সাইবার ক্রাইম কি | সাইবার ক্রাইম কত প্রকার?

বর্তমানে প্রায় সব কাজই হচ্ছে ইন্টারনেটের মাধ্যমে। ইন্টারনেটের সাহায্যে সবচেয়ে কঠিন কাজগুলিও সহজে অল্প সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়। এই প্রযুক্তিগত দিনে প্রায় সবাই ইন্টারনেট সম্পর্কে সচেতন, তবে সাইবার ক্রাইম কী তা সবাই জানে না।

দেশে ও বিশ্বে নানা ধরনের অপরাধ রয়েছে, যার মধ্যে সাইবার অপরাধও একটি, যা ফোন, কম্পিউটার ও ল্যাপটপের মাধ্যমে ইন্টারনেটের সাহায্যে করা হয়।

এই জন্য আজকের এই আর্টিকেল থেকে আমরা সাইবার ক্রাইম সম্পর্কে আলোচনা করব। যেখান থেকে আপনি সাইবার ক্রাইম কি, সাইবার ক্রাইম কত প্রকার এবং সাইবার ক্রাইম মামলা করার নিয়ম – সম্পর্কে জানতে পারবেন। তাই চলুন দেরী না করে জেনে নেওয়া যাক।

সাইবার ক্রাইম কি?

সাইবার ক্রাইম, কম্পিউটার ক্রাইম নামেও পরিচিত। বেআইনি উদ্দেশ্যে কম্পিউটারকে একটি হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা, যেমন: জালিয়াতি, শিশু পর্নোগ্রাফি, মেধা সম্পত্তি পাচার, ব্যক্তিগত তথ্য চুরি বা গোপনীয়তার আগ্রাসন – এই সবকিছুই হল সাইবার ক্রাইম।

যারা এই সাইবার অপরাধ করে তাদের বলা হয় সাইবার অপরাধী। এই সাইবার অপরাধীরা ব্যক্তিগত তথ্য, ব্যবসায়িক বাণিজ্য গোপনীয়তা ইত্যাদি অ্যাক্সেস করতে কম্পিউটার এবং ইন্টারনেট প্রযুক্তি ব্যবহার করে।

যারা এইসব বেআইনি কার্যকলাপ করে তাদেরকে অনেক লোক হ্যাকার বা ক্র্যাকারও বলে।

এই সাইবার ক্রাইমের কিছু সাধারণ কাজ হলো – অনলাইন ব্যাঙ্কের তথ্য চুরি, পরিচয় চুরি, শিশু পর্নোগ্রাফি এবং অনুমতি ছাড়া কম্পিউটার অ্যাক্সেস ইত্যাদি।

এই সাইবার ক্রাইমগুলো যদি বড় আকার ধারণ করে তাহলে একে সাইবার টেরোরিজম বলা হয়।

সাইবার ক্রাইম বলতে কী বোঝায়?

অনলাইনের মাধ্যমে সংঘটিত অপরাধকে সাইবার ক্রাইম বলা হয়। অর্থাৎ ইন্টারনেটের মাধ্যমে সংঘটিত অপরাধের হাই-টেক ফর্মকে সাইবার ক্রাইম বলা হয়।

এর আওতায় ইন্টারনেটের সাহায্যে ক্রেডিট কার্ড চুরি, ব্ল্যাকমেইলিং, পর্নোগ্রাফির মতো অপরাধগুলি করা হয়।

সাইবার ক্রাইম কত প্রকার

১. হ্যাকিং (Hacking)

এই ধরনের অপরাধে, হ্যাকাররা প্রায়ই সীমাবদ্ধ এলাকায় প্রবেশ করে এবং তাদের অনুমতি ছাড়াই অন্যদের ব্যক্তিগত এবং সংবেদনশীল তথ্য অ্যাক্সেস করে। এই সীমাবদ্ধ এলাকাটি কারো ব্যক্তিগত কম্পিউটার বা একটি অনলাইন অ্যাকাউন্ট হতে পারে।

২. সাইবার স্টকিং (Cyber Stalking)

এটি এমন এক ধরনের সাইবার অপরাধ যাতে ভিকটিমকে অনলাইনে কোনো স্টেকার দ্বারা হয়রানি করা হয়। এটি প্রায়শই সোশ্যাল মিডিয়াতে বেশি দেখা যায়, যেখানে এই স্টকাররা অনলাইন বার্তা এবং ইমেলের মাধ্যমে ভিকটিমদের হয়রানি করে।

এতে, এই স্টকাররা প্রায়শই ছোট বাচ্চাদের তাদের শিকারে পরিণত করে। যাদের ইন্টারনেট সম্পর্কে তেমন বোঝাপড়া নেই। আর তাদের কাছ থেকে তাদের শারীরিক ঠিকানা, ছবি, ব্যক্তিগত তথ্য পেয়ে পরে ব্ল্যাকমেইল করে।

৩. চুরি (Theft)

এই অপরাধটি ঘটে যখন একজন ব্যক্তি কোন কপিরাইট আইন লঙ্ঘন করে এবং সঙ্গীত, চলচ্চিত্র, গেম এবং সফ্টওয়্যার ডাউনলোড করে।

অনেক পিয়ার শেয়ারিং ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলি সফ্টওয়্যার পাইরেসিকে উৎসাহিত করে এবং মালিকের অনুমতি ছাড়াই তাদের ওয়েবসাইটে সমস্ত প্রিমিয়াম জিনিস অবাধে বিতরণ করে। এটা করা আইনত অপরাধ হিসেবে বিবেচিত।

৪. পরিচয় প্রতারণা (Identity Theft)

বর্তমান সময়ে এই অপরাধ সবচেয়ে বেশি দেখা গেছে। অপরাধীরা বেশিরভাগ সময়, তাদেরই টার্গেট করে যারা তাদের নগদ লেনদেন এবং ব্যাংকিং পরিষেবাগুলি করতে ইন্টারনেট ব্যবহার করে ।

এই সাইবার অপরাধে, একজন অপরাধী একজন ব্যক্তির সমস্ত ডেটা যেমন তার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নম্বর, ক্রেডিট কার্ডের বিশদ, ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিংয়ের বিবরণ, ব্যক্তিগত তথ্য, ডেবিট কার্ড এবং অন্যান্য সংবেদনশীল তথ্য অ্যাক্সেস করে।

৫. Malicious Software

অনেক ইন্টারনেট ভিত্তিক সফটওয়্যার বা প্রোগ্রাম আছে যেগুলো যেকোনো নেটওয়ার্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে।

যদি এই ধরনের সফ্টওয়্যার একটি নেটওয়ার্কে একবার ইনস্টল করা হয়, তবে এই হ্যাকাররা সহজেই সেই নেটওয়ার্কে অবস্থিত সমস্ত তথ্য অ্যাক্সেস করতে পারে এবং এরমধ্যে সঞ্চিত থাকা ডেটার ক্ষতিও করতে পারে।

সাইবার ক্রাইম প্রতিরোধের উপায়

আপনার ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিং এবং ব্যাঙ্কিং লেনদেনগুলি কখনই কোনও পাবলিক সাইবার ক্যাফেতে ব্যবহার করবেন না যেখানে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য সহজেই চুরি হতে পারে।

অন্য ব্যক্তির কম্পিউটার থেকে ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিংয়ের অধীনে কোনও ধরনের লেনদেন করবেন না এবং লেনদেন করার পরে ইমেল অ্যাকাউন্ট লগআউট করতে ভুলবেন না।

লগ ইন করার পর, লগ ইন রাখুন বা পাসওয়ার্ড মনে রাখার মতো বিকল্পগুলির জন্য কম্পিউটারের দ্বারা জিজ্ঞাসা করা লিঙ্কে ক্লিক করবেন না।

আপনার ইমেল অ্যাকাউন্টে প্রাপ্ত কোনও স্প্যাম মেল খুলবেন না বা কোনও সংযুক্তি ডাউনলোড করবেন না।

ভাইরাস আক্রমণ থেকে আপনার কম্পিউটারকে রক্ষা করতে আপনার কম্পিউটারের অ্যান্টি-ভাইরাস এবং অ্যান্টি-ম্যালওয়্যার সফ্টওয়্যার ব্যবহার করুন।

আপনার কম্পিউটার, ইমেল অ্যাকাউন্ট এবং অন্যান্য ধরণের ইন্টারনেট লেনদেনের জন্য শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন, যা শব্দ এবং সংখ্যা দ্বারা গঠিত।

সাইবার ক্রাইম মামলা করার নিয়ম

1. এর প্রথম ধাপ হল, আপনার শহরে বা আপনার বসবাসের কাছাকাছি সাইবার ক্রাইম সেলে একটি সাইবার অপরাধের অভিযোগ নথিভুক্ত করা।

তথ্যপ্রযুক্তি আইন অনুযায়ী, একটি সাইবার অপরাধ বিশ্বব্যাপী এখতিয়ারের আওতায় পড়ে। এর মানে হল যে আপনি ভারতের যেকোনো সাইবার সেলগুলিতে সাইবার অপরাধের অভিযোগ করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে বিশেষভাবে কোথাও যেতে হবে না। এখন ভারতের প্রায় সব বড় শহরে ডেডিকেটেড সাইবার ক্রাইম সেল খোলা হয়েছে।

2. আপনি যখন সাইবার অপরাধের অভিযোগ দায়ের করেন, তখন আপনাকে আপনার নাম, যোগাযোগের বিশদ বিবরণ এবং মেইলিং ঠিকানা দিতে হবে। এর পরে আপনাকে আপনার শহরের সাইবার ক্রাইম সেলের প্রধানের কাছে লিখিত অভিযোগ জানাতে হবে।

3. আপনি যদি কোনো অনলাইন হয়রানির শিকার হন, তাহলে থানায় রিপোর্ট করার সময় একজন আইনি পরামর্শদাতা, আপনাকে সহায়তা করতে পারেন। উপরন্তু, আপনাকে আপনার অভিযোগের সাথে কিছু নথি প্রদান করতে হতে পারে। এটা নির্ভর করে আপনার সাথে কি ধরনের অপরাধ ঘটেছে তার ওপর।

4. যদি আপনার শহরে কোনও সাইবার সেল না থাকে, তবে আপনি যে কোনও একটি স্থানীয় থানায় একটি এফআইআর দায়ের করতে পারেন। যদি আপনার অভিযোগ গ্রহণ না করা হয়, তাহলে আপনি কমিশনার বা শহরের বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেটের কাছেও যেতে পারেন।

5. কিছু সাইবার অপরাধ ভারতীয় দণ্ডবিধির আওতায় আসে। অতএব, আপনি একটি সাইবার ক্রাইম এফআইআর এর ভিত্তিতে কাছাকাছি স্থানীয় থানায় তাদের রিপোর্ট করতে পারেন।

6. ইন্ডিয়ান পেনাল কোড কভার করে এমন বেশিরভাগ সাইবার অপরাধকে আমলযোগ্য অপরাধ হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে। একটি আমলযোগ্য অপরাধ হল এমন একটি অপরাধ যেখানে কাউকে গ্রেফতার বা তদন্ত করার জন্য কোন ওয়ারেন্টের প্রয়োজন হয় না।

এই ধরনের ক্ষেত্রে, একজন পুলিশ অফিসার সেই অভিযোগকারীর জন্য জিরো এফআইআর রেকর্ড করতে বাধ্য হন। তারপর তিনি এটি সেই থানায় পাঠাবেন যেখানে এই অপরাধটি ঘটেছে।

7. এই ক্ষেত্রে সময় নষ্ট না করে অবিলম্বে তদন্ত করতে হয় এবং এটি খুব দ্রুত ঘটে।

সাইবার ক্রাইম মামলার শাস্তি

ভারতে সাইবার ক্রাইমে কেউ, দোষী প্রমাণিত হলে তার শাস্তি তিন বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড অথবা 5 লাখ টাকা পর্যন্ত জরিমানা হতে পারে।

এবং বাংলাদেশে সর্বোচ্চ ১৪ বছর কারাদণ্ড এবং সর্বনিম্ন ৭ বছর কারাদণ্ড বা ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত জরিমানার বিধান রয়েছে।

তবে যেকোনো অপরাধীকে, তার অপরাধের ভিত্তিতে বিভিন্ন ধরনের শাস্তি দেওয়া হয়।

উপসংহার

আশা করছি আজকের এই আর্টিকেল থেকে সাইবার ক্রাইম কি, সাইবার ক্রাইম প্রতিরোধের উপায় এবং সাইবার ক্রাইম কত প্রকার এই সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন। যদি আপনিও, দিনের বেশিরভাগ সময় ইন্টারনেট এবং কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকেন, তাহলে আজ থেকে সতর্কতার সাথে সেগুলো ব্যবহার করুন। না হলে আপনিও সাইবার ক্রাইমের শিকার হতে পারেন। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন।

আরও পড়ুন

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment