সফটওয়্যার কাকে বলে – গুরুত্ব এবং কত প্রকারের হয়?

সফটওয়্যার কাকে বলে – আজকের দিনে সফটওয়্যার এর নাম শোনেননি এমন লোক খুব কমই আছে। সফটওয়ারের সাহায্যে আমরা মোবাইলে এবং কম্পিউটারে বিভিন্ন ধরনের কাজ করতে পারি। মানুষের শরীরে যেমন আত্মা মানুষকে বিভিন্ন কাজ করায়, তেমনি কম্পিউটারের ক্ষেত্রে সফটওয়্যার, কম্পিউটারকে দিয়ে কাজ করায়। মানুষের আত্মার মত সফটওয়্যার কেও দেখা যায় না।

যদি আপনি সফটওয়্যার সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাহলে আজকের এই আর্টিকেলে সফটওয়্যার কি, সফটওয়্যার এর জনক কে, সফটওয়্যার এর গুরুত্ব ও বৈশিষ্ট্য, সফটওয়্যার কত প্রকার ও কি কি এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর গুলি পেয়ে যাবেন। তাই চলুন দেরী না করে জেনে নেওয়া যাক সফটওয়্যার সম্পর্কে এই সব তথ্য গুলি।

সফটওয়্যার কাকে বলে?

সফটওয়্যার হল বিভিন্ন প্রোগ্রামের মিলিত সমষ্টি। বিভিন্ন প্রোগ্রাম একত্রে করে সফটওয়্যার তৈরি করা হয়। এবং যার দ্বারা কম্পিউটার এবং মোবাইলের হার্ডওয়ার কে বিভিন্ন ধরনের কাজ করার অনুমতি দেওয়া হয়।

সোজা কথায় – সফটওয়্যার হলো একাধিক প্রোগ্রাম এর কালেকশন। যার মাধ্যমে কম্পিউটার বিশেষ বিশেষ কাজগুলো করে থাকে।

সফটওয়্যার, হার্ডওয়ার কে ইনস্ট্রাকশন দিয়ে, বিভিন্ন ধরনের কাজ করাতে সাহায্য করে। যেটি পুরো কম্পিউটার সিস্টেমকে চালায়।

যেমন: MS Excel এ কোন কিছু টাইপ করা, Firefox এর সাহায্যে ব্রাউজিং করা, Photoshop এর সাহায্যে Photo এডিট করা। এগুলি হলো আলাদা আলাদা সফটওয়্যার, যেগুলি বিভিন্ন প্রকারের কাজের জন্য ব্যবহার করা হয়।

সফটওয়্যার এর উদাহরণ:

Windows, Linux, Mac, Google Crome, Excel, Powerpoint, Internet Explorer ইত্যাদি।

সফটওয়্যার এর জনক কে?

Ada Lovelace (আদা লাভলেস) সবথেকে প্রথম, চার্লস ব্যাবেজ এর জন্য, প্রোগ্রাম বানান। যেটি চার্লস ব্যাবেজ তার প্রথম কম্পিউটার চালানোর ক্ষেত্রে ব্যবহার করে।

সফটওয়্যার কি ও কত প্রকার

সফটওয়্যার মূলত তিন প্রকার।

  1. সিস্টেম সফটওয়্যার (system software)
  2. এপ্লিকেশন সফটওয়্যার (application software)
  3. ইউটিলিটি সফটওয়্যার (utility software)

সিস্টেম সফটওয়্যার কি?

সিস্টেম সফটওয়্যার কোন কম্পিউটারের পুরো সিস্টেম কে চালাতে সাহায্য করে। যেটি কম্পিউটারের পুরো ব্যাকগ্রাউন্ড প্রসেস কে সামলায়। System software, এর সাহায্যে কম্পিউটার এর সমস্ত Hardware, operate করা হয়।

মানে সিস্টেম সফটওয়্যার এর instruction ফলো করে হার্ডওয়্যার কাজ শুরু করে।

কম্পিউটারে যে সমস্ত অ্যাপ্লিকেশন চালানো হয়, সেই সমস্ত কিছুই সিস্টেম সফটওয়্যার এর ওপর base করে চলে। যেটি ছাড়া কম্পিউটারে, কোনো অ্যাপ্লিকেশন চালানো সম্ভব নয়।

সিস্টেম সফটওয়্যার এর উদাহরণ:

Operating System (Windows 7, Windows 8, MAC, Android) এবং Language Translator, Assembler, Compiler, Interpreter এগুলি সিস্টেম সফটওয়্যার এর উদাহরণ।

এপ্লিকেশন সফটওয়্যার কি?

কোন অ্যাপ্লিকেশনের সাহায্যে স্পেসিফিক কোন কাজ করার জন্য যে সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয় তাকে এপ্লিকেশন সফটওয়্যার বলে।

সিস্টেম সফটওয়্যার শুধুমাত্র ব্যাকগ্রাউন্ড প্রসেস কে কন্ট্রোল করে কিন্তু এপ্লিকেশন সফটওয়্যার নির্দিষ্ট কাজ করার জন্য ব্যবহৃত হয়।

আমরা আমাদের সুবিধার্থে যেসব কাজ কম্পিউটারের সাহায্যে দূরে থাকিস এই সমস্ত কাজ গুলিকে কোন নির্দিষ্ট অ্যাপ্লিকেশনের দ্বারা করা হয়। এই সমস্ত অ্যাপ্লিকেশনগুলি কে এপ্লিকেশন সফটওয়্যার বলে।

উদাহরণ:

গুগল ক্রোম, ফায়ারফক্স, মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, মাইক্রোসফট এক্সেল, পাওয়ারপয়েন্ট, গুগল ম্যাপ, জিমেইল ইত্যাদি।

ইউটিলিটি সফটওয়্যার কি?

কোন নির্দিষ্ট কম্পিউটারকে ম্যানেজ, মেন্টেন এবং কন্ট্রোল করার জন্য যে সমস্ত সফটওয়্যার গুলো ব্যবহার করা হয় তাকে ইউটিলিটি সফটওয়্যার বলে।

একটি সফটওয়ারের সাহায্যে কোন কম্পিউটার এর কাজ ক্ষমতা বৃদ্ধি করা হয়। এই সফটওয়্যার সাধারণ মানুষ ব্যবহার করতে পারে না। শুধুমাত্র দক্ষ এবং টেকনিকাল ব্যক্তি এই সফটওয়্যার ব্যবহার করে, কম্পিউটারের ইমপ্রুভমেন্ট ক্ষমতা বাড়ায়।

সফটওয়্যার কিভাবে তৈরি হয়?

সফটওয়্যার তৈরি করার জন্য বিভিন্ন ধরনের প্রোগ্রাম কে সংযুক্ত করা হয়। এবং যেখানে বিভিন্ন ধরনের কোডিং করে একটি সফটওয়্যার বানানো হয়।

সফটওয়্যার বানানোর জন্য প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজের ওপর প্রচুর জ্ঞান থাকতে হবে। এবং এর সাথে সাথে Algorithms, এর ওপর প্রচুর নলেজ থাকতে হবে। এই জন্য সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার ছাড়া, সাধারণ ব্যক্তির কাছে সফটওয়্যার বানানো খুবই কষ্টকর।

প্রোগ্রামিং সফটওয়্যার কি বা কাকে বলে?

কোন নতুন প্রোগ্রাম বা সফটওয়্যার বানানোর জন্য যে সফটওয়্যার বা ল্যাঙ্গুয়েজ এর প্রয়োজন হয় তাকে প্রোগ্রামিং সফটওয়্যার বলে।

যদি আপনি কোন নতুন সফটওয়্যার বানাতে চান তাহলে, একটি সফটওয়্যার ব্যাবহার করেই আপনাকে নতুন সফটওয়্যার তৈরি করতে হবে। এই ধরনের সফটওয়্যার কে বলে প্রোগ্রামিং সফটওয়্যার।

প্রেজেন্টেশন সফটওয়্যার কাকে বলে?

কোন প্রেজেন্টেশন তৈরি করার জন্য কি সফটওয়্যার অ্যাপ্লিকেশন এর প্রয়োজন হয় তাকে প্রেজেন্টেশন সফটওয়্যার বলে।

বিভিন্ন কোম্পানির প্রেজেন্টেশন তৈরি করার জন্য বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার ব্যবহার করে থাকে। এ সমস্ত সফটওয়্যার গুলি প্রেজেন্টেশন সফটওয়্যার এর উদাহরণ। যার মধ্যে মাইক্রোসফট পাওয়ারপয়েন্ট প্রায় সকলেই ব্যবহার করে থাকে।

প্যাকেজ সফটওয়্যার কাকে বলে?

যখন কোন নির্দিষ্ট সফটওয়্যার এর মধ্যেই, আরো বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার পাওয়া যায় তখন তাকে প্যাকেজ সফটওয়্যার বলে।

সাধারণত যখন কোন সফটওয়্যার কেনা হয়, এবং তার মধ্যে অনেক গুলি আলাদা আলাদা সফটওয়্যার ঢুকে থাকলে, তাকে প্যাকেজ সফটওয়্যার বলা হয়।

উদাহরণস্বরূপ: মাইক্রোসফট অফিস (Microsoft Office)। এটি একটি এপ্লিকেশন সফটওয়্যার। এবং এই সফটওয়্যারটি Excel, Word, Powerpoint, Outlook এর মত আলাদা আলাদা সফটওয়্যার নিয়ে গঠিত।

মানব জীবনে সফটওয়্যার এর গুরুত্ব কি?

মানুষের জীবনে সফটওয়্যার পুরো পরিবর্তন নিয়ে এসেছে। যার মাধ্যমে মানুষ তাদের খুবই কঠিন কাজ কম্পিউটার এবং মোবাইলের সাহায্যে খুবই সহজ ভাবে করে ফেলতে পারে।

যার মাধ্যমে পুরো পৃথিবীর সাথে কমিউনিকেট করার সাথে সাথে, খুবই কম সময়ের মধ্যে যেকোনো কাজ খুবই সহজ ও সরল ভাবে করে ফেলার জন্য সফটওয়্যার এর গুরুত্ব অনেক বেশি।

আজকের দিনে কারো সাথে যোগাযোগ করা, ম্যাপের সাহায্যে ঘুরতে যাওয়া, অনলাইনে কোন জায়গার ছবি দেখা, মানুষের শরীরের ভেতরের ছবি তোলা এই সমস্ত কঠিন কাজ গুলি সফটওয়্যার এর দ্বারা সম্ভব হয়।

সফটওয়্যার পাইরেসি কি?

পাইরেসি মানে হল চুরি করে, নিজের মতো করে গুছিয়ে নেওয়া। সুতরাং, সফটওয়্যার পাইরেসি মানে হলো অন্যের সফটওয়্যার চুরি করে নিজের মত করে সাজিয়ে নেওয়া।

যখন কোন সফটওয়্যার Copy করে, সেটিকে পুনরায় কাস্টমাইজ এবং মডিফাই করে নতুন রূপ দেওয়া হয় এবং তাকে দ্বিতীয়বার বাজারে বিক্রি করা হয়, তখন তাকে সফটওয়্যার পাইরেসি বলে।

এটি হলো একটি ইললিগাল কাজ এবং এটি একটি ক্রাইম। সফটওয়্যার পাইরেসি করে ধরা পড়লে সেই কোম্পানি বা ব্যক্তির শাস্তি হতে পারে।

উপসংহার:

আশাকরি ওপরের ইনফর্মেশন থেকে সফটওয়্যার কি বা কাকে বলে, সফটওয়্যার কি কাজ করে, সফটওয়্যার কি কি, এপ্লিকেশন ও সিস্টেম সফটওয়্যার কাকে বলে এই সমস্ত কিছু সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন। যদি এখনও সফটওয়্যার সম্পর্কে আপনার কোন জিজ্ঞাসা থাকে তাহলে আপনি কমেন্ট করে আমাদের প্রশ্ন করতে পারেন। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন।

আরও পড়ুন:

শেয়ার করতে চান!
  •  
  •  
  •  
  •  

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment