৮ টি মাঝারি ব্যাবসা আইডিয়া জেনে নিয়ে ব্যাবসা করুন

মাঝারি ব্যাবসা আইডিয়া – অনেক ব্যক্তি জীবন নির্বাহের জন্য কাজ (Service) করতে পছন্দ করেন আবার অনেকে মাঝারি ব্যবসা করতে ভালোবাসেন। কোন মাঝারি ব্যবসার ক্ষেত্রে খুব বেশি হয় না আবার খুব কম হয় না এই জন্য এই ধরনের ব্যবসা অল্প লাভের পক্ষে খুবই ভালো একটি ইনকাম সোর্স।

যদি আপনি ও ব্যবসা করতে ভালোবাসেন এবং মাঝারি ব্যবসা আইডিয়া নিতে চান, তাহলে আজকে রাতে গেলে আমি সাতটি মাঝারি ব্যবসা সম্পর্কে আপনাদের জানাবো। যার থেকে আপনারা বুঝতে পারবেন আপনার পক্ষে কোন ব্যবসা টি শুরু করা সহজ হবে। তাই চলুন দেরী না করে মাঝারি ব্যবসা আইডিয়া গুলি দেখে নিই।

৮ টি মাঝারি ব্যাবসা আইডিয়া

এখানে যে সকল মাঝারি ব্যবসা আইডিয়া গুলো দেওয়া হল এখান থেকে আপনি যেকোনো একটি বেছে নিয়ে, নিজস্ব ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

১. উপহারের দোকান

আজকাল উৎসব ও ব্যক্তিগত অনুষ্ঠান সর্বদা লেগেই থাকে। এইজন্য অনুষ্ঠানে যাওয়ার সময়, উপহার অবশ্যই নিয়ে যেতে হয়। যার চাহিদা সর্বদা কমবেশি লেগেই থাকে। এইজন্য যদি আপনি একটি উপহারের দোকান তৈরি করতে পারেন এবং সেখানে নিত্য নতুন উপহার সাজিয়ে রাখতে পারেন, তাহলে আপনার দোকানটিও মাঝারি ব্যবসার অন্তর্গত হবে।

যদি আপনার গ্রামে বা শহরে ভালো ব্যবহারের দোকান না থাকে তাহলে আপনি এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। যেখানে অল্প দিনে আপনি ভালো পরিমাণ লাভ এবং সফলতার, মুখ দেখতে পাবেন।

আজকাল অনলাইনে যে সমস্ত ব্যবহার গুলো কিনতে পাওয়া যায় সেগুলো বেশিরভাগ সাধারণ উপহারের দোকানে পাওয়া যায় না। তাই আপনি যদি সেই সমস্ত ইউনিক প্রোডাক্ট গুলি আপনার দোকানে নিয়ে আসতে পারেন তাহলে আপনার কাস্টমারের অভাব হবে না।

২. খেলার সরঞ্জাম

অনেক গ্রামে বা শহরে খেলার মাঠ থাকলেও কখনো কখনো খেলার সরঞ্জামগুলি কাছাকাছি পাওয়া যায় না। এইজন্য হঠাৎ করে কোন জিনিস দরকার পড়লে সেগুলি কেনার অপেক্ষায় খেলাটি বন্ধ করে দিতে হয়।

তাই আপনি যদি আপনার গ্রামের খেলার মাঠের পাশে একটি খেলার সরঞ্জামের দোকান করতে পারেন, আপনার থেকে লাভবান ব্যক্তি আর কেউ হবে না।

যখনই কোন খেলোয়াড়ের কোন জিনিসের দরকার হবে আপনার দোকান থেকে খুব সহজেই সেই জিনিসটি পেয়ে যাবে।

এর সাথে সাথে আপনি বিভিন্ন ইন্টারন্যাশনাল এবং ন্যাশনাল দলের জার্সি, আপনার দোকানে রাখতে পারেন। কোন কোন খেলোয়ার সেই জার্সি এবং খেলার সরঞ্জাম এই দুই প্রকারের জিনিসই আপনার দোকান থেকে অবশ্যই নিয়ে যাবে।

আপনি যদি অল্প পুঁজিতে ব্যবসা শুরু করতে চান তাহলে এই মাঝারি ব্যবসাটি আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

৩. মোবাইল মেরামতি

আজকের মোবাইল প্রায় সবার হাতেই আছে। কিন্তু ভালো মোবাইল সার্ভিস না হওয়ার কারণে, খারাপ মোবাইল গুলি আর ব্যবহার করা হয়না। তাই আপনি যদি আপনার গ্রামে বা শহরে একটি মোবাইল মেরামত করার দোকান থেকে করতে পারেন তাহলে আপনি অধিক লাভ করতে পারবেন।

এবং সেই দোকানে মোবাইল মেরামত করার লোক লাগিয়ে, আপনার দোকান থেকে পরবর্তীকালে বড় করতে পারবেন।

আপনি যদি নিজে মোবাইল মেরামত করতে না জানেন তাহলে, একটি মোবাইল মেমোরি করার দোকান বানিয়ে সেখানে একটি মোবাইল মেরামত করার ছেলে লাগিয়ে দিতে পারেন। যদি আপনি একবার ভালোভাবে আপনার দোকানটি চালাতে পারেন তাহলে আপনি সর্বদা এর থেকে ভালো পরিমাণ অর্থ আয় করতে পারবেন।

৪. লাইব্রেরী ব্যাবসা

অনেক মানুষ বই পড়তে ভালোবাসে। কিন্তু সর্বদা সব ধরনের বই কিনে পড়া সম্ভব নয়। তাই আপনি যদি এই সমস্যা দূর করতে আপনার গ্রামে বা শহরে একটি লাইব্রেরী তৈরি করতে পারেন তাহলে, সেখানে থাকা বইয়ের ভিত্তিতে আপনি ভালো পরিমাণ অর্থ আয় করতে পারবেন।

আপনি একটি লাইব্রেরী বানিয়ে সেখানে সব ধরনের বই রাখতে পারেন, এবং কিছুদিন চলার পর কাস্টমারদের আগ্রহের উপর ভিত্তি করে অধিক পরিমাণে বই সঞ্চয় করে রাখতে পারেন। এবং তাদের প্রত্যেকের একাউন্ট বানিয়ে মাসিক আয় উপার্জন করতে পারেন। মাঝারি ব্যবসার মধ্যে এটি হলো একটি অন্যতম ব্যবসা।

৫. ডক্টর চেম্বার

মানুষের রোগ সর্বদা লেগেই থাকে। কিন্তু কখনো কখনো ভালো ভালো ডাক্তারের সাহায্য না পাওয়ার কারণে, অনেক মানুষ হতাশায় ভোগে। তাই আপনি যদি এই সমস্যা দূর করতে পারেন তাহলে আপনিও মানুষের মধ্যে জায়গা করে নিতে পারবেন এবং এর সাথে সাথে আপনার ব্যবসাও শুরু করতে পারবেন।

যদি আপনার গ্রামে ভালো ডাক্তার না থাকে তাহলে আপনি একটি চেম্বার বানিয়ে সেখানে বিভিন্ন ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করে তাদের আপনার চেম্বারে জায়গা দিতে পারেন। এবং এর পরিবর্তে বিভিন্ন ডক্টরের থেকে মাসিক ভাড়া নিতে পারেন।

অনেক ডাক্তার আছে যারা ভালো চেম্বার বা জায়গা না খুঁজে পাওয়ার কারণে বাড়িতে বসে চিকিৎসা করে। আপনি এই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে, মাঝারি ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

৬. কোচিং সেন্টার

গ্রামের অনেক জায়গায় ছেলেমেয়েরা ভালো কোচিং সেন্টার খুঁজে না পাওয়ার কারণে শহরে চলে যায়। যদি আপনি আপনার গ্রামে একটি ভালো কোচিং সেন্টার খুলতে পারেন তাহলে আপনি, ছাত্র-ছাত্রীদের সাহায্য করার পাশাপাশি আপনার মাঝারি ব্যবসার সূচনা করতে পারবেন।

কোচিং সেন্টার খোলার জন্য আপনি, শিক্ষক এবং শিক্ষিকা দের সাথে যোগাযোগ করে, আপনার কোচিং সেন্টারে তাদের নিয়োগ করতে পারেন। এবং প্রত্যেকটি বিষয়ে একটি বা দুটি করে টিচার্স নিয়োগ করার পর, ছাত্রদের ইনফর্ম করে তাদের কোচিং সেন্টারে নিয়োগ করুন।

৭. ক্যাটারিং ব্যাবসা

আজকাল বেশিরভাগ বাড়িতে অনুষ্ঠান লেগেই থাকে। এবং এইসব অনুষ্ঠানের জন্য ক্যাটারিং সার্ভিস খুবই জরুরি।

আপনি যদি আজকের দিনে একটি ভালো ক্যাটারিং সার্ভিস তৈরি করে মানুষকে ভালো সার্ভিস দিতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসা দাঁড়িয়ে যাবে।

আপনি রান্না করা থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্টল এবং পরিবেশনের সমস্ত দায়িত্ব নিজে নিয়ে, কোন অনুষ্ঠানকে সম্পূর্ণ করতে পারেন।

আপনি ক্যাটারিং ব্যবসাটিকে এমন ভাবে সাজিয়ে নিন যাতে, আপনার কাছে সমস্ত খাওয়া দাওয়ার দায়িত্ব দেওয়ার পর, ওই অনুষ্ঠান বাড়িটি নিশ্চিহ্ন হতে পারে।

যদি আপনি খাওয়া-দাওয়ার সমস্ত সার্ভিস নিজের ক্যাটারিং এ যুক্ত করতে পারেন, তাহলে আপনি অধিক পরিমাণ লাভ করতে পারবেন।

৮. জমির সার ব্যাবসা

অনেক সময় অনেক চাষি তাদের জমির জন্য প্রয়োজনীয় সার অনেক সময় পায়না। এইজন্য যদি আপনি একটি সারের দোকান খুলে সেখানে প্রয়োজনীয় সব ধরনের সার, তুলে রাখতে পারেন তাহলে আপনি ভালো পরিমাণ আয় করতে পারবেন।

প্রত্যেকটি ঋতুতে যে সমস্ত ফসল হয়, সেই ফসল অনুযায়ী আপনি সমস্ত প্রকারের সার, আপনার দোকানে স্টোর রাখতে পারেন। যেখান থেকে কোনো কৃষক, খুব সহজেই তার জমির জন্য সার কিনতে পারে। জমির সার হলো, মাঝারি ব্যবসার মধ্যে অন্যতম একটি ব্যবসা। যদি আপনি এই ব্যবসা একবার শুরু করতে পারেন, তাহলে আপনাকে পিছনে ফিরে তাকাতে হবে না।

মাঝারি ব্যাবসা শুরু করতে কত টাকা লাগে?

যদি আপনি মাঝারি ব্যবসা শুরু করতে চান তাহলে আপনাকে 10 হাজার থেকে 1 লক্ষ টাকা পর্যন্ত পুঁজি নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে হবে। যদি আপনি ক্যাটারিং, টিউশন সেন্টার, ডক্টর চেম্বার এর মত ব্যবসা গুলো শুরু করেন তাহলে আপনাকে 10000 থেকে 30 হাজার টাকা লাগাতে হবে। অন্যথায় কোন দোকান শুরু করে, মালপত্র তুলবার জন্য 40 হাজারের উপর টাকা খরচ করতে হবে।

মাঝারি ব্যাবসা কেনো শুরু করবেন?

যদি আপনি খুব বেশি রিক্স না নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে চান তাহলে মাঝারি ব্যবসা আপনার পক্ষে ভালো হবে। আর বড় ব্যবসার থেকে মাঝারি ব্যবসা থেকে অল্প পুঁজি নিয়ে ব্যবসা শুরু করা যায়। আর এই সমস্ত মাঝারি ব্যবসা আপনি যেকোনো জায়গায় খুব সহজেই শুরু করতে পারবেন। যদি আপনি অল্প পুঁজি এবং অল্প রিক্স এ ব্যবসা শুরু করতে চান, তাহলে আপনি মাঝারি ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

উপসংহার

আশাকরি উপরের ইনফর্মেশন থেকে মাঝারি ব্যবসার আইডিয়া খুঁজে পেয়েছেন। যদি আপনি মাঝারি ব্যবসা শুরু করতে চান তাহলে উপরের দেওয়া ইনফর্মেশন থেকে যে কোন একটি ব্যবসা বেছে নিয়ে শুরু করতে পারেন। অন্যথায় নিজের পছন্দমত ভেবেচিন্তে যেকোনো ধরনের মাঝারি ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

আরও পড়ুন

শেয়ার করতে চান!
  •  
  •  
  •  
  •  

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment