ডিজিটাল মার্কেটিং কি – What is Digital Marketing in Bangla

Digital Marketing Bangla –  আজকাল কোন প্রোডাক্ট এবং সার্ভিসকে মার্কেটিং করবার জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং technique ব্যবহার করা হয়। এবং আজকের দিনে যে কোন প্রোডাক্ট কে, মার্কেটিং করবার জন্য ডিজিটাল ডিভাইসের সাহায্যে মার্কেটিং করা হয়।

যদি আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং করতে চান এবং ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাহলে আজকের এই আর্টিকেলে ডিজিটাল মার্কেটিং কি ও কেন করে, ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় এবং ডিজিটাল মার্কেটিং এর গুরুত্ব কি এই সমস্ত প্রশ্ন গুলির উত্তর পেয়ে যাবেন।

তাই চলুন ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিই।

ডিজিটাল মার্কেটিং কি?

ইন্টারনেট, কম্পিউটার এবং ইলেকট্রনিক ডিভাইসের সাহায্যে যখন মার্কেটিং করা হয় সেটাকে ডিজিটাল মার্কেটিং বলে।

এর মানে – কোন প্রোডাক্ট এবং সার্ভিসের মার্কেটিং যখন digitally করা হয়ে থাকে। সেই ধরনের মার্কেটিং ডিজিটাল মার্কেটিং এর অন্তর্গত।

আগেকার দিনে বেশিরভাগ মার্কেটিং Poster এবং Banner লাগিয়ে করা হত কিন্তু আজকের এই ডিজিটাল যুগে Social Media, Emails, Website ইত্যাদির সাহায্যে মার্কেটিং করা হয়। এটি হলো আজকের দিনে মার্কেটিং করার একটি নতুন প্রক্রিয়া।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর সাহায্যে মার্কেটিং করলে যে কোন কোম্পানি এবং প্রতিষ্ঠান অল্প সময়ের মধ্যে টার্গেটেড কাস্টমারদের কাছে পৌঁছে যায়। যেহেতু এটি ইন্টারনেটের মাধ্যমে করা হয়ে থাকে, তাই এটিকে online marketing ও বলা হয়।

মার্কেটিং এর মানে হল সঠিক সময়ে, সঠিক কাস্টমারের কাছে প্রোডাক্ট পৌঁছে দেওয়া। আজকের দিনে বেশিরভাগ কাস্টমার বেশিরভাগ সময়ে সোশ্যাল মিডিয়া এবং ইন্টারনেটে কাটিয়ে থাকে। এই জন্যে মার্কেটিং গুলিও ধীরে ধীরে ডিজিটাল হয়ে যাচ্ছে।

ট্রেডিশনাল মার্কেটিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং এর মধ্যে পার্থক্য

অনলাইন মার্কেটিং এবং অফলাইন মার্কেটিং দুই ধরনের মার্কেটিং এজেন্সির কাজ একটাই। সেটি হল বেশি কাস্টমারের কাছে প্রোডাক্ট এবং সার্ভিস গুলিকে পৌঁছে দেওয়া।

অফলাইন মার্কেটিং এ ক্যারিয়ার এবং পোস্টার ছাপাতে প্রচুর পরিমাণ মূলধনের দরকার হয়। কারন একটি ব্যানার এবং একটি পোস্টার শুধুমাত্র একটি জায়গায় লাগানো যায়।

কিন্তু অনলাইন মার্কেটিং বা ডিজিটাল মার্কেটিং এ একবার কোন ব্যানার তৈরি করলে, সেটি সারা জীবন ব্যবহার করা যায়। যার ফলে অনেক কম মূলধনে যেকোনো প্রডাক্টের মার্কেটিং করা সহজ হয়।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর গুরুত্ব

যখন মানুষের হাতে স্মার্টফোন ছিলনা তখন মানুষ TV, Newspaper, Magazine, Radio এই সমস্ত বেশি কিছু ব্যবহার করত। তখন কোম্পানি তাদের প্রোডাক্ট প্রমোশনের জন্য এইসব জিনিসের ওপর অ্যাডভার্টাইজমেন্ট দিয়ে, কাস্টমার পর্যন্ত পৌঁছাতে পারতো। এবং নির্দিষ্ট কাস্টমার সেই জিনিসটি পছন্দ হলে বাজারে থেকে নিয়ে আসতো।

কিন্তু আজকের দিনের বেশিরভাগ মানুষের হাতে স্মার্টফোন থাকার কারণে, তারা দিনের বেশিরভাগ সময়ে সোশ্যাল মিডিয়ার মত প্ল্যাটফর্ম গুলিতে সময় কটায়।

কারণ আজকের দিনে –

  • টিভি এর জায়গায় ইউটিউবে ভিডিও দেখে
  • খবরের কাগজের জায়গায় সোশ্যাল মিডিয়ায় এবং ব্লগ থেকে খবর পড়ে
  • এবং রেডিওর জায়গায় নতুন নতুন অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে গান শোনেন।

এইজন্য মার্কেটিং এজেন্সি গুলি তাদের প্রোডাক্ট এবং সার্ভিস গুলিকে ডিজিটালি প্রমোশন করার দায়িত্ব নেয়।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর সব থেকে বড় সুবিধা এবং গুরুত্ব হল, যেকোনো ধরনের বড় বা ছোট কোম্পানি, খুব সহজেই কম খরচে থাকলে প্রোডাক্ট গুলি কে টার্গেট অডিয়েন্স এর সামনে তুলে ধরতে পারে।

এবং ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ও সেই সব অ্যাডভার্টাইজমেন্ট গুলি দেখে অনলাইন এবং অফলাইন মারফত কেনাকাটা করতে পারে। এছাড়া বিভিন্ন ই-কমার্স সাইট থেকে সরাসরি পণ্য কিনলে তাদেরকে বাজারে গিয়ে সময় নষ্ট করতে হয় না।

ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে করব

ডিজিটাল মার্কেটিং করবার জন্য, basic যে সমস্ত জিনিস গুলি করা হয় সেগুলি হলো –

Blogging

ব্লগ হলো ডিজিটাল মার্কেটিং করার সবথেকে সহজ উপায়। আপনি নিজস্ব একটি ব্লগ বানিয়ে সেখানে কোম্পানির বিভিন্ন প্রোডাক্ট এর লিস্ট তৈরি করে, সেই ব্লগে টার্গেট অডিয়েন্স নিয়ে এসে মার্কেটিং করতে পারেন। ব্লগ কাকে বলে সেটি এখান থেকে দেখতে পারেন।

Content Marketing

যদি একটা নিজস্ব ব্লগ না থাকে তাহলে আপনি কন্টেন্ট তৈরি করে, সেখানে প্রডাক্ট সম্পর্কে বিস্তারিত ইনফর্মেশন যোগ করতে পারেন। এবং অন্যান্য ব্লগে দের সাথে যোগাযোগ করে সেই কনটেন্টটি তাদের ব্লগে পাবলিশ করতে পারেন।

যার মাধ্যমে সেই ব্লগে থাকা ট্রাফিক, আপনার প্রোডাক্ট এর কাস্টমার রূপে ফিরে আসবে।

Social media marketing

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং হল ডিজিটাল মার্কেটিং এর অংশ। যেহেতু সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচুর পরিমাণে মানুষ সময় কাটান সেহেতু আপনি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এর মাধ্যমে তাদের কাছে, আপনার পণ্যটি পৌঁছে দিতে পারেন।

সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে মার্কেটিং করবার জন্য Facebook, Twitter, LinkedIn, Instagram, snapchat এবং Pinterest এর মতো জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম গুলি ব্যবহার করতে পারেন।

Google AdWords

Google AdWords হলো গুগলের তৈরি একটি ads প্ল্যাটফর্ম। যেখানে সাধারন মানুষ থেকে বড় বড় কোম্পানি, গুগোল এর সাহায্য অ্যাডভার্টাইজমেন্ট দিতে পারে।

যেহেতু গুগোল এ প্রচুর পরিমাণে ট্রাফিক রয়েছে, তাই আপনি কিছু পয়সা খরচ করে directly গুগলে ads place করে, প্রোডাক্ট এর মার্কেটিং করতে পারেন।

এখানে আপনি text ads, image ads, video ads, match content ads, sponsored search, web banner ads, gif ads পেয়ে যাবেন। আপনি টার্গেট অডিয়েন্স বেছে নিয়ে গুগোল এডওয়ার্ডস এর সাহায্য নিতে পারেন।

Apps Marketing

এমন কিছু কোম্পানি আছে যারা তাদের নিজস্ব অ্যাপ্লিকেশন বানিয়ে সেগুলি ইউজার এর সামনে পৌঁছে দিয়েছে। এবং যখন তাদের অ্যাপ্লিকেশনের ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়ে গেছে, তখন সেই অ্যাপ্লিকেশনের মধ্যে বিভিন্ন প্রোডাক্ট এর মার্কেটিং করে, কাস্টমার খুঁজে নেয়।

তবে মার্কেটিং এর জন্য আপনাকে কোনো অ্যাপস এর মালিক হতে হবে না। আপনি শুধু সেই সমস্ত অ্যাপস মালিকদের সাথে যোগাযোগ করুন, যারা তাদের অ্যাপ্লিকেশনের মধ্যে আপনার প্রোডাক্ট এর অ্যাডভার্টাইজমেন্ট করবে।

YouTube channel marketing

আজকাল ইউটিউব এর মাধ্যমে ভিডিও মার্কেটিং করা হয়ে থাকে। এবং বড় বড় ইউটিউব চ্যানেল তাদের ভিডিওর মধ্যে বিভিন্ন অ্যাডভার্টাইজমেন্ট এর সাহায্যে, বিভিন্ন প্রোডাক্ট প্রমোট করে থাকে।

আপনি বড় বড় ইউটিউবার দের সাথে যোগাযোগ করে তাদের চ্যানেলে আপনার প্রোডাক্টের মার্কেটিং সম্পর্কে আলোচনা করতে পারেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায়

যদি আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে আগ্রহী হন তাহলে, নিচে দেওয়া পদ্ধতি গুলি অনুসরণ করে আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন।

গুগোল ফ্রী কোর্স

যদি আপনি বিনামূল্যে ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স করতে চান তাহলে, আপনি গুগলের সাহায্য নিতে পারেন। গুগোল প্রত্যেক ব্যবহারকারীকে তার নিজস্ব ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স শেখার পারমিশন দিয়েছে। এবং এটির জন্য আপনাকে কোন টাকা দিতে হবে না।

ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে করে

আপনি বিনামূল্যে ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স শিখতে চান তাহলে গুগোল এ গিয়ে ”গুগল ডিজিটাল গ্যারেজ” লিখে সার্চ করুন। এরপরে গুগলের ওয়েবসাইটটিতে গিয়ে Start Course অপশনে ক্লিক করে, জিমেইল একাউন্ট এর সাহায্যে লগইন করে কোর্সটিতে অংশগ্রহণ করতে পারেন। যেখানে ভিডিওর মাধ্যমে আপনি সম্পূর্ণ কোর্সটি শিখে নিতে পারবেন।

ইউটিউব ভিডিও দেখে

আমরা সকলেই জানি যে আজকের দিনে ইউটিউব হলো সবথেকে জনপ্রিয় ভিডিও প্ল্যাটফর্ম। যেখানে আপনি সমস্ত ক্যাটাগরির ভিডিও দেখতে পাবেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং শেখানোর জন্য অনেক ভালো ভালো ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে। আপনি ইউটিউবে সার্চ করে যেকোনো একটি চ্যানেলে গিয়ে, সেই চ্যানেলের ভিডিও গুলি দেখে, ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে ভালো জ্ঞান আহরণ করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানে গিয়ে

যদি আপনি সার্টিফিকেট সমেত ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চান তাহলে আপনি নিকটবর্তী কোন কলেজ বা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়ে যান। যেখানে আপনি নির্দিষ্ট course টি কমপ্লিট করার পর ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে বিস্তারিত শিখে নিতে পারবেন।

বই পড়ে

ডিজিটাল মার্কেটিং এর অনেক বই রয়েছে। আপনি চাইলে সে সমস্ত বই গুলি পড়তে পারেন। আপনি সোজা গুগল থেকে ডিজিটাল মার্কেটিং বই গুলি সম্পর্কে ধারণা পেয়ে যাবেন। এবং সেখান থেকে কতকগুলি বই বেছে নিয়ে সেটিকে পড়তে পারেন।

উপসংহার:

আশাকরি উপরের ইনফরমেশন থেকে ডিজিটাল মার্কেটিং কি বা কাকে বলে, ডিজিটাল মার্কেটিং কিভাবে করে এবং কিভাবে শিখতে হয় এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে আরও কিছু জানার থাকে, তাহলে আপনি কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন।

আরও পড়ুন –

শেয়ার করতে চান!
  •  
  •  
  •  
  •  

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment