প্যান কার্ড কিভাবে বানাবো ও প্যান কার্ড বানাতে কি কি লাগে

প্যান কার্ডের নাম সবাই শুনে থাকবেন। প্যান নাম্বার হল ভারতের একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ নাম্বার। যদি কোন ভারতীয় নাগরিকের ইনকাম ৫০ হাজার টাকার বেশি হয় তাহলে আয়কর দপ্তর কে প্যান কার্ড দেখানোর দরকার পড়ে। এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে ভারতীয় নাগরিক বিদেশে বসবাস করলে তাদেরও প্যান কার্ড করার প্রয়োজন হয়।

যদি আপনি এখনো পর্যন্ত প্যান কার্ড না বানিয়ে থাকেন তাহলে আজ এই আর্টিকেলটি থেকে প্যান কার্ড কি, প্যান কার্ড কিভাবে বানাবো, প্যান কার্ড করতে কি কি ডকুমেন্ট লাগে এই সমস্ত উত্তর গুলো জেনে নিয়ে নতুন প্যান কার্ড বানিয়ে নিন।

প্যান কার্ড মানে কি

প্যান কার্ড হল ইনকাম ট্যাক্স ডিপারমেন্ট এর দ্বারা নির্ধারণ করা এক ধরনের পরিচয় পত্র। প্যান কার্ডের মধ্যে ১০ সংখ্যার নম্বর থাকে, যেটি লেনদেন করার সময় কাজে লাগে। প্যান কার্ডের মধ্যে দশ অঙ্কের সংখ্যাটি ছাড়া আপনার নাম, আপনার ছবি, আপনার বাবার নাম, আপনার ডিজিটাল সাক্ষর থাকে।

Pan Card, CBDT (Central Board for Direct taxes) এর অন্তর্গত একটি প্রক্রিয়া। ২০০৫ সালের পয়লা জানুয়ারি থেকে কোন লেনদেনের চালান করার সময় প্যান কার্ডের নম্বর বা কপি দেওয়া অনিবার্য করে দেওয়া হয়।

টাকা-পয়সার লেনদেন করার জন্য ভারত সরকার প্যান কার্ড এর ব্যবস্থা করে। যেটির সাহায্যে ব্যাংকে বেশি সংখ্যক টাকা পয়সা তোলা, নতুন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি, দুই পাটির মধ্যে টাকা-পয়সার লেনদেন এই সমস্ত জিনিস গুলি করা যায়।

প্যান কার্ড এর পুরো নাম কি

PAN Card এর পুরো কথা হলো পার্মানেন্ট অ্যাকাউন্ট নাম্বার (Permanent Account Number)। একটি ব্যক্তি তার নিজের নামে শুধুমাত্র একবারই প্যান কার্ড তৈরি করতে পারে। এবং যদি তার কোনো প্রতিষ্ঠান থাকে তাহলে প্রতিষ্ঠানের নামে প্যান কার্ড তৈরি করতে পারবে।

কোন ব্যক্তি যদি নিজের নামে একের বেশি প্যান কার্ড বানায়, তাহলে তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা দিতে হয়।

প্যান কার্ড করতে কি কি ডকুমেন্ট লাগে

নতুন প্যান কার্ড বানানোর জন্য identity proof, address proof এবং date of birth proof করবার ডকুমেন্টস জমা দিতে হবে। এজন্য আপনি এই সমস্ত ডকুমেন্টস গুলি জমা দিতে পারেন।

Identity Proof – আপনার পরিচয় পত্রের প্রমাণ দেওয়ার জন্য আপনি আধার কার্ড, ভোটার কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স বা পাসপোর্ট ব্যবহার করতে পারেন।

Adress Proof – অ্যাড্রেস প্রুফ দেওয়ার জন্য কোন বিশেষ সরকারি ডকুমেন্টস যেমন আধার কার্ড বা ড্রাইভিং লাইসেন্স দিতে পারেন।

Birth Proof – আপনার জন্ম তারিখ এর প্রমাণ দেওয়ার জন্য আপনি বার্থ সার্টিফিকেট, কিংবা মাধ্যমিক উচ্চ মাধ্যমিকের রেজাল্ট দেখাতে পারেন।

তবে একটা কথা জেনে রাখুন,

প্যান কার্ড তৈরি করার জন্য কোন নির্দিষ্ট বয়সের প্রয়োজন নেই। আপনি যেকোন বয়সে প্যান কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারেন। কিন্তু 18 বছরের নিচে কোন ব্যক্তি সরাসরি প্যান কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবে না। এইজন্য তার মা-বাবা তার জন্য প্যান কার্ডের আবেদন করতে পারেন।

নতুন প্যান কার্ড কিভাবে বানাবো

প্রথমেই বলে রাখি, অনলাইন থেকে প্যান কার্ড বানানো খুবই সোজা। প্যান কার্ড বানানোর জন্য আপনাকে কিছু সহজ পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। চলুন সেগুলি দেখে নেওয়া যাক।

প্যান কার্ড বানানোর জন্য প্রথমে আপনাকে NSDL এর ওয়েবসাইটে যেতে হবে। যেটি একটি সরকারী ওয়েবসাইট। এইজন্য এখান থেকে www.onlineservices.nsdl.com এই ওয়েবসাইটটিতে প্রবেশ করুন।

প্যান কার্ড কিভাবে বানাবো ও প্যান কার্ড বানাতে কি কি লাগে

তারপর আপনার সামনে এরকম একটি অনলাইন ফর্ম দেওয়া হবে। আপনি এই ভাবে ফরমটি ফিলাপ করুন।

Application Type

এখান থেকে আপনি যদি ভারতীয় নাগরিক হোন তাহলে New PAN – Indian citizen (form 49A), এবং যদি বিদেশি হয়ে ভারতে বসবাস করেন তাহলে New PAN – Foreign Citizen (49A) অপশনটি নির্বাচন করুন।

Category

যদি আপনি নিজের জন্য প্যান কার্ড বানান তাহলে Individual সিলেক্ট করুন। অন্যতা যদি কোন ফার্ম, অ্যাসোসিয়েশন বা প্রতিষ্ঠানের জন্য বানাতে চান তাহলে সেই মত অপশন বেছে নিন।

Applicant Information

এখানে, আপনার নামের টাইটেল, আপনার নাম, জন্ম তারিখ, ইমেইল একাউন্ট এবং ফোন নাম্বার দিন। তারপর ছোট ঘরটিতে tick mark দিয়ে ক্যাপচা এন্ট্রি করে ‘Submit‘ অপশন প্রেস করুন।

প্যান কার্ড কিভাবে বানাবো ও প্যান কার্ড বানাতে কি কি লাগে

এরপর আপনার ইনফর্মেশন অনুযায়ী প্যান কার্ডের ফরম খোলার জন্য Continue with PAN Application Form অপশনটিতে ক্লিক করুন।

প্যান কার্ড কিভাবে বানাবো ও প্যান কার্ড বানাতে কি কি লাগে

তারপর আপনার সামনে প্যান কার্ড তৈরি করার একটি ফ্রম খুলে যাবে। যেখানে একদম প্রথমে, আপনার ডকুমেন্টস গুলি কিভাবে পাঠাতে চান সেটি নির্বাচন করতে হবে। এখান থেকে forward application document physically অপশনটি বেছে নিয়ে নিচের দিকে চলে যান।

প্যান কার্ড কিভাবে বানাবো ও প্যান কার্ড বানাতে কি কি লাগে

তারপর এখানে আপনি আধার নম্বর, আপনার নাম, ডেট অফ বার্থ, জেন্ডার, বাবা ও মায়ের নাম এগুলি দিয়ে দিন। সব কিছু ইনফরমেশন পূরণ করা হয়ে গেলে একদম নিচের Next অপশনে ক্লিক করুন।

AO Code & Payment

তারপর আপনার থেকে AO Code জিজ্ঞাসা করা হবে। এখানে আপনি আপনার গ্রাম বা শহরের PinCode টি দিন। তারপর প্যান কার্ডের জন্য নির্দিষ্ট মূল্যটি (১২০-১৩০ টাকা) পেমেন্ট করে দিন। পেমেন্ট করা হয়ে গেলে ফরমটি Submit করে দিন।

Print & Send

সাবমিট করা হয়ে গেলে ফর্ম টি ডাউনলোড করে নিয়ে এক কপি প্রিন্ট আউট বের করে নিন। তারপর দুটি পাসপোর্ট সাইজ ফটো ফ্রম এ লাগিয়ে, ফরমটি এবং তার সাথে আধার কার্ড, ভোটার কার্ড, জন্ম সার্টিফিকেট, ড্রাইভিং লাইসেন্সে এই সবকিছুর এক কপি করে জেরক্স পোস্ট অফিসের মাধ্যমে Income Tax Depeartment এর অফিসে পাঠিয়ে দিন। এবং পাঠানোর আগে, ইনকাম ট্যাক্স অফিসার দের সুবিধার্থে খামের উপরে Application for PAN লিখে দেবেন।

মনে রাখবেন, ফরমটি অনলাইনে ফিলাপ করার ১৫ দিনের মধ্যে ইনকাম ট্যাক্স ডিপার্টমেন্ট এ পাঠাতে হবে। তাই ফরমটি ফিলাপ করার পর, যত তাড়াতাড়ি পারেন পোস্ট অফিসে গিয়ে জমা করে দিন।

প্যান কার্ড সংশোধন কিভাবে করবেন

যদি আপনার প্যান কার্ডে ভুল আসে বা আপনি কোন ভুল ডাটা প্রোভাইড করেন তাহলে এটি আপনি খুব সহজভাবে সংশোধন করতে পারবেন।

প্যান কার্ড কিভাবে বানাবো ও প্যান কার্ড বানাতে কি কি লাগে

প্যান কার্ড সংশোধন করার জন্য www.onlineservices.nsdl.com ওয়েবসাইটটিতে গিয়ে Accout type সেকশনে Changes or Correction in exciting PAN Data অপশনটি নির্বাচন করুন। তারপর উপরে বলা, প্যান কার্ড তৈরীর পদ্ধতি গুলি অনুসরণ করে প্যান কার্ড সংশোধন করে নিন।

প্যান কার্ড হারিয়ে গেলে কি করবেন

https://incometaxindiaefiling.gov.in এই ওয়েবসাইটটিতে গিয়ে আপনার নাম, মোবাইল নম্বর এবং জন্ম তারিখ দিয়ে ওটিপি এর সাহায্যে মোবাইল নাম্বারটি ভেরিফাই করে অ্যাকাউন্ট বানাতে হবে। এবং এর সাথে সাথে আপনার ডিজিটাল সিগনেচার, এড্রেস প্রুফ এর জন্য আধার কার্ড, বার্থ সার্টিফিকেট, ডিজিটাল ফটো – এই সমস্ত ডকুমেন্টস গুলি জমা দিতে হবে।

সমস্ত ডকুমেন্টস জমা করার পর আপনাকে ১২০ টাকা পেমেন্ট করতে হবে। পেমেন্ট করার পর আপনার মোবাইল নাম্বারে একটা ওটিপি আসবে, ওই OTP টির সাহায্যে আপনাকে একাউন্ট টি ভেরিফাই করতে হবে। যদি সঠিকভাবে আপনার একাউন্টি ভেরিফাই হয়ে যায় তাহলে ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে পোস্ট অফিসের মাধ্যমে আপনার বাড়ির ঠিকানায় প্যান কার্ডটি পৌঁছে যাবে।

উপসংহার:

আশাকরি উপরের ইনফর্মেশন থেকে আপনি বুঝতে পেরেছেন নতুন প্যান কার্ড কিভাবে তৈরি করতে হয়, প্যান কার্ড করতে কি কি লাগে এবং প্যান কার্ড হারিয়ে গেলে কি করবেন। যদি প্যান কার্ড নিয়ে আপনার কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে আপনি কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন।

শেয়ার করতে চান!
  •  
  •  
  •  
  •  

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment