ক্লাউড স্টোরেজ কি – সবথেকে ভালো ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিস কোনটি?

ক্লাউড স্টোরেজ কি – আমরা মোবাইল বা কম্পিউটারে, ফাইল সংরক্ষণের জন্য মেমোরি কার্ড ব্যবহার করে থাকি। যে মেমরী কার্ডের মাধ্যমে আমরা আমাদের গান ভিডিও ডকুমেন্টস ছবি এগুলি স্টোর করতে পারি।

কিন্তু বর্তমান যুগে অনলাইনের মাধ্যমে, ইন্টারনেটের সাহায্যে মোবাইলের সমস্ত ফাইলগুলো অনলাইন সার্ভারে জমা রাখা যায়। এই ধরনের স্টোরেজ কে বলা হয় ক্লাউড স্টোরেজ।

আজকের এই আর্টিকেলের আপনি ক্লাউড স্টোরেজ কি এবং সবথেকে ভালো ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিস কোনটি, এই সম্পর্কে জানতে পারবেন। তাই দেরি না করে ক্লাউড স্টোরেজ সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন।

ক্লাউড স্টোরেজ কি বা কাকে বলে?

ক্লাউড স্টোরেজ হলো অনলাইন স্টোরেজ। ইন্টারনেটের মাধ্যমে নির্দিষ্ট ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিসে অ্যাকাউন্ট বানিয়ে, সেই স্টোরেজের মধ্যে ফাইল এবং বিভিন্ন ধরনের ডকুমেন্টস আপলোড করা যায়।

এবং যে কোন ডিভাইস থেকে নির্দিষ্ট একাউন্ট এর সাহায্যে লগইন করে ওই ফাইলগুলোকে অ্যাক্সেস করা যায়। যেহেতু যেহেতু ডিভাইসের ফাইল এবং ডকুমেন্টস গুলি, নির্দিষ্ট কোম্পানির ক্লাউড সার্ভারে জমা হয় তাই এটিকে ক্লাউড স্টোরেজ বলা হয়ে থাকে।

ইন্টারনেটে অনেক ধরনের বড় বড় কোম্পানি আছে যারা ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিস প্রোভাইড করে। এসব ক্লাউড স্টোরেজ কোম্পানিগুলি কাস্টমারকে কিছু অংশ ফ্রিতে ব্যবহার করার সুযোগ দেয় এবং নির্দিষ্ট স্টুডেন্ট ভর্তি হয়ে গেলে তার জন্য ইউজারকে চার্জ দিয়ে পুনরায় ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করতে হয়।

ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করার সুবিধা

  1. ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করলে, নতুন করে মেমোরি কার্ড কেনার দরকার পড়ে না।
  2. নির্দিষ্ট ফোল্ডারের ভেতর নির্দিষ্ট ডকুমেন্টস এবং ফাইলগুলি Store করতে পারবেন।
  3. ব্যবহার করা খুবই সহজ।
  4. যেকোনো জায়গায় ব্যবহার করতে পারবেন।
  5. অ্যাকাউন্ট লগইন করে যে কোন ডিভাইস থেকে ব্যবহার করতে পারবেন।
  6. খরচ খুবই কম হয় এবং বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারেন।
  7. ফাইল এর সিকিউরিটি বেশি থাকে।
  8. ডিলিট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।

কিছু বিশ্বস্ত ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিসের নাম

যদি আপনি ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করার কথা ভাবছেন তাহলে এই সমস্ত বিশ্বস্ত ক্লাউড সার্ভিস গুলি ব্যবহার করতে পারেন।

এই সমস্ত ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিস গুলি ইউজারকে বিনামূল্যে স্টোরেজ ব্যবহার করার অনুমতি দেয়। তবে নির্দিষ্ট ক্যাপাসিটি বা স্টোরেজ full হয়ে যাবার পর ইউজারকে, ক্লাউড সার্ভিস এর জন্য Pack নিতে হয়।

ভালো ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিস কোনটি?

যদি আপনি ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করতে চান তাহলে, গুগলের তৈরি নিজস্ব ক্লাউড স্টোরেজ; গুগোল ড্রাইভ আপনি ব্যবহার করতে পারেন। যেখানে আপনি 15 জিবি পর্যন্ত বিনামূল্যে স্টোরেজ ব্যবহার করার সুযোগ পাবেন। গুগল ড্রাইভ কিভাবে ব্যবহার করতে হয় এই সম্পর্কে আমরা আগেই একটি আর্টিকেল প্রকাশ করেছি। আপনি চাইলে এটি দেখতে পারেন।

আমরা সকলেই জানি যে গুগল হলো আজকের দিনে সব থেকে বড় ওয়েবসাইট। এবং গুগোল সবথেকে বিশ্বস্ত ওয়েবসাইটের মধ্যে একটি। এইজন্য আপনি যদি ভাল ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করতে চান তাহলে গুগোল ড্রাইভ আপনার জন্য খুবই কার্যকরী।

ফ্রী ক্লাউড স্টোরেজ কিভাবে ব্যবহার করবেন?

যদি আপনি বিনামূল্যে ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করতে চান তাহলে, নির্দিষ্ট ক্লাউড স্টোরেজ ক্যাপাসিটি পূরণ হয়ে যাবার পর পুনরায় নতুন অ্যাকাউন্ট তৈরি করে, অন্যান্য ফাইল গুলি আপলোড করতে পারেন।

যেমন:

ধরুন আপনি গুগোল ড্রাইভের অ্যাকাউন্ট বানিয়ে, গুগোল ড্রাইভ ব্যবহার করেছেন। এবং এই জন্য আপনি 15 জিবি পর্যন্ত বিনামূল্যে ব্যবহার করার সুযোগ পাবেন। এখন যদি আপনি 15 জিবি মেমোরি বা স্টোরেজ ভর্তি করে ফেলেন তাহলে পুনরায় নতুন জিমেইল একাউন্ট দিয়ে গুগল ড্রাইভে নতুন একাউন্ট বানান। তাহলে আপনি দ্বিতীয় অ্যাকাউন্টটিতে, পুনরায় 15 জিবি পেয়ে যাবেন।

এইভাবে আপনি নতুন নতুন অ্যাকাউন্ট বানিয়ে বিনামূল্যে ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিস উপভোগ করতে পারেন।

এছাড়া আপনি একটি জিমেইল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে সবকটি কোম্পানির ক্লাউড সার্ভিস একাউন্ট বানাতে পারেন। এখানে আপনি একটি অ্যাকাউন্ট থেকেই চারটি ক্লাউড সার্ভিস ব্যবহার করার সুযোগ পাবেন।

ক্লাউড স্টোরেজ কিভাবে ব্যবহার করতে হয়?

ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করার জন্য আপনার নির্দিষ্ট কোন ক্লাউড সার্ভিস এ গিয়ে একাউন্ট বানিয়ে নিন। একাউন্ট বানানো হয়ে গেলে, সেই ক্লাউড সার্ভিস এর Dashboard থেকে Upload অপশনটিতে ক্লিক করুন। আপলোড অপশনে ক্লিক করার সাথে সাথে, আপনি যে সমস্ত ফাইলগুলি ক্লাউড স্টোরেজে আপলোড করতে চান সেগুলো দেখতে পাবেন।

এরপর আপনি ডিভাইস থেকে যে ফাইলটিকে ক্লাউড স্টোরেজে, আপলোড করতে বা রাখতে চান, সেটিকে বেছে নিয়ে আপলোড করে দিন।

এর আগে আমি, গুগল ড্রাইভ কিভাবে ব্যবহার করতে হয় এই সম্পর্কে একটি আর্টিকেল লিখেছি। এটি দেখে নেওয়ার পর ক্লাউড সার্ভিস কিভাবে ব্যবহার করতে হয় এটি আপনার কাছে পরিষ্কার হয়ে যাবে।

উপসংহার:

আশাকরি ওপরের ইনফর্মেশন থেকে ক্লাউড স্টোরেজ কি এবং সবথেকে ভালো ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিস কোনটি, এই সম্পর্কে আপনি বুঝতে পেরেছেন। যদি ক্লাউড স্টোরেজে সম্পর্কে আপনার কোন জিজ্ঞাসা থাকে তাহলে আপনি কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন।

শেয়ার করতে চান!
  •  
  •  
  •  
  •  

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment