মাইক্রোসফট অফিস কি | Microsoft office এর কাজ

১০০ জন কম্পিউটার ব্যবহারকারীর মধ্যে ৯৯ জন ব্যবহারকারী মাইক্রোসফট অফিস সফটওয়্যার নিয়ে কাজ অবশ্যই করে থাকবেন। তবে microsoft অফিস সম্পর্কে অনেক ব্যক্তি অনেক কিছু জানেন না। তাই বলে রাখি, এটি হলো খুবই জনপ্রিয় একটি সফটওয়্যার যেটি মাইক্রোসফট কর্পোরেশন দ্বারা ডেভলপ করা হয়েছে।

আজকের এই আর্টিকেল থেকে আমরা মাইক্রোসফট অফিস সম্পর্কে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর জানব। যেমন মাইক্রোসফট অফিস কি, Microsoft office এর কাজ কি, মাইক্রোসফট অফিস ব্যবহার করার সুবিধা ইত্যাদি। যদি আপনিও মাইক্রোসফট অফিস সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আগ্রহী হন তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি পড়তে পারেন।

মাইক্রোসফট অফিস কি?

মাইক্রোসফট অফিসার মাইক্রোসফট কর্পোরেশনের দ্বারা তৈরি একটি অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার। মাইক্রোসফট অফিস একটি প্যাকেজ যার মধ্যে বিভিন্ন ধরনের অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার রয়েছে। এবং এই সকল অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার গুলির সাহায্যে বিভিন্ন ধরনের অফিশিয়াল কাজ কম্পিউটারের মাধ্যমে করা হয়ে থাকে।

মাইক্রোসফট অফিসের ব্যবহার পার্সোনাল কম্পিউটার থেকে শুরু করে বিভিন্ন বড় বড় অর্গানাইজেশন পর্যন্ত করে থাকে।

Microsoft অফিসের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের ডকুমেন্টস তৈরি, স্প্রেডশিট তৈরি করা, ডাটাবেজ ম্যানেজ করা এবং বিভিন্ন ধরনের প্রেজেন্টেশন তৈরি করা যায়।

এম এস অফিসের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের কম্পোনেন্ট থাকে। যার অর্থ হলো আলাদা আলাদা ধরনের সফটওয়্যার দ্বারা এম এস অফিস প্যাকেজ তৈরি করা হয়েছে। আমরা এখানে এমএস অফিসের বিভিন্ন কম্পনেন্ট গুলি সম্পর্কে জেনে নেব।

Microsoft Office এর বিভিন্ন component

বর্তমান দিনের মাইক্রোসফট অফিস প্রোগ্রামটির মধ্যে সাতটি কম্পনেন্ট রয়েছে। এই কম্পনেন্ট গুলি সম্পর্কে নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

এটিও জেনে নিন -  CSS কি - এর কাজ ও কিভাবে শিখবেন?

Microsoft word

এটি হলো এক ধরনের ওয়ার্ড প্রসেসিং প্রোগ্রাম। যার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের ডকুমেন্টস তৈরি করা যায়। মাইক্রোসফট ওয়ার্ড এর মধ্যে বিভিন্ন ধরনের আলাদা আলাদা ফিচার রয়েছে। যার কারণে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড দ্বারা কোন ডকুমেন্টস খুব সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলা যায়।

Microsoft Excel

বিভিন্ন ধরনের স্প্রেডশিট প্রোগ্রাম তৈরি করার জন্য মাইক্রোসফট এক্সেল কাজে লাগে। বিভিন্ন অর্গানাইজেশন মাইক্রোসফট এক্সেল এর মধ্যে চার্ট তৈরি, গ্রাফ তৈরি, ফরমেটিং এবং জটিল ক্যালকুলেশনগুলি করে থাকে।

Microsoft PowerPoint

কম্পিউটারের মাধ্যমে প্রেজেন্টেশন তৈরি করার জন্য মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট খুবই জনপ্রিয়। বিভিন্ন অফিস, স্কুল কলেজ এবং কোম্পানির প্রেজেন্টেশনগুলি তৈরি করার জন্য মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট কাজে লাগে। কারণ মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট ব্যবহার করে যে কোন প্রেজেন্টেশন খুব সহজে তৈরি করা যায়।

Microsoft Access

এটি হলো এক প্রকারের ডাটাবেজ ম্যানেজমেন্ট প্রোগ্রাম। বিভিন্ন ধরনের ডাটাকে ম্যানেজ করার জন্য এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করা হয়। মাইক্রোসফট এক্সেস ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরনের Form, Table, Report তৈরি করা যায়।

Microsoft Outlook

এটি হলো মাইক্রোসফট এর দ্বারা তৈরি এক ধরনের ইমেল ম্যানেজমেন্ট প্রোগ্রাম। Microsoft আউটলুক ইমেইল বক্স এর মত কাজ করে।

Microsoft Publisher

ডেক্সটপ পাবলিশিং এর মত কাজ গুলি করার জন্য Microsoft publisher অন্যতম একটি প্রোগ্রাম। এই প্রোগ্রামটি ব্যবহার করে Template, Business Card, Calendar, Brochure, Newsletter এর মতো জিনিসগুলি তৈরি করা যায়।

Microsoft One Note

ডিজিটাল কোনো নোট লেখার জন্য এই প্রোগ্রামটি অন্যতম। এটিকে সোজা কথায় ডিজিটাল নোটবুক বলা হয়ে থাকে। এরমধ্যে কোন নোট লেখার সাথে সাথে অটোমেটিক্যালি সেভ এবং Synchronize হতে থাকে।

Microsoft office এর কাজ কি?

Microsoft অফিস হলো এক ধরনের সফটওয়্যার যার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের প্রোগ্রাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এই সকল প্রোগ্রামগুলি দ্বারা বিভিন্ন অফিসিয়াল কাজ করা হয়ে থাকে। আলাদা আলাদা জায়গায় আলাদা আলাদা কাজ করার জন্য বিভিন্ন ধরনের প্রোগ্রাম ব্যবহার হয়ে থাকে।

এটিও জেনে নিন -  কম্পিউটার জেনারেশন কি | সকল প্রজন্মের কম্পিউটারের বৈশিষ্ট্য

যেকোনো ধরনের বেসিক থেকে অ্যাডভান্স কাজ গুলি মাইক্রোসফট অফিসের মাধ্যমে খুবই সহজ এবং ইউজার ফ্রেন্ডলি ভাবে করা যায়।

মাইক্রোসফট অফিসের বিভিন্ন ভার্সন

  • 1990 – MS Office 1.0
  • 1992 – MS Office 3.0
  • 1995 – MS Office 95
  • 1997 – MS Office 97
  • 2000 – MS Office 2000
  • 2002 – MS Office 2002
  • 2003 – MS Office 2003
  • 2007 – MS Office 2007
  • 2010 – MS Office 2010
  • 2013 – MS Office 2013
  • 2016 – MS Office 2016
  • 2019 – MS Office 2019
  • 2021 – MS Office 2021

মাইক্রোসফট অফিস সম্পর্কে বিস্তারিত

মাইক্রোসফট অফিস হলো ৩০ বছরের পুরনো একটি সফটওয়্যার। Mac অপারেটিং সিস্টেমের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের অফিসিয়াল কাজ করার জন্য ১৯৮৯ সালে, microsoft corporation দ্বারা এই সফটওয়্যারটি তৈরি করা হয়। এবং এর এক বছর পরে (১৯৯০ সালে), microsoft corporation উইন্ডোস অপারেটিং সিস্টেম এর জন্য মাইক্রোসফট অফিসের প্রথম সংস্করণ নিয়ে আসে।

Microsoft অফিস যখন প্রথমবার বাজারে আসে তখন এর মধ্যে শুধুমাত্র তিনটি প্রোগ্রাম অন্তর্ভুক্ত করা ছিল। সেগুলি হল ওয়ার্ড, এক্সেল এবং পাওয়ার পয়েন্ট। এবং পরবর্তীকালে এর নতুন সংস্করণ আসার সাথে সাথে এর মধ্যে আরো প্রোগ্রাম গুলি অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

মাইক্রোসফট অফিস ব্যবহার করার সুবিধা

  1. মাইক্রোসফট অফিস আবার করে যে কোন ধরনের অফিসিয়াল কাজ খুব সহজে করা যায়
  2. এই সফটওয়্যারটি খুবই ইউজার ফ্রেন্ডলি এবং ফাস্ট
  3. ইনস্টলেশন ঝামেলা খুবই কম
  4. কম খরচে এই সফটওয়্যারটি কিনতে পাওয়া যায়
  5. বেশিরভাগ কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেম এর মধ্যে এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করা যায়
  6. প্রধান প্রোগ্রাম গুলির সাথে, অসংখ্য ফিচার সংযুক্ত করা আছে যার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের কাজ করা যায়
  7. নির্দিষ্ট সময়ের পর আপডেট করে নিলে নতুন নতুন ফিচার যোগ হয় এবং bug দুর হয়।
এটিও জেনে নিন -  ইনপুট ও আউটপুট ডিভাইস কাকে বলে?

উপসংহার

আশা করছি আজকের এই আর্টিকেলটি থেকে মাইক্রোসফট অফিস সম্পর্কে সমস্ত প্রশ্নের উত্তর পেয়ে গেছেন। যদি আপনি বিভিন্ন ধরনের অফিসিয়াল কাজ করে থাকেন তাহলে microsoft office একবার হলেও ব্যবহার করে দেখুন। আশা করছি আপনার নিত্যদিনের কাজ আগের থেকেও সহজ হয়ে যাবে। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন।

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment