Motivational speech in Bengali | মোটিভেশনাল কথা

Motivational speech in Bengali – আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যাদের কোন কোন সময় বিভিন্ন অনুষ্ঠানে Motivational speech দিতে হয়। অনেক কে আবার হঠাৎ করে বক্তৃতা দেওয়ার জন্য স্টেজ এ উঠতে হয়। তাই এই সমস্যার হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য আপনাদের সকলকেই অল্পবিস্তার ছোট খাটো Motivational speech সম্পর্কে ধারণা রাখা দরকার।

আজকের এই আর্টিকেলটির মধ্যে আপনি দুটি মোটিভেশনাল কথা (Motivational speech in Bengali) পেয়ে যাবেন। যেগুলি আপনি যেকোন সময় যেকোন বক্তৃতায় ব্যাবহার করতে পারেন।

Motivational speech in Bengali

সকল সম্মানিত অতিথি, সম্মানিত শিক্ষক এবং আমার প্রিয় বন্ধুদের আমার শুভেচ্ছা।

আজকের এই বিশেষ উপলক্ষে শিক্ষার্থীদের জন্য একটি অনুপ্রেরণামূলক বক্তৃতা দেওয়ার সুযোগ দেওয়ার জন্য আমি আপনাদের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

সফলতা তাদের কাছেই আসে যাদের জীবনে লক্ষ্য থাকে এবং লক্ষ্যের প্রতি যারা সৎ। এবং আপনারা প্রত্যেকে লক্ষ্য অর্জনের জন্য, একটি সত্যিকারের সংকল্প গ্রহণ করুন এবং এর জন্য আপনারা অবিরাম চেষ্টা চালিয়ে যান।

যে কোন সফলতা শুরু হয় চেষ্টা দিয়ে। এই বিষয়ে একবার চন্দ্রগুপ্ত চাণক্যকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, “ভাগ্য যদি আগেই লেখা হয়ে থাকে, তবে চেষ্টা করে কী পাবে?” এতে চাণক্য উত্তর দিয়েছিলেন, “ভাগ্যে লেখা আছে কিনা কে জানে, তবে চেষ্টা করলে অবশ্যই পাবে। তাই আমরাও বলে থাকি, সফল যদি হতে চাও তাহলে চেষ্টা করতে হবে।

প্রায়শই যে কোনও কাজ শুরু করার আগে লোকেরা তার সুবিধা, অসুবিধা, ফলাফল ইত্যাদি সম্পর্কে চিন্তা করা শুরু করে এবং যখন তারা তা করে তখন আমরা এক ধাপ এগিয়ে যাওয়ার আগেই নিজেদেরকে পিছনে ঠেলে দিই।

আপনি যদি কাজ করতে যান, আপনি অবশ্যই অনুভব করবেন যে আপনি এটি করতে পারবেন না বা এটি করা আপনার ক্ষমতার মধ্যে নেই এবং আপনি যখন লোকেদের সামনে এটি নিয়ে আলোচনা করেন তখন লোকেরা আপনাকে ঠাট্টা করতে শুরু করে।

এটিও জেনে নিন -  এলাচের উপকারিতা ও অপকারিতা

এসব উপেক্ষা করে আমাদের গন্তব্যের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। সেজন্য সকল ছাত্র-ছাত্রীদেরও তাদের জীবনের একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করা উচিত এবং তাদের পড়াশুনার ব্যাপারে আন্তরিক হওয়া উচিত।

তবেই তারা তাদের জীবনে সফলতা পেতে পারে। যে শিক্ষার্থীরা সারা বছর কঠোর পরিশ্রম, নিষ্ঠা ও সততার সাথে পড়াশোনা করে। তারাই ক্লাসের শীর্ষে থাকে।

অন্যদিকে, যেসব শিক্ষার্থী পড়ালেখা করতে ভয় পায় বা মনে করে যে তারা ব্যর্থ হবে এবং তাই তারা কঠোর পরিশ্রম করে না, তাদের এমন চিন্তা করা একেবারেই ভুল; কারণ যেকোনো কাজ করতে শ্রম ও বিশ্বাস লাগে।

সেজন্য সকল শিক্ষার্থীর উচিত একটি লক্ষ্য তৈরি করা এবং তা অর্জন না করা পর্যন্ত থেমে না গিয়ে তা অর্জনের চেষ্টা করা।

প্রতিটি মানুষের ভিতরে ইতিবাচক শক্তি ভরে থাকে, যেমন কোল্ড ড্রিঙ্কের বোতলের ভিতর কোল্ড ড্রিঙ্ক ভর্তি থাকে, কিন্তু ঢাকনা না খোলা পর্যন্ত তা বের হতে পারে না।

একইভাবে, আপনি ততক্ষণ পর্যন্ত সফল হতে পারবেন না যতক্ষণ না আপনি আপনার ভেতরের শক্তিকে বের হতে দেবেন না।

কোন কিছু করার আগে এই ভয়টা থাকে যে মানুষ কি বলবে আমরা সফল হবো কি না। যদি একজন মানুষ সফল ও অসফল হওয়ার ভয় দূর করে তাহলে তাকে এগিয়ে চলা থেকে কেউ আটকাতে পারবে না।

ব্যর্থতা ছাড়া সাফল্যের গল্প অসম্পূর্ণ।যেকোনো মহান ব্যক্তির সাফল্যের যাত্রা দেখুন, ব্যর্থতা ছাড়া কেউ এগিয়ে যায়নি। এ কারণেই এমনটা বলা হয়

“ব্যর্থতা সাফল্য থেকে আলাদা নয়, ব্যর্থতা সাফল্যের যাত্রার অংশ”

সেজন্য আমাদের উচিত পরিণতি যাই হোক না কেন আমাদের কাজ করে যাওয়া এবং আমাদের লক্ষ্যকে দৃঢ় রাখা। শেষ পর্যন্ত, সাফল্য অর্জিত হবেই।

এই কথাগুলো দিয়ে আমি আমার বক্তব্য শেষ করছি।

ছাত্রদের জন্য মোটিভেশনাল কথা

যদি আপনি কোনো স্কুল বা কলেজে বক্তৃতা দিতে চান তাহলে এই script টি মনে রাখুন।

এটিও জেনে নিন -  কম্পিউটার ভাইরাস কি | ভাইরাস কাকে বলে | ভাইরাসের নাম

সকল সম্মানিত অতিথি, সম্মানিত শিক্ষক এবং আমার প্রিয় বন্ধুদের শুভেচ্ছা।

আপনারা সবাই আমাকে এই বিশেষ কারণের জন্য একটি অনুপ্রেরণামূলক বক্তৃতা দেওয়ার সুযোগ দিয়েছেন, এজন্য আমি আপনাদের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

আপনি যে ক্ষেত্রে আপনার ক্যারিয়ার গড়তে চান সেই ক্ষেত্রে আপনার 100% প্রচেষ্টা করা উচিত। একটা কাজ শুরু না হওয়া পর্যন্ত অসম্ভব মনে হয়, বন্ধু মনে রেখো, সংগ্রামের পথে একাই হাঁটতে হবে, সফলতা পাওয়ার পর অনেক সঙ্গী পাওয়া যায়।

বন্ধুরা, সাফল্যের পথে আমাদের অনেক বাধার সম্মুখীন হতে হতে পারে, কিন্তু এই সব ভয়ে থেমে যাবেন না।

অর্জুনের মতো লক্ষ্যের দিকে চোখ রাখুন। মানে আমাদের লক্ষ্য ছাড়া আর কিছু দেখা উচিত নয়। অনেকে আপনাকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করবে কিন্তু আমাদের তাদের সব ভুলে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে।

জল বরফে পরিণত হতে সময় লাগে, সূর্য উঠতে সময় লাগে।

একটু ধৈর্য ধরো, ভাগ্যের মরিচা দরজা খুলতে একটু সময় লাগে।

এই মুহুর্তে, আমাদের সকলের উচিত আমরা যে কাজটি করি তার প্রতি সৎ হওয়া এবং সত্যিকারের সংকল্প নিয়ে এগিয়ে যাওয়া, তবেই আমরা আমাদের জীবনে সফল হতে পারব এবং সাফল্যের নতুন উচ্চতা অর্জন করতে পারব।

আপনার গন্তব্যে না পৌঁছানো পর্যন্ত লড়াই বন্ধ করবেন না, এটিই আপনাকে অনন্য করে তোলে। তাই জীবনে একটি লক্ষ্য রাখুন, ক্রমাগত জ্ঞান অর্জন করুন, কঠোর পরিশ্রম করুন এবং মহান জীবন অর্জনের জন্য অধ্যবসায় করুন।

উপসংহার

বন্ধুরা, আমাদের আজকের এই বক্তৃতাটি (Motivational speech in Bengali) যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তবে এটিকে আরও শেয়ার করুন। আমাদের আজকের পোস্টের উদ্দেশ্য ছিল জীবনে ব্যর্থতায় হতাশ হওয়া নয় কারণ ব্যর্থতা একটি চ্যালেঞ্জ, যা আমাদের শেখায় সফল হওয়া এত সহজ নয়। এর জন্য কঠোর পরিশ্রম লাগে। এবং আপনি যখন কঠোর পরিশ্রম করবেন, সাফল্য আপনার পা ছুঁয়ে যাবেই।

এটিও জেনে নিন -  শাস্তি বিপরীত শব্দ | sasti biporit shobdo
Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment