মেয়েদের সাথে কথা বলতে ভয় পাই – কি করবেন?

মেয়েদের সাথে কথা বলতে ভয় পাই – এই ভয়টি কিভাবে কাটাবো?” – এই প্রশ্নটি অনেক ছেলেরাই করে থাকে।

কিছু কিছু ছেলে আছে, যারা অনায়াসে যে কোন মেয়ের সাথে কথা বলতে পারে আবার কেউ কেউ আছে যারা মেয়েদের সামনে যেতেই লজ্জা পায়।

কারণ মেয়েদের সাথে কথা বলতে তাদের ভয় লাগে। তাহলে এই ভয়টি দূর করার উপায় কি?

আজকের আর্টিকেল থেকে আমরা এই প্রশ্নটি নিয়ে আলোচনা করব। যেটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার পর আপনিও মেয়েদের সাথে কথা বলতে আর ভয় পাবেন না। তাই চলুন দেরী না করে মেয়েদের সাথে কথা বলার সময় ভয় কাটিয়ে ওঠার উপায় জেনে নেওয়া যাক।

মেয়েদের সাথে কথা বলতে ভয় পাওয়ার কারণ

মেয়েদের সাথে কথা বলতে ভয় পাওয়ার কিছু বিশেষ কারণ আছে। এই সমস্ত কারণগুলোর জন্যই কিছু কিছু ছেলেরা মেয়েদের সাথে কথা বলতে ভয় পায়। তাই চলুন প্রথমে মেয়েদের সাথে কথা বলতে ভয় পাওয়ার কারণ গুলো জেনে নেওয়া যাক।

১. কি কথা বলবো?

কোন মেয়ের সাথে কথা বলতে যাওয়ার আগে সর্বপ্রথম সে মনে মনে ভাবতে থাকে যে সেখানে গিয়ে তার সাথে কি কথা বলব। আর ছেলেটি ভাবতে ভাবতে খুঁজেই পাইনা যে সে মেয়েটির সাথে কি কথা বলবে। এই একটি প্রশ্নের কারণেই সে মেয়ের সাথে কথা বলতে ভয় পায়।

২. মেয়েটা কি আমার সাথে কথা বলবে?

মেয়েটির সাথে কথা বলার টপিক যদি মাথায় চলেও আসে, তারপরও চিন্তা আসে মেয়েটা কি আমার সাথে কথা বলবে। যদি না বলে আমাকে ইগনোর করে তাহলে আমার কতনা অপমান হবে। এটি ভেবেও অনেক সময় ছেলেরা মেয়েদের সাথে কথা বলতে পারেনা।

৩. খুব বড় পরিবারের মেয়ে

প্রথম দুটি প্রশ্নের সমাধান হয়ে যাবার পরেও আরেকটি চিন্তা মাথায় আসে। এটি হলো “হতে পারে মেয়েটি খুব বড় লোকের মেয়ে, সে কি আমার সাথে কথা বলবে?”

এইখানে ছেলেটি মেয়েটির থেকে অনেক নিচু ভেবে নেয়। এবং নেগেটিভ চিন্তাধারার কারণে সে মেয়েদের সাথে কথা বলতে পারেনা।

৪. কথা বলতে লজ্জা লাগে

অনেক ছেলে আছে যারা মেয়েদের সাথে কথা বলতে লজ্জা পায়। লজ্জা পাওয়ার কারণ গুলি আলাদা আলাদা ছেলের কাছে বিভিন্ন ধরনের।

৫. অনেক ছেলে ঘাবড়ে যায়

অনেক ছেলে মেয়েদের সামনে যাওয়া মাত্র আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলে এবং ঘাবড়ে যায়। যার ফলে ছেলেটির মাথা কাজ করে না। এবং কি বলবে ভেবে না পেয়ে চুপ করে থাকে। এবং কিছুক্ষণ পর মেয়েটির কাছ থেকে পালিয়ে আসে।

মেয়েদের সাথে কথা বলার ভয়, কাটিয়ে তোলার উপায়

আসা করছি মেয়েদের সাথে কথা বলার ভয়ের কারণগুলি বুঝতে পেরেছেন। এবার আমরা এই ভয় কাটিয়ে তোলার উপায় গুলি কি সেটি জানবো।

১. আত্মবিশ্বাসের সাথে কথা বলুন

মেয়েদের সাথে কথা বলার সময় নিজের ওপর বিশ্বাস রাখুন এবং তার সাথে কথা বলুন। কোন রকম নেগেটিভ চিন্তাধারা ছাড়া পজিটিভ ভাবে বাকি মানুষের সাথে যেভাবে কথা বলেন, ঠিক তেমনভাবে মেয়েটির সাথে কথা বলার চেষ্টা করুন।

কথা বলার আগে ভেবে নেবেন – “যা হবে দেখা যাবে আগে কথা তো বলি।”

এরকম ভাবে অভ্যাস করতে করতে একদিন আপনি খুব সহজে যেকোনো মেয়ের সাথে কথা বলতে পারবেন।

২. চোখে চোখ রেখে কথা বলুন

যে কোন মেয়ের সাথে কথা বলার সময় তার চোখে চোখ রেখে কথা বলুন। যার ফলে আপনার নিজের আত্মবিশ্বাস বাড়বে এবং মেয়েটিও ভাববে আপনার প্রচুর আত্মবিশ্বাস রয়েছে। যে কারণে মেয়েটিও আপনার সাথে কথা বলার প্রতি আগ্রহী হবে।

৩. মুখে হাসি রেখে কথা বলুন

সর্বদা কথা বলার সময় মুখে হাসি রেখে কথা বলুন। কখনো দুঃখিত হয়ে নতুন কোন মেয়ের কাছে কথা বলতে যাবেন না। কারণ মেয়েরা সর্বদা হাসিখুশি ছেলে পছন্দ করে।

যদি আপনি কথা বলার সময় মুখে হাসি রেখে কথা বলেন তাহলে মেয়েটি আপনার প্রতি আকর্ষিত হবে। এবং আপনার প্রতি কথা বলার জন্য আগ্রহী থাকবে।

ভয় কাটানোর সহজ উপায়

মেয়েদের সাথে কথা বলার ভয়টি কাটিয়ে তোলার একটি সহজ উপায় হলো মেয়েটির কোন ছেলে বন্ধুর সাথে প্রথমে আপনি বন্ধুত্ব করুন।

এবং ধীরে ধীরে মেয়েটির সম্পর্কে সবকিছু জেনে নিন। সে কি করতে ভালোবাসে, তার পছন্দের জিনিস কি, তার লক্ষ্য কি, সে কি ধরনের বন্ধু পছন্দ করে এইসব জিনিস আগে জেনে নেওয়ার চেষ্টা করুন।

যার ফলে নির্দিষ্ট মেয়েটির সাথে কথা বলার সময় আপনি খুব সহজে টপিক খুঁজে পাবেন এবং আপনি যেহেতু তার সম্পর্কে এত কিছু জানেন এর জন্য, আপনার নিজের মধ্যেও আত্মবিশ্বাসের সঞ্চারণ হবে।

এরপর আপনি দেখবেন আপনি খুব সহজে নির্দিষ্ট মেয়েটির সাথে কথা বলতে পারছেন। এবং এর জন্য আপনার কোন ভয় লাগছে না।

উপসংহার

আশাকরি উপরের ইনফর্মেশন থেকে “মেয়েদের সাথে কথা বলতে ভয় পাই” এই প্রশ্নের উত্তর পেয়ে গেছেন। এখন উপরের কথামতো ভয় কাটানোর উপায় গুলি প্র্যাকটিস করতে থাকুন। এবং ধীরে ধীরে নতুন নতুন মেয়েদের সাথে কথা বলার চেষ্টা করুন। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন।

আরও পড়ুন

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment