স্টোরেজ ডিভাইস কাকে বলে ও উদাহরণ

কম্পিউটারের মধ্যে যে সকল কাজ গুলি করা হয়, সেগুলিকে ভবিষ্যতের প্রয়োজনে স্টোর করা বা জমা রাখার দরকার পড়ে। যদি কোন কাজের ডাটা বা ইনফরমেশন কম্পিউটারের মধ্যে সঞ্চয় করে না রাখা যায় তাহলে কম্পিউটারের কাজ করাই বৃথা হয়ে দাঁড়াবে।

এই জন্য কম্পিউটারের মধ্যে বিভিন্ন প্রকারের স্টোরেজ ডিভাইস ইনস্টল করা হয়ে থাকে। যেটি হল কম্পিউটারের একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ হার্ডওয়ার।

যদি আপনি স্টোরেজ ডিভাইস সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনাকে সাহায্য করবে। যেখান থেকে আপনি স্টোরেজ ডিভাইস কি বা কাকে বলে, এর উদাহরণ এবং স্টোরেজ ডিভাইস কয় প্রকার ও কি কি – এই সমস্ত বিষয়ে ইনফরমেশন পাবেন। তাই দেরি না করে আর্টিকেলটি পড়ে নিন।

স্টোরেজ ডিভাইস কি?

স্টোরেজ ডিভাইস হলো কম্পিউটারের এমন একটি হার্ডওয়ার যেখানে কম্পিউটারের সমস্ত ডাটা ও ইনফর্মেশন গুলি short-term এবং long-term এর জন্য সুরক্ষিত ভাবে save করা থাকে। এবং এখানে সমস্ত ইনফরমেশন গুলি digitally store করা হয়।

স্টোরেজ ডিভাইস কম্পিউটারের একটি গুরুত্বপূর্ণ হার্ডওয়ার। এটি আলাদা আলাদা কম্পিউটারের জন্য বিভিন্ন আকার এবং প্রকারের হয়ে থাকে।

স্টোরেজ ডিভাইস কাকে বলে?

কম্পিউটারের যে ডিভাইসের মধ্যে, কম্পিউটারের সমস্ত ইনফরমেশন এবং ডাটাগুলি জরুরী প্রয়োজনের জন্য termporarily বা digitally store স্টোর করে থাকে, তাকেই স্টোরেজ ডিভাইস বলে।

স্টোরেজ ডিভাইসের উদাহরণ

স্টোরেজ ডিভাইস এর উদাহরণ হল RAM, ROM, Hard Disk, Magnetic Tape, Memory card, USB Flash drive ইত্যাদি।

স্টোরেজ ডিভাইস কত প্রকার ও কি কি?

স্টোরেজ ডিভাইস চার প্রকারের হয়ে থাকে। এগুলি হলো –

  1. Primary Storage Device
  2. Secondary Storage Device
  3. Tertiary Storage Device
  4. Off-line Storage Device

1. Primary Storage Device

এটি হলো কম্পিউটার এর main memory বা direct memory। যেটি Central Processing Unit এর দ্বারা সরাসরি accessible হয়।

তবে এই ধরনের মেমোরি ডাটা গুলি temporary স্টোর করে থাকে। নির্দিষ্ট কম্পিউটার switch off বা reboot করলে, এই ধরনের স্টোরেজ ডিভাইস এর সমস্ত ডাটা মুছে যায়।

RAM, ROM এবং Cache হলো এর উদাহরণ।

2. Secondary Storage Device

এই ধরনের স্টোরেজ ডিভাইস Central Processing Unit এর দ্বারা সরাসরি accessible হয় না।

এই ধরনের স্টোরেজ ডিভাইস কম্পিউটারের সাথে কানেক্ট করার জন্য ইনপুট এবং আউটপুট চ্যানেলের এর প্রয়োজন পড়ে। প্রাইমারি স্টোরেজ ডিভাইসের তুলনায় এর storage capacity অনেক বেশি হয়।

এবং যতক্ষণ না পর্যন্ত external factor এর সাহায্যে ডাটাকে ডিলিট করা হচ্ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত স্থায়ী ভাবে কম্পিউটারের মধ্যে ডেটা গুলি store থাকে।

Hard Disk হলো এর উদাহরণ।

3. Tertiary Storage Device

এই প্রকার স্টোরেজ ডিভাইস robotic functions এর মাধ্যমে কাজ করে। এই ধরনের স্টোরেজ ডিভাইস এ ইউজারকে বারবার হস্তক্ষেপ করার প্রয়োজন পড়ে না। কারণ এই ধরনের স্টোরেজ ডিভাইস অটোমেটিক কাজ করতে সক্ষম।

বিভিন্ন ডাটাকে archive করার জন্য এই ধরনের স্টোরেজ ব্যবহার করা হয়।

Magnetic Tape, Optical Disc হলো এর উদাহরণ।

4. Off-line Storage Device

এই ধরনের স্টোরেজ ডিভাইস কে disconnected বা removable storage ও বলা হয়ে থাকে। এটি এমন একটি computer data storage যেটি processing unit এর কন্ট্রোলের মধ্যে আসেনা।

এটি কোন ইউজার দ্বারা কম্পিউটারের মধ্যে কানেক্ট করা হয় এবং কাজ শেষ হলে, পুনরায় ডিসকানেক্ট করা হয়।

Floppy Disk, Memory card, USB Flash drive হলো এর উদাহরণ।

উপসংহার

আশা করি আজকের এই ইনফরমেশন থেকে স্টোরেজ ডিভাইস কি, এর উদাহরণ এবং স্টোরেজ ডিভাইস কয় প্রকার ও কি কি এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। যদি এই আর্টিকেলটি সম্পর্কে এখনও, আপনার কোন কিছু জানার থাকে তাহলে আপনি কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন।

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment