রিং টপোলজি কাকে বলে – সুবিধা অসুবিধা ও বৈশিষ্ট্য

আগের আর্টিকেলটি থেকে আমরা বাস টপোলজি সম্পর্কে জানিয়ে ছিলাম। আজ আমরা এই আর্টিকেলটি মাধ্যমে রিং টপোলজির সম্পর্কে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর জানবো।

যেমন রিং টপোলজি কাকে বলে, রিং টপোলজির সুবিধা অসুবিধা, রিং টপোলজির বৈশিষ্ট্য ও ব্যবহার

যদি আপনিও রিং টপোলজি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান এবং এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর পেতে চান তাহলে আর্টিকেলটি পড়তে থাকুন।

রিং টপোলজি কাকে বলে?

যে টপোলজিতে নেটওয়ার্ক এর সাথে যুক্ত কম্পিউটার গুলি বৃত্তাকারভাবে অবস্থিত থাকে তাকেই রিং টপোলজি বলে।

এই ধরনের নেটওয়ার্ক এর সাথে যুক্ত কম্পিউটারগুলিকে কে দেখতে কতকটা রিং এর মত দেখায়। এই কারণেই এই ধরনের নেটওয়ার্ক টপোলজির নাম রিং টপোলজি রাখা হয়েছে।

এই ধরনের টপোলজিতে কম্পিউটার গুলি পাশের কম্পিউটারের সাথে কানেক্ট করা হয়। এবং প্রথম যে কম্পিউটারটি থাকে সেটি আবার শেষের কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত থাকে।

রিং টপোলজির চিত্র

আপনি এই ছবিটির মাধ্যমে দেখতে পাচ্ছেন যে রিং টোপোলজি দেখতে কতকটা গোলাকার বা রিং আকৃতির।

রিং টপোলজি কাকে বলে

যেখানে একটি কম্পিউটার তার আগের কম্পিউটারের সাথে কানেক্ট হয়ে নেটওয়ার্ক এর আদান প্রদান করছে।

রিং টপোলজির সুবিধা অসুবিধা

এখন আমরা রিং টপোলজির সুবিধা ও অসুবিধা সম্পর্কে জেনে নেব। তাই চলুন প্রথমে রিং টপোলজির সুবিধা এবং পরে অসুবিধাগুলি জেনে নিই।

রিং টপোলজির সুবিধা

  • এই ধরনের টপোলজিতে কোন সার্ভার এর প্রয়োজন হয় না
  • প্রতিটি কম্পিউটারের গুরুত্ব সমান হয়

রিং টপোলজির অসুবিধা

  • একটি কম্পিউটারের সমস্যা দেখা দিলে পুরো নেটওয়ার্কের সমস্যা দেখা দেয়
  • সমস্যা খুঁজে বের করা কঠিন
  • নতুন কম্পিউটার যুক্ত করলে বা সরিয়ে নিলে বাকি কম্পিউটারগুলোতে নেটওয়ার্ক বন্ধ হয়ে যায়।

রিং টপোলজির বৈশিষ্ট্য

  1. নির্দিষ্ট কম্পিউটার পরের কম্পিউটারটির সাথে যুক্ত থাকে
  2. প্রথম বা শেষ কম্পিউটার বলে কিছু হয়না
  3. বৃত্তাকার আকার ধারণ করে

রিং টপোলজির আকার কেমন?

রিং টপোলজি দেখতে বৃত্তাকার। একটি সাথে একটি কম্পিউটার কানেক্ট হয়ে এই ধরনের টপোলজির তৈরি হয়। যা একটি গোলাকার আকার ধারণ করে থাকে।

রিং টপোলজির ব্যবহার

একটি নির্দিষ্ট অফিসের নির্দিষ্ট ঘরের মধ্যে অনেকগুলো কম্পিউটার একসাথে চালানোর সময় রিং টপোলজির ব্যবহার করা হয়।

যেখানে পার্শ্ববর্তী কম্পিউটারগুলোতে আগের কম্পিউটারের সাথে কানেক্ট করে নেটওয়ার্ক এর আদান প্রদান করা যায়।

উপসংহার

আশা করি আজকের এই ইনফরমেশন থেকে রিং টপোলজি সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে গেছেন। যদি আর্টিকেলটি সম্পর্কে আপনার এখনো কোনো প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে আপনি কমেন্ট এর মাধ্যমে আমাদের জানাতে পারেন। আমরা কমেন্ট এর মাধ্যমে আপনাকে পুরো সাহায্য করার চেষ্টা করব। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন।

আরও পড়ুন

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment