লক্ষ্য কি | লক্ষ্য কি পরিকল্পনা | জীবনের লক্ষ্য কি হওয়া উচিত

প্রত্যেকের জীবনে কিছু না কিছু লক্ষ্য থাকে। কারোর শিক্ষক হতে ইচ্ছে হয় আবার কারও ডাক্তার। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে লক্ষ্য জিনিসটি কি বা লক্ষ্য কাকে বলে এই সম্পর্কে অনেকেই বিস্তারিত জানেন না।

এই জন্য আজকের এই আর্টিকেল থেকে আমরা লক্ষ্য সম্পর্কে আলোচনা করব। যা আপনাকে আপনার লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে।

আজকের এই আলোচনার মাধ্যমে আপনি লক্ষ্য কি, লক্ষ্য কি পরিকল্পনা, জীবনের লক্ষ্য কি হওয়া উচিত, লক্ষ্য কাকে বলে – এই সকল প্রশ্নের উত্তর পাবেন। আশা করছি আজকের আর্টিকেলটি আপনার ভালো লাগবে তাই দেরি না করে পড়তে থাকুন।

লক্ষ্য কি?

লক্ষ্য হল একটি উদ্দেশ্য বা টার্গেট যেখানে একজন ব্যক্তি পৌঁছানোর চেষ্টা করছে।

একটি লক্ষ্য বা goal হল একটি উদ্দেশ্য যার জন্য ব্যাক্তি প্রচেষ্টা এবং সংকল্পের সাথে কাজ করে।

একজন ব্যক্তি ভবিষ্যতে নিজেকে কোন জায়গায় দেখতে চায়, সেই উদ্দেশ্যে বিভিন্ন মানুষ বিভিন্ন লক্ষ্য তৈরি করে।

লক্ষ্য কয় প্রকার ও কি কি?

সময়ের ভিত্তিতে লক্ষ্য চার প্রকার। সেগুলি হল –

১. লাইফটাইম গোল

লাইফটাইম লক্ষ্যগুলি হল সেই লক্ষ্যগুলি যেগুলি অর্জন করতে এক বছর থেকে পুরো জীবনকাল পর্যন্ত সময় লাগে।

২. দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্য

এগুলি আপনার দীর্ঘমেয়াদী এচিভমেন্ট এর জন্য তৈরি করা লক্ষ্য। এদের নির্দিষ্ট সময় সীমা থাকা দরকার 5 বা 10 বছরের।

৩. স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্য

স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্য এক মাস, ছয় মাস বা এক বছর হতে পারে। দীর্ঘমেয়াদী বা আজীবন লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য স্বল্প মেয়াদী লক্ষ্য এর প্রয়োজন হয়। দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য গত এক মাস পর ছয় মাসে কি করা দরকার সেটি স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্যের অন্তরে পড়ে।

৪. স্টেপিং স্টোন গোল

এই ধরনের লক্ষ্য গুলিকে কর্ম পদক্ষেপ হিসাবে ভাবা হয়, যা আপনাকে বড় লক্ষ্যগুলিতে পৌঁছানোর অনুমতি দেয়।

এগুলি হল সেই ইট, যা স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্যগুলি তৈরি করতে সাহায্য করে। স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য যে ছোট ছোট লক্ষ্যগুলি তৈরি করতে হয় সেগুলি হল স্টেপিং স্টোন গোল বা লক্ষ্য।

লক্ষ্য কাকে বলে?

যে, বর্ণিত নীতিমালা, একটি প্রতিষ্ঠান বা একজন ব্যক্তি অর্জন করার চেষ্টা করে, তাকে লক্ষ্য বলে।

সোজা ভাবে বলতে গেলে,

একাধিক উদ্দেশ্য থাকা জিনিস, যেগুলো মোটামুটি একটি নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে অর্জন করতে হবে তাকে লক্ষ্য বলা হয়।

লক্ষ্য কি পরিকল্পনা?

লক্ষ্য পরিকল্পনা নয়। লক্ষ্য হলো যে পর্যায়ে আপনি পৌঁছাতে চান। আর পরিকল্পনা হচ্ছে সেই পর্যায়ে আপনি কি করলে পৌঁছাতে পারবেন সেটা।

যেমন আপনি শিক্ষক হতে চান এটা লক্ষ্য। কিন্তু শিক্ষক হবার জন্য আপনাকে কিভাবে পড়াশোনা করতে হবে এটা হচ্ছে পরিকল্পনা।

লক্ষ্য হল আপনার গোল এবং পরিকল্পনা আপনাকে আপনার লক্ষ্যে বা গোলে পৌঁছে নিয়ে যাবে।

কিভাবে লক্ষ্য নির্ধারণ করব?

প্রথমে একটি বাস্তব ও সময়ভিত্তিক লক্ষ্য নির্ধারণ করুন। এরপর মূল লক্ষ্যকে ভেঙে ছোট ছোট লক্ষ্যে বিভক্ত করুন এবং সেগুলো অর্জনের জন্য নির্দিষ্ট সময়সীমা নির্ধারণ করুন।

এবং ধাপে ধাপে ছোট ছোট লক্ষ্যকে পার করে, আপনার মূল লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যান।

যদি আপনি বড় হয়ে শিক্ষক হতে চান তাহলে শিক্ষককে আপনার দীর্ঘমেয়াদি লক্ষ্য তৈরি করুন। এবং শিক্ষক হওয়ার জন্য যে পড়াশোনা এবং যোগ্যতার প্রয়োজন সেটিকে আপনি, স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্য তৈরি করে ধীরে ধীরে এগিয়ে নিয়ে যান।

কিভাবে লক্ষ্য অর্জন সহজতর হয়?

প্রথমে আপনি নিজে সিদ্ধান্ত নিন আপনি কি করবেন বা কি করতে চান।

এরপর, আপনার দীর্ঘমেয়াদি লক্ষ্য কে ভেদ করার জন্য স্বল্প মেয়াদী লক্ষ্য তৈরি করে, সেগুলোর ওপর দিয়ে হেঁটে যান এবং একটি একটি করে ছোট ছোট লক্ষ্য গুলি ভেদ করার চেষ্টা করুন।

সাফল্য অর্জন করতে হলে অবশ্যই আপনাকে ধৈর্য ধরতে হবে এবং কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। এর জন্য প্রস্তুত থাকুন।

জীবনের লক্ষ্য কি হওয়া উচিত?

জীবনের মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত খুশি থাকা। তুমি যা কিছু করবে খেয়াল রেখো তাতে যেন তোমার সম্মতি থাকে।

এরপর আপনি অর্থ উপার্জনের জন্য আপনার ভালো লাগে এমন কিছু কাজ খুঁজে নিয়ে সেটিকে লক্ষ্য তৈরি করুন।

জীবনের লক্ষ্য কিভাবে ঠিক করব?

যদি আপনার মনেও এই প্রশ্নটি থাকে তাহলে প্রথমে নিজেকে জিজ্ঞেস করুন আপনার কি করতে ভালো লাগে।

কারো শেখাতে ভালো লাগে, কাউকে পুলিশ হবার ইচ্ছা করে, আবার কাউকে সৈনিক হতে ভালো লাগে।

আপনার কি ভালো লাগে সেটা প্রথমে খুঁজে বের করুন। এবং সেটা যদি আপনি হয়ে যান তখন আপনার অনুভূতি কেমন হবে এটা কল্পনা করুন।

যদি আপনি কল্পনায় খুশি হন, তাহলে সেটিকেই আপনার জীবনের লক্ষ্য তৈরি করুন। এবং ধাপে ধাপে আপনার লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যেতে থাকুন।

উপসংহার

আশা করছি আজকের এই আর্টিকেল থেকে আপনি লক্ষ্য সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন। এবং আপনার মন থেকে লক্ষ্য কি, জীবনের লক্ষ্য কিভাবে ঠিক করব, জীবনের লক্ষ্য কি হওয়া উচিত – এই সকল প্রশ্ন দূর হয়ে গেছে। যদি আর্টিকেলটি আপনার ভাল লাগে তাহলে কমেন্ট করে আমাদের অবশ্যই জানাবেন। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন।

শেয়ার করতে চান!

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment