তুলসী পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা

তুলসী পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা – তুলসীর নাম শুনলেই পবিত্র গাছটির কথা মনে পড়ে। তুলসী গাছ এমন একটি উদ্ভিদ, যেটি ভারত দেশের প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই দেখা যায় এবং ছোট-বড় সবাই তাদের বাড়িতে এটি লাগায়। ভারতে, এটি আপনার বাড়িতে রাখা শুভ বলে মনে করা হয়। ধর্মীয় বিশ্বাস ছাড়াও এর একটি বৈজ্ঞানিক কারণও রয়েছে, স্বাস্থ্যের দিক থেকে তুলসী খুবই উপকারী।

কথিত আছে, বাড়ির আঙিনায় তুলসী থাকার কারণে ঘরে রোগবালাই প্রবেশ করতে পারে না। প্রত্যেক হিন্দু মহিলা সকালে তুলসী পূজা করেন। যুগ যুগ ধরে তুলসীকে ওষুধ হিসেবেও দেখা হচ্ছে, এর পাতা থেকে শুরু করে ফলের কাণ্ড সবই কিছু না কিছু উপকার দেয়।

ভারতের হিন্দুরা তুলসীকে দেবী মনে করে এবং আইন অনুসারে তার পূজা করে। তুলসী বিভা হল একটি খুব বিখ্যাত উত্সব, যা দীপাবলির পরে দেব উত্নী একাদশী অর্থাৎ গয়রাসে পালিত হয়।

হিন্দুরা অবশ্যই প্রসাদের সাথে ভগবানকে তুলসী নিবেদন করে। অনেক ওষুধেও তুলসী ব্যবহার করা হয়। ঘরে বসেও এটি ব্যবহার করে আমরা সহজেই অনেক রোগ থেকে মুক্তি পেতে পারি।

এইজন্য আজকের আর্টিকেল থেকে আমরা তুলসি পাতার উপকারিতা তুলসী পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে জানবো। যেটি আপনার খুব কাজে আসবে।

তুলসি পাতার উপকারিতা

অপকারিতার থেকে, তুলসি পাতার উপকারিতা অনেক গুণ বেশি। তাই প্রথমে এর সুবিধা গুলি জেনে নেওয়া যাক।

১) শরীরের জ্বর কমায়

তুলসী পাতার চা এর উপকারিতা – তুলসীর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিবায়োটিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা জ্বর কমাতেও উপকারী। সংক্রমণের সঙ্গে জ্বরই হোক বা ম্যালেরিয়া, তুলসি তা কমাতে সক্ষম।

আয়ুর্বেদে প্রধানত জ্বরের সময় তুলসীর জল পান করার পরামর্শ দেওয়া হয়। এটি পান করলে সত্যিই দ্রুত উপকার পাওয়া যায়। এটি শিশুদের জন্য বিশেষভাবে ভাল।

তুলসি পাতা খাওয়ার নিয়ম – 1 লিটার পানিতে কিছু তুলসী পাতা ও এলাচ গুঁড়ো দিয়ে অর্ধেক না হওয়া পর্যন্ত ফুটিয়ে নিন। আপনি এটিতে দুধ এবং চিনি যোগ করতে পারেন। এখন প্রতি 2-3 ঘন্টা অন্তর রোগীকে দিতে থাকুন।

২) ডায়াবেটিসের বিরুদ্ধে কাজ করে

তুলসী এমন একটি উপাদান বের করে যেটি শরীরে ইনসুলিন তৈরি করে ও বজায় রাখে। । তুলসি ব্লাড সুগার কমায়, যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখে।

৩) মানসিক চাপ কমায়

একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, তুলসি শরীরের স্ট্রেস-বর্ধক হরমোন দূর করে। একে অ্যান্টি স্ট্রেস এজেন্টও বলা হয়। তুলসি আমাদের সমস্ত কোষকে স্বাভাবিকভাবে চলতে সাহায্য করে, রক্ত ​​সঞ্চালন করে।

বেশি মানসিক চাপ থাকলে তুলসী খাওয়ার পরামর্শও দেন চিকিৎসকেরা। অতিরিক্ত মানসিক চাপের ক্ষেত্রে দিনে দুবার 10-12 টি তুলসী চিবিয়ে খেলে মানসিক চাপ অনেকাংশে কমে যাবে।

৪) পেটের পাথরের সমস্যা দূর করে

কিডনিতে পাথর হলে তুলসি সেই সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। কিডনিতে পাথর মূলত রক্তে ইউরিক অ্যাসিড বৃদ্ধির কারণে হয়ে থাকে।

তুলসি এই ইউরিক অ্যাসিড কমাতে সক্ষম। তুলসীতে উপস্থিত তেল এই পাথরকে ধ্বংস করে। তুলসীও হলো ব্যথা উপশমকারী, তাই এটি কিডনিতে পাথরের কারণে হওয়া ব্যথা থেকেও মুক্তি দেয়। তাই পাথরের সমস্যা দূর করার জন্য এটি একটি খুব ভালো ঘরোয়া উপায়।

যেভাবে ব্যবহার করবেন – তুলসীর রস বের করে তাতে মধু মিশিয়ে নিন। এখন অন্তত ৬ মাস প্রতিদিন পান করুন। কিডনির পাথর কোনো চিকিৎসা ছাড়াই বেরিয়ে যাবে।

৫) ক্যান্সারের মত ভয়ংকর রোগ দূর করে

তুলসীর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যের কারণে এটি তামাকের কারণে হওয়া স্তন ক্যান্সার এবং মুখের ক্যান্সারে উপশম দেয়। প্রতিদিন তুলসী চিবিয়ে খেলে শরীরে ক্যান্সার কোষ বৃদ্ধি পায় না।

৬) ধূমপান ত্যাগে সাহায্য করে

তুলসীতে অ্যান্টি-স্ট্রেস এজেন্ট রয়েছে, যা ধূমপান ছাড়তেও সাহায্য করে। মানসিক চাপ কমিয়ে সিগারেট খাওয়ার ইচ্ছা কম হয়, যাতে আপনি সহজেই ধূমপান ত্যাগ করতে পারেন।

সিগারেট খাওয়ার ইচ্ছা জাগ্রত হওয়ার সাথে সাথে কিছু তুলসী পাতা নিয়ে চিবানো শুরু করুন। কিছুক্ষণের মধ্যেই আপনার ইচ্ছা অদৃশ্য হয়ে যাবে। এছাড়া তুলসী চিবানোর আরও একটি উপকারিতা রয়েছে, এত বছর ধরে ধূমপান করে আপনার শরীরের যে ক্ষতি হয়েছে তা তুলসীর সাহায্যে কমিয়ে নেওয়া হয়।

৭) রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

তুলসী শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, যার কারণে সর্দি, কাশি, সর্দি, ফ্লু, ভাইরাস এসব শরীরে তাদের প্রভাব দেখায় না।

ঠাণ্ডা ও বৃষ্টির দিনে চায়ে তুলসি পান করা খুবই উপকারী। আপনার চারপাশে ঘটতে থাকা সমস্ত রোগ থেকে আপনি রক্ষা পাবেন।

৮) মাথাব্যথা কমিয়ে দেয়

তুলসী পাতা মাথাব্যথা সারাতে পারে। তুলসীতে রয়েছে ব্যাথা বিরোধী উপাদান, যা খেলে সব ধরনের ব্যথা থেকে অনেকাংশে মুক্তি মিলবে।

যেভাবে ব্যবহার করবেন – একটি পাত্রে জল নিন, তাতে কয়েকটি তুলসী পাতা দিন, এবার ফুটিয়ে নিন। একটু ঠাণ্ডা হওয়ার পর একটা তোয়ালে ভিজিয়ে ছেঁকে নিন, এবার মাথায় বেঁধে নিন। খুব তাড়াতাড়ি মাথা ব্যথা সেরে যাবে। এছাড়া তুলসী পাতার পরিবর্তে এতে তুলসীর তেলও দিতে পারেন।

৯) বমি এবং ডায়রিয়া দূর করতে পারে

এই সমস্যাও সহজেই দূর করে তুলসী। ডায়রিয়া হলে কিছু তুলসী পাতা পিষে তাতে মধু ও জিরার গুঁড়া মিশিয়ে প্রতি ২ ঘণ্টা অন্তর রোগীকে দিন।

তাতে রোগী অনেক বিশ্রাম পাবেন। এছাড়া বমির পর তুলসীর রসে আদার রস ও ছোট এলাচ গুঁড়ো মিশিয়ে পান করতে হবে। ডায়রিয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে এটি একটি ভালো ঘরোয়া উপায়।

তুলসীর অন্যান্য কিছু সুবিধা

  • হাঁপানির সমস্যা থাকলে তুলসী পাতা কালো লবণের সঙ্গে মিশিয়ে চিবিয়ে খেতে থাকুন।
  • কুষ্ঠ রোগের মতো রোগও তুলসীর দ্বারা নিরাময় হয়।
  • কানে ব্যথা বা শ্রবণশক্তি কম থাকলে তুলসীর রসে কর্পূর মিশিয়ে হালকা গরম করে কানে লাগান, খুব তাড়াতাড়ি আরাম পাবেন।
  • তুলসী চিবিয়ে খেলে শিশু ও বড়দের স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়।

ত্বকের যত্নে তুলসী পাতার ব্যবহার

তুলসি ত্বকের উপকার করে, যার কয়েকটি নিম্নরূপ:

  1. অনেক প্রসাধনী পণ্য কোম্পানি তাদের পণ্যে একটি উপাদান হিসাবে তুলসী ব্যবহার করে কারণ এতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। যা ত্বককে ব্যাকটেরিয়া থেকে রক্ষা করে।
  2. তুলসী পাতা শুকিয়ে খেলে বা রসের আকারে খেলে তা রক্তকে বিশুদ্ধ করে, যার ফলে আপনার ত্বক উজ্জ্বল হয়। এর পাশাপাশি ব্রণের সমস্যাও সেরে যায়, ত্বক হয়ে ওঠে স্বাস্থ্যকর।
  3. বেসন ও তুলসীর পেস্ট ত্বকে লাগালে কালো দাগ দূর হয়। ত্বকে তুলসী পাতা ঘষলে কালো দাগও দূর হয়।
  4. সরিষার তেল দিয়ে তুলসী পাতা কালো হওয়া পর্যন্ত সিদ্ধ করুন। তারপর ঠাণ্ডা করে ত্বকে লাগান। ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় এটি করলে ত্বক সঙ্গে সঙ্গে ভালো হয়ে যায়।
  5. আয়ুর্বেদ চিকিৎসকের মতে, তুলসী ত্বকের সবচেয়ে বড় সমস্যা সমাধানে সক্ষম। এর জন্য নিয়মিত মুখে তুলসীর পেস্ট লাগান।

চুলে তুলসী পাতার উপকারিতা

তুলসি চুলের জন্যও ভালো, এর অনেক উপকারিতা রয়েছে যা নিম্নরূপ:

  • খুশকি এবং চুলকানি চুল পড়ার প্রধান কারণ, এমন পরিস্থিতিতে প্রতিদিন কয়েক ফোঁটা তুলসীর তেল মিশিয়ে লাগালে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।
  • এর সাথে বেসিল হিবিস্কাস এবং নিম পাতার পেস্ট লাগালে আপনার শিকড়ে চুলকানি হয় না এবং চুল পড়ার সমস্যাও দূর হয়।
  • প্রতিদিন তুলসী তেল দিয়ে মালিশ করলে চুলে শক্তি আসে।
  • নারকেল তেলের সঙ্গে তুলসীর গুঁড়ো মিশিয়ে চুলের গোড়ায় ম্যাসাজ করুন। কয়েকদিনের মধ্যেই আপনার চুল হয়ে উঠবে লম্বা ঘন চকচকে।

তুলসী পাতার অপকারিতা

তুলসী পাতার ক্ষতিকর দিক ও রয়েছে। তবে সেগুলি খুবই অল্প। তুলসী পাতার অপকারিতা গুলি হলো –

  • তুলসী অত্যধিক সেবনের ফলে অতিরিক্ত পরিমাণে ইউজেনল তৈরি হয়, যা অত্যন্ত ক্ষতিকারক। এটি সিগারেট ইত্যাদির মতো অনেক ক্ষতিকারক জিনিসে পাওয়া যায়। এতে কাশির সময় রক্ত, দ্রুত শ্বাস-প্রশ্বাস এবং প্রস্রাবে রক্ত ​​পড়ার মতো সমস্যা হয়।
  • তুলসি রক্ত ​​পাতলা করে, তাই অন্য কোনো ওষুধের সঙ্গে খাওয়া উচিত নয়।

উপসংহার

আমি আশা করি যে তুলসী পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা পড়ার পর, এর উপকারিতা ও অসুবিধা সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন। এবং আজ থেকেই এটি ব্যবহার করার চেষ্টা করবেন। যদি এটি আপনার বাড়িতে না থাকে তবে আজ আপনি এটিকে কোথাও থেকে এনে ঘরে রাখুন, আপনি ঘরে সতেজতা অনুভব করবেন। ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment