeycomb – ২০১১
  • Android Ice-cream Sandwich – ২০১১
  • Android Jellybean – ২০১২
  • Android KitKat – ২০১৩
  • Android Lollipop – ২০১৪
  • Android Marsmallow – ২০১৫
  • Android Nougat – ২০১৬
  • Android Oreo – ২০১৭
  • Android Pie – ২০১৮
  • Android 10 Q – ২০১৯

Android version এর ইতিহাস

Andy Rubin এবং Rich Miner দুজনে মিলে অ্যান্ড্রয়েডের আবিষ্কার করেন। কিন্তু পরবর্তীকালে ২০০৫ সালে অ্যান্ড্রয়েড, গুগোল এর দ্বারা অধিকৃত হয়। এবং সাথে সাথে Andy Rubin এবং Rich Miner কে অ্যান্ড্রয়েড ডেভলপ করার জন্য তাদের কেও গুগোল কোম্পানিতে যোগদান করানো হয়।

তারপর নতুন অপারেটিং সিস্টেমটি বাজারজাত করার জন্য গুগল কোম্পানি, অন্যান্য মোবাইল কোম্পানির সাথে একীভূত হয়ে তাদের মোবাইলে, অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমটি Add করবার পরামর্শ দেন। এবং গুগোল তাদের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম টি সময়ের সাথে সাথে upgrade করবে এটিও তাদেরকে জানানো হয়।

সব শর্তাবলী মেনে ২০০৭ সালে প্রথম অ্যান্ড্রয়েড ফোন বাজারে আনার সাথে সাথে সেটি ব্যবহারকারীদের মন জয় করে নেয়। এবং ২০০৭ থেকে আজ পর্যন্ত (জনুয়ারি, ২০২১) গুগল মোট ১৬ বার এন্ড্রয়েড ভার্সন টিকে upgrade করে

Android Alfa – ২০০৮

এই অপারেটিং সিস্টেমের মাধ্যমে কোনো ব্যবহারকারীকে Unknown source থেকে অ্যাপ্লিকেশন এবং গেম ডাউনলোড করার পারমিশন দেওয়া হয়। সাথে সাথে গুগলের নিজস্ব তৈরি অ্যাপ্লিকেশন, জিমেইল, ক্যামেরা, ব্রাউজার, ম্যাপ, ক্যালেন্ডার এইসব যুক্ত করা হয়।

Android Petit Four (Beta) – ২০০৯

এই upgrade এর মাধ্যমে call করার পর, call screen এ dialpad show-hide করার অপশন আসে। সাথে সাথে কোন মেসেজ করার সময় কোন ফাইল attachment করবার সুবিধা দেওয়া হয়।

Android Cupcake – ২০০৯

থার্ড পার্টি এপ্লিকেশন থেকে মোবাইল স্ক্রিনে widget সেট করবার অনুমতি দেওয়া হয়। সাথে সাথে ব্রাউজারে কপি পেস্ট, ইউটিউবে ভিডিও আপলোড এবং মোবাইল স্কিন rotate করার features গুলি যোগ করা হয়।

Android Donut – ২০০৯

কথা বলে কোন কিছু সার্চ করা (Text to Speech), Screen recording সুবিধা এর সাথে সাথে কোন অ্যাপ্লিকেশন কম সময়ে খোলার জন্য ইউজার ইন্টারফেস তৈরি করা হয়।

Android Eclair – ২০০৯

এই আপডেটের সাথে একই ডিভাইসে অনেকগুলি ইমেইল sync করার সুবিধা আসে। Keyboard এ typing speed ইমপ্রুভ করার সাথে সাথে মোবাইল ক্যামেরায় zoom, flash, colour effect যুক্ত করা হয়।

Android Froyo – ২০১০

ওয়াই ফাই, হটস্পট, ইউএসবি tethering, push নোটিফিকেশনের মতো ফিচার যোগ করা হয়। এবং মোবাইলের পারফরম্যান্স এবং কোন অ্যাপ্লিকেশন ওপেন হওয়ার স্পিড বাড়ানো হয়।

Android Honeycomb – ২০১১

একসাথে অনেকগুলো কাজ করার ক্ষমতা নিয়ে আসে, যেটা আজ আমাদের কাছে multitasking নামে পরিচিত। সাথে সাথে ব্যবহারকারীর ডাটা encrypt করা থেকে শুরু করে multi core processor support এই upgrade এর সাথে আসে।

Android Ice-cream Sandwich – ২০১১

এই আপগ্রেড এর পর থেকে drag & drop করে ফোল্ডার বানানো, ভলিউম ডাউন বাটন এর সাহায্যে screenshot নেওয়া এবং মুখ দেখিয়ে মোবাইলের লক খোলার (face unlock) সুবিধা গুলি পাওয়া যায়।

Android Jellybean – ২০১২

এই আপডেট এর পর কোন ব্যবহারকারী তার পছন্দমতো কোনো অ্যাপ্লিকেশন এর নোটিফিকেশন বন্ধ করা এবং কোন ফিচারস কে on-off করবার সুযোগ পাওয়া যায়।

Android KitKat – ২০১৩

wireless printing, audio monitoring, audio enhancer, sensor optimize এইসব জিনিস গুলি kitkat আপগ্রেড এর পর মোবাইলে যোগ হয়।

Android Lollipop – ২০১৪

অনেক প্রকারের ভাষা সাপোর্ট করার পাশাপাশি smart lock, guest account এবং ব্যাটারি পারফরমেন্স কে বাড়িয়ে তোলে।

Android Marsmallow – ২০১৫

এই আপডেটটি আসার পর ফিঙ্গারপ্রিন্ট এর সাহায্যে মোবাইল লক খোলা, মোবাইলের ডাটা ব্যাকআপ, 4k ভিডিও দেখা, সার্চ বার এর মাধ্যমে সার্চ করার সুবিধা গুলি পাওয়া যায়।

Android Nougat – ২০১৬

এই আপডেটটি আসার পর মোবাইলের কোন ফাইল encrypt & decrypt করা সম্ভব হয়। এর সাথে সাথে কোন অ্যাপ্লিকেশনের floating windows, screen zoom এসব সুবিধা গুলি পাওয়া যায়।

Android Oreo – ২০১৭

এই upgrade এ মোবাইলে সিকিউরিটি ইমপ্রুভমেন্ট করার সাথে সাথে multi display support, google প্লে protect এর মত feature গুলি যুক্ত করা হয়।

Android Pie – ২০১৮

মোবাইলের ব্যাটারি সেভ করা (Battery saver), battery পার্সেন্টেজ (কতটা চার্জ আছে), auto brightness control করা, DND সার্ভিস এইসব ফিচারগুলোঃ Android pie আপডেট হওয়ার সাথে সাথে আসে।

Android 10 Q – ২০১৯

আজকের যুগে অ্যান্ড্রয়েড এর সবথেকে লেটেস্ট ভার্সন হলো Android 10। যেখানে সিস্টেম এর মধ্যেই dark mode ফিচার অন্তর্ভুক্ত আছে। এর সাথে সাথে Screen recorder, bubble notification, desktop mode এসব জিনিস গুলো যুক্ত করা হয়েছে।

অ্যান্ড্রয়েড ওয়ান কি?

আমরা আগেই জেনেছি, অ্যান্ড্রয়েড হলো গুগলের দ্বারা তৈরি এক ধরনের অপারেটিং সিস্টেম বা সিস্টেম সফটওয়্যার। বিভিন্ন মোবাইল কোম্পানি অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম টি, তাদের মোবাইলের মধ্যে চালনা করে সেগুলি ইউজার এর ব্যবহার করার উপযোগী করে তোলে।

কিন্তু আলাদা আলাদা মোবাইল কোম্পানি তাদের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমটি, মোবাইলে যোগ করার সময় তাদের নিজস্ব পরিচয় বানানোর জন্য, তাদের হিসাবে ইউজার ইন্টারফেস তৈরি করে এবং তার সাথে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম মিলিত করে, এন্ড্রয়েড এর একটি কম্বিনেশন তৈরি করে। এবং তারপর ওই কম্বিনেশন যুক্ত অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমটির সাহায্যে তাদের মোবাইল গুলি কে চালনা করে। এই জন্য ব্যবহারকারীর সুবিধার্থে এই ধরনের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম কে অ্যান্ড্রয়েড ওয়ান বলা হয়।

সোজা কথায় মানে হল, গুগোল যখন কোন কোম্পানির তার অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমটি দেয় তখন শুধুমাত্র অ্যান্ড্রয়েড এর Orginal Stock Rom, কোন মোবাইল কোম্পানি কিনে নেয়। তারপর মোবাইল কোম্পানির নিজস্ব ইউজার ইন্টারফেসের সাহায্যে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম টি ইউজারের হিসাবে customize করে ডিজাইন দেয়। এই ধরনের অপারেটিং সিস্টেম কেই অ্যান্ড্রয়েড ওয়ান বলা হয়।

স্টক এন্ড্রয়েড কি?

স্টক এন্ড্রয়েড হল অ্যান্ড্রয়েড এর একটি ভার্সন। যেটি প্রধানত Nexus device এ ব্যবহার করা হতো। কিন্তু আজকের দিনে Nexus এবং Google Pixel ছাড়াও অনেক মোবাইল কোম্পানি স্টক এন্ড্রয়েড ব্যবহৃত হয়। স্টক এন্ড্রয়েড গুগলের official source code হবার কারণে এটিকে কোন মডিফিকেশন ছাড়াই গুগোল তার নিজস্ব মোবাইলে, এই এন্ড্রয়েড ভার্সন ব্যবহার করে থাকে। কোন মডিফিকেশন ছাড়া ব্যবহার করার কারণে এটি কে Pure android ও বলা হয়।

স্টক এন্ড্রয়েড এর দ্বারা চালিত মোবাইল এর function স্মুথলি কাজ করে এবং ব্যাটারি performance ও অন্যান্য মোবাইল থেকে বেশী থাকে।

উপসংহার

আশাকরি উপরের তথ্যগুলো থেকে এন্ড্রয়েড কি, অ্যান্ড্রয়েড ওয়ান কি এবং এর ভার্সন ইতিহাস সম্পর্কে ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন। এই আর্টিকেলটি সম্পর্কে যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে কমেন্ট এর মাধ্যমে জানাতে পারেন।

শেয়ার করতে চান!
  •  
  •  
  •  
  •  

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment