ভাষা কাকে বলে | ভাষার কাজ কি | ভাষার বৈশিষ্ট্য | ভাষার প্রয়োজনীয়তা কি?

ভাষা কি – আজকের আর্টিকেল থেকে আমরা ভাষা কাকে বলে এই সম্পর্কে আলোচনা করবো। যেখান থেকে ভাষা সম্পর্কে অনেক তথ্য পাবেন। যেমন – ভাষা কাকে বলে, ভাষা কয় প্রকার ও কি কি, ভাষার কাজ কি, ভাষার গুরুত্ব, বৈশিষ্ট্য এবং প্রয়োজনীয়তা কি ইত্যাদি।

যদি আপনিও ভাষা সম্পর্কে এই সকল প্রশ্নের উত্তর পেতে চান তাহলে আজকের আর্টিকেলটা পড়তে থাকুন।

সূচিপত্র

ভাষা কাকে বলে?

ভাষা হল এমন এক মাধ্যম, যার মাধ্যমে একজন ব্যক্তি কথা বলে; শোনার, লেখার বা পড়ার মাধ্যমে অন্যের কাছে তার চিন্তা বা অনুভূতি প্রকাশ করে।

সহজ ভাবে বলতে গেলে, যে মাধ্যমটির মাধ্যমে আমরা, আমাদের অনুভূতি বা চিন্তা অন্যের কাছে ব্যাখ্যা করতে পারি এবং অন্যের অনুভূতি বুঝতে পারি, তাকেই ভাষা বলে।

ভাষার উদাহরণ হলো হিন্দি, ইংরেজি, বাংলা ইত্যাদি।

ভাষার কাজ কি?

মানুষের অনুভূতি বা চিন্তা অন্যের কাছে ব্যাখ্যা করা এবং অন্যের অনুভূতি ও চিন্তা বুঝতে পারাই হলো ভাষার কাজ।

ভাষা কয় প্রকার?

ভাষা সাধারণত তিন প্রকারের। এগুলি হলো

  1. কথ্য ভাষা
  2. লেখ্য ভাষা
  3. সাংকেতিক ভাষা

এখানে এই তিন ভাষা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন।

১) কথ্য ভাষা

যেখানে একজন ব্যক্তি শুধুমাত্র কথা বলার মাধ্যমে তার চিন্তাভাবনা প্রকাশ করে এবং অন্য ব্যক্তি সেগুলি শোনে এবং বোঝে। সেটিকেই বলা হয় কথ্য ভাষা। এতে বক্তা কথা বলে এবং শ্রোতা সেই কথা শুনে তার দৃষ্টিভঙ্গি বুঝতে পারে।

২) লেখ্য ভাষা

মুখে কিছু না বলে, শুধু লেখার মাধ্যমে চিন্তা ও মনের ভাব প্রকাশ করার বিষয়টিকে বলা হয় লেখ্য ভাষা। উদহারন হিসাবে কাউকে চিঠি লেখা, মেসেজ করা ইত্যাদি হলো লেখ্য ভাষার উদহারন।

৩) ইশারা ভাষা বা সাংকেতিক ভাষা

যখন এক ব্যাক্তি তার চিন্তা ভাবনা গুলি অন্য বক্তাকে অঙ্গভঙ্গির সাহায্যে ব্যাখ্যা করে, তখন এটিকে সাংকেতিক ভাষা বলা হয়। এই ভাষাটি সেই সমস্ত লোকেরা ব্যবহার করে যারা কথা বলতে বা শুনতে পারে না।

ভাষার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা

মানুষের জীবনে ভাষার গুরুত্ব কি এবং এটি কেনো প্রয়োজন এটা জেনে নিন।

১. ধারণা বিনিময়ের সবচেয়ে সহজ মাধ্যম

ভাষা ভাবের আদান-প্রদানের একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। এটি শুধুমাত্র মানুষই নয়, পশুপাখিরাও ভাষার ব্যবহার করে। কিন্তু চিন্তার আদান-প্রদানের ক্ষমতা একমাত্র মানুষেরই আছে, ভাষার মাধ্যমে একজন মানুষ তার সব সুখ-দুঃখ অন্য মানুষের কাছে খুব সহজেই হস্তান্তর করতে পারে। অথবা ভাষার মাধ্যমে মানুষ খুব সহজ উপায়ে অন্যের সাথে, মতামত বিনিময় করতে পারেন।

2. জ্ঞান অর্জনের প্রধান মাধ্যম

ভাষার মাধ্যমেই এক প্রজন্ম তার সঞ্চিত জ্ঞান অন্য প্রজন্মের কাছে তুলে দিয়েছে। এইজন্য ভাষা হল জ্ঞান অর্জনের প্রধান মাধ্যম।

3. জাতীয় ঐক্যের ভিত্তি

ভাষার মাধ্যমে গোটা জাতি পরিচালিত হয়। ভাষা হচ্ছে জাতীয় ঐক্যের ভিত্তি। এ ছাড়া একটি ভাষা, বিভিন্ন জাতির মধ্যে চিন্তা-চেতনা, বাণিজ্য ও সংস্কৃতির আদান – প্রদানের মাধ্যমও হয়ে ওঠে।

4. সামাজিক জীবনে অগ্রগতির মাধ্যম

ভাষা সমাজের সদস্যদের এক সুতোয় বেঁধে রাখে, ভাষার মাধ্যমেই সমাজ অগ্রগতির পথে এগিয়ে যায়। সেজন্য ভাষা যত বেশি বিকশিত হবে, ভাষার মাধ্যমে সমাজের তত বেশি বিকাশ ঘটবে।

ভাষার সাহায্যেই সমগ্র বিশ্ব বা সমাজে বসবাসকারী বা বিভিন্ন অঞ্চলে বসবাসকারী মানুষ এবং বিভিন্ন ধর্ম ও বর্ণের মানুষ একসাথে বসবাস করে অর্থাৎ সমাজের সংযোগ স্থাপনে ভাষা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ভূমিকা পালন করে। অতএব ভাষাই হলো সামাজিক জীবনে অগ্রগতির ভিত্তি।

5. ব্যক্তিত্ব গঠনের সহায়ক

ভাষা একজন মানুষের বিকাশের একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। একজন মানুষ ভাষার মাধ্যমে তার মনের অনুভূতি প্রকাশ করে এবং এই প্রকাশের মধ্যে তার মধ্যে লুকিয়ে থাকা প্রতিভা দেখা যায়।

এছাড়াও তার চিন্তাভাবনা এবং অনুভূতি সফলভাবে অন্যদের কাছে প্রকাশ করা সম্ভব হয়। এর থেকে নির্দিষ্ট ব্যক্তির ব্যক্তিত্বের বৈশিষ্ট্য গুলি জানা যায়। তাই একজন ব্যক্তির অভিব্যক্তি যত স্পষ্ট হবে, তত কার্যকরভাবে তার ব্যক্তিত্বের বিকাশ বাড়বে।

6. উৎস বা চিন্তার মাধ্যম

আমরা ভাষার মাধ্যমে চিন্তাভাবনা ও চিন্তা করি। আমরা, আমাদের চিন্তার উচ্চতার কারণেই সকল প্রাণীর মধ্যে শ্রেষ্ঠ বলে বিবেচিত এবং এর কারণে আমরা এই বিশ্ব শান্তি ও জাতীয় প্রচেষ্টার মাধ্যমে অনেক ধরণের নতুন তথ্য গ্রহণ করতে সক্ষম হই।

এটি স্পষ্ট যে চিন্তা, চিন্তাভাবনা এবং চিন্তাশক্তির বিকাশ ভাষার উপর ভিত্তি করে তৈরি হয়।

7. সাহিত্য, শিল্প, সভ্যতা ও সংস্কৃতির বিকাশ

ভাষা না থাকলে সাহিত্য থাকত না। কারণ ভাষার মাধ্যমেই সাহিত্য রচিত হয় এবং ভাষার বিকাশ তার বিকাশমান সাহিত্যের আয়নায় দেখা যায়।

একইভাবে, শিল্পের শিল্প ভাষাতেই প্রকাশ পায় এবং ভাষার মাধ্যমে আমরা জীবনধারার সাথে পরিচিত হই।

8. শিক্ষার ও প্রগতির ভিত্তি

ভাষাই শিক্ষার ভিত্তি, জ্ঞান বিজ্ঞানের সকল গ্রন্থ ভাষাতেই লেখা, ভাষা না থাকলে শিক্ষার ব্যবস্থাও সম্ভব নয়।

ভাষা ছাড়া, মানুষ হয়ে যাবে অসভ্য, হিংস্র ও বন্য পশুর মতো। ভাষার অনুপস্থিতি কতটা ক্ষতিকর এটা আমরা আমাদের পূর্বপুরুষদের থেকেই জেনেছি।

ভাষার বৈশিষ্ট্য গুলো কি কি?

ভাষার অনেক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এখানে একটি একটি করে ভাষার বৈশিষ্ট্য গুলি, বিবরণসহ দেওয়া হল।

১. সৃজনশীলতা

মানুষের ভাষার মৌলিক বৈশিষ্ট্য হল এর সৃজনশীলতা। কথা বলার প্রক্রিয়া অন্যান্য জীবের মধ্যে পরিবর্তিত হয় না, কিন্তু শব্দ এবং বাক্য গঠনের সীমিত প্রক্রিয়ার সাথে, মানুষ নতুন নতুনের সাথে পরীক্ষা করতে থাকে।

সে বিভিন্ন উপায়ে শুধুমাত্র সীমিত শব্দ ব্যবহার করে তার অনুভূতি প্রকাশ করে। এটা সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র ভাষার সৃজনশীলতার কারণে।

২. অনুকরণকারী

অ-মানুষের ভাষা সহজাত এবং তারা এটিকে উন্নত বা পরিবর্তন করতে পারে না, তবে মানুষের ভাষা সহজাত নয়। মানুষ সমাজের অনুকরণ করে ধীরে ধীরে ভাষা শেখে। অনুকরণ গ্রহণযোগ্য হওয়ার কারণে একটি মানুষ একাধিক ভাষা শিখে থাকে।

৩. পরিবর্তনশীলতা

মানুষের ভাষা পরিবর্তনশীল। দ্বিতীয় যুগে এসে একই শব্দ নতুন রূপ ধারণ করে। একটি পুরাতন ভাষায় অনেক পরিবর্তন ঘটে, যার ফলে একটি নতুন ভাষার উদ্ভব হয়। সংস্কৃত থেকে হিন্দিতে বিকাশের যাত্রা ভাষার পরিবর্তনশীলতার বড় উদাহরণ।

৪. বিচক্ষণতা

মানুষের ভাষা বিচ্ছিন্ন। এর গঠন অনেক উপাদান দিয়ে গঠিত। ভাষা, ধ্বনি শব্দ এবং শব্দ-বাক্যর উপাদান নিয়ে গঠিত। এইভাবে অনেক যোগফলের কারণে মানুষের ভাষাকে বিচ্ছিন্ন বলা হয়।

৫. দ্বৈততা

একটি ভাষায় একটি বাক্যে দুটি স্তর রয়েছে। প্রথম স্তরে একটি অর্থপূর্ণ একক রয়েছে। আর দ্বিতীয় স্তরে রয়েছে অর্থহীন। এই দুটি স্তরের যোগফল দিয়ে যে কোনো বাক্য গঠিত হয়। তাই একে দ্বৈততা বলা হয়।

ভাষায় ব্যবহৃত অর্থপূর্ণ একককে বলা হয় morphemes এবং অপ্রয়োজনীয় একককে বলা হয় ধ্বনি। Phonemes অপ্রয়োজনীয় একক হওয়া সত্ত্বেও অর্থপূর্ণ একক গঠন করে।

৬. ভূমিকার আদানপ্রদান

ভাষার দুটি দিক আছে – বক্তা এবং শ্রোতা। আলোচনার সময় উভয় পক্ষই তাদের ভূমিকা পরিবর্তন করে চলে। বক্তা হল শ্রোতা এবং শ্রোতা হল বক্তা। একে বলা হয় ভূমিকার পারস্পরিক পরিবর্তন।

৭. স্থানান্তর

মানুষের ভাষা ভবিষ্যত এবং অতীত সম্পর্কেও তথ্য দিতে পারে এবং দূরবর্তী দেশেরও। এভাবে স্থানান্তরের বৈশিষ্ট্য শুধুমাত্র মানুষের ভাষায়।

ভাষার কয়টি রূপ – ভাষার বিভিন্ন রূপ

ভাষার অনেক ধরনের রূপ রয়েছে। যেগুলি এলাকা ভিত্তিক এবং কাজের ক্ষেত্রে, বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন ভাবে ব্যবহার করা হয়। এখানে ভাষার বিভিন্ন রূপ একটি একটি করে বোঝানো হলো।

১. স্থানীয় ভাষা

“নেটিভ ল্যাঙ্গুয়েজ” হল ভাষার সেই প্রাথমিক রূপ যা নিজে থেকে কারো কাছ থেকে উদ্ভূত হয় না, তবে এটি নিজেকে অন্যের কাছে প্রেরণ করে। ভাষার উৎপত্তি অবশ্যই প্রাচীন কালে এমন জায়গায় হয়েছে যেখানে অনেক লোক একসাথে বসবাস করেছে।

এই ধরনের যেকোনো একটি স্থানের ভাষা গঠনের প্রথম প্রক্রিয়াটিকে স্থানীয় ভাষা বলে। যা ঐতিহাসিক ও ভৌগোলিক কারণে কালক্রমে বহু ভাষা, উপভাষা ও উপ-উপভাষার জন্ম দিয়েছে।

২. আঞ্চলিক উপভাষা

আমরা যখন এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় চলে যাই, তখন আমরা ভাষার পরিবর্তন বুঝতে শুরু করি।

দূরত্ব বাড়ার সাথে সাথে এই পরিবর্তনটি স্পষ্টভাবে বোঝা যায়।ভাষার এই ধরনের সীমিত এবং এলাকা-নির্দিষ্ট রূপকে উপভাষা বলে।

যা ধ্বনি, রূপ, বাক্যের অর্থ, শব্দ এবং বাগধারা ইত্যাদির ক্ষেত্রে ভিন্ন হতে পারে। এইভাবে যখন একটি ভাষার অধীনে অনেকগুলি ভিন্ন রূপ গড়ে ওঠে, তখন তাকে উপভাষা বলা হয়। এই উপভাষাগুলি হল বুন্দেলি, বাঘেলি, ভোজপুরি, মালভি ইত্যাদি।

৩. গালিগালাজ বা বিকৃত ভাষা

একটি ভাষা সমাজে একটি কাঠামো। যেসকল ভাষাগুলি নির্দিষ্ট শিষ্টাচার অনুসরণ করে না তাকে অসভ্য ভাষা বলে। এর ব্যাপকতা বিশেষ শ্রেণীতে বা রয়েছে।

এই সকল ভাষাগুলি অপবিত্রতা এবং অশ্লীলতা অপবাদের অন্তর্ভুক্ত। এর ব্যবহারকারীরা প্রায়ই শব্দ গঠন বা বাক্য গঠনে ব্যাকরণের নিয়ম উপেক্ষা করে।

সাধারণ প্রতীকী অর্থের অবমূল্যায়ন অপবাদে দৃশ্যমান। যাইহোক, গালিগালাজের কিছু ব্যবহার দৃঢ় উচ্চারণের কারণে, ভদ্র ভাষায় গৃহীত হয়।

1960-70 সালের মধ্যে, কবিতার এমন কিছু আন্দোলন ছিল যেখানে প্রকাশ্যে গালিগালাজ করা হয়েছিল। হিন্দির কিছু উপন্যাস ও গল্পেও অপভাষার ব্যবহার দেখা যায়।

৪. ব্যবসার ভাষা

পেশাগত শ্রেণীর ভিত্তিতে, ভাষার অনেক বিভাগ গঠিত হয়। কৃষক, কাঠমিস্ত্রি, ডাক্তার, উকিল, পন্ডিত, ধর্মগুরু, দোকানদার প্রভৃতি ভাষায় পেশাগত পরিভাষা অন্তর্ভুক্ত করার কারণে তাদের ভাষার মাধ্যমে বিস্তার পার্থক্য রয়েছে।

এই ব্যবসায়িক পরিভাষার অবস্থান খুবই সংজ্ঞামূলক। কিছু পেশায়, সাধারণত ব্যবহৃত পরিভাষার জায়গায়, বিশেষ শব্দার্থিক নতুন পরিভাষা তৈরি করা হয়।

এর অবস্থান অনেকটা সাংকেতিক ভাষার মতো। কখনো কখনো তা গালিগালাজের ক্যাটাগরিতেও পৌঁছে যায়।

৫. কোড ভাষা

ইংরেজিতে একে বলে কোড ল্যাঙ্গুয়েজ। পাণ্ডিত্যপূর্ণ কর্মক্ষমতা, বিনোদন, এবং গোপনীয়তার জন্য কোড ভাষা ব্যবহার করা হয়। সেনাবাহিনীতে, এনক্রিপশনের জন্য কোড ভাষা ব্যবহার করা হয়।

এতে সাধারণ অর্থের জায়গায় নতুন অর্থ যোগ করে শব্দ ব্যবহার করা হয়, যার অর্থ আগে থেকে বলা হয়েছে সেই ব্যক্তিই বুঝতে পারবেন।

৬. কৃত্রিম ভাষা

এটি একটি নির্মিত ভাষা, পৃথিবীতে অনেক কৃত্রিম ভাষা রয়েছে। এক ভাষার বক্তা অন্য ভাষার বক্তাকে পূর্ব শিক্ষা ছাড়া বুঝতে পারে না।

ভাষার পার্থক্যের কারণে, ব্যবসা, রাজনীতি, ভ্রমণ, শিক্ষা ইত্যাদি জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বড় অসুবিধা দেখা দেয়। এই সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্য ‘এসপেরান্তো’ নামে একটি কৃত্রিম ভাষা তৈরি করা হয়।

ইউরোপের কিছু মানুষ এই ভাষা শেখে। এই ভাষা সৃষ্টিতে যে উদ্দেশ্য স্থির করা হয়েছিল তা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কিন্তু গণভিত্তির অভাবে এই ভাষা সেই উদ্দেশ্য পূরণ করতে পারেনি।

কৃত্রিম ভাষায় কেবল স্বাভাবিক কথাবার্তাই হতে পারে, গম্ভীর ভাবনা বা সাহিত্য রচনা হতে পারে না।

এর কারন হলো, ভাষা একভাবে মানুষের সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ, তাই তার সৃজনশীলতাও ঘটে তার মাতৃভাষায়। যদি তিনি তার মাতৃভাষার উচ্চারণের সাথে এস্পেরান্তো উচ্চারণ করেন, তবে তিনি তাতেও পরিবর্তন আনবেন। এভাবে আবার ভাষার ঐক্য ভেঙে যাবে।

৭. মিশ্র ভাষা

এটি দুটি ভাষার মিশ্রণে গঠিত হয়। এর মাধ্যমে স্বাভাবিক কাজ-ব্যবসা ইত্যাদি সম্পন্ন হয়। চীনা উচ্চারণ এবং ব্যাকরণ অনুসারে ইংরেজি শব্দগুলিকে অভিযোজিত করে চীনে পিজিন তৈরি করা হয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকায়, ডাচ + ইংরেজি + বান্টু থেকে একটি মিশ্র ভাষা গঠিত হয়েছে। কখনও কখনও দুটি ভাষার মিশ্রণ এত শক্তিশালী এবং প্রয়োজনীয় হয়ে ওঠে যে একটি সম্প্রদায় তার মাতৃভাষা ত্যাগ করে, এই ভাষাগুলো ব্যবহার করে থাকে।

কথ্য ভাষা ও লেখ্য ভাষার পার্থক্য

  • কথ্য ভাষা সাধারণত লিখিত ভাষার চেয়ে কম আনুষ্ঠানিক।
  • কথ্য ভাষা লিখিত ভাষার চেয়ে কম সঠিক
  • লিখিত ভাষা প্রায়ই কথ্য ভাষার চেয়ে বেশি স্পষ্ট এবং পরিশীলিত হয়।
  • বডি ল্যাঙ্গুয়েজ এবং টোনের মতো অতিরিক্ত সংকেতের কারণে কথ্য ভাষা লিখিত ভাষার চেয়ে বেশি কথ্য হতে পারে।
  • কথ্য ভাষা লিখিত ভাষার তুলনায় কম সাধারণ।

ভাষা কিসের দ্বারা সৃষ্টি হয়?

বাগযন্ত্রের সাহায্যে।

উপসংহার

আশাকরি উপরের ইনফর্মেশন থেকে ভাষা কাকে বলে, ভাষা কয় প্রকার ও কি কি, ভাষার গুরুত্ব, বৈশিষ্ট্য এবং প্রয়োজনীয়তা কি – এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। যদি ভাষা সম্পর্কে আপনার কোন মতামত থাকে তাহলে আপনি কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন।

আরও পড়ুন

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment