বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা – অনেকেই আছেন যারা কোন কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের হয়ে কাজ না করে নিজের ব্যবসা করে নিজের পায়ে দাঁড়াতে চায়। যেখানে সে কারোর অধীনে না থেকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে।

কিন্তু অনেক সময় কোন ব্যবসা করা উচিত এই সম্পর্কে অনেক ব্যক্তি ধারণা পায় না। এই জন্য আজকের এই আর্টিকেলটি আপনাকে সাহায্য করবে। যেখানে আজ আমরা বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা গুলি সম্পর্কে আলোচনা করব। এখান থেকে আপনি যে কোন একটি ব্যবসা বেছে নিয়ে শুরু করতে পারেন। যদি আপনিও ব্যবসা করতে আগ্রহী হন তাহলে আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়তে থাকুন।

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা

এখানে একটি একটি করে প্রত্যেকটি ব্যবসা সম্পর্কে আলোচনা করা হলো। এখান থেকে যে কোন একটি ব্যবসা বেছে নিয়ে আপনি শুরু করতে পারেন।

মিঠাই এর ব্যবসা

মিঠাই বা মিষ্টির ব্যবসা সর্বদাই লাভজনক একটি ব্যবসার মধ্যে পড়ে। দিনের পর দিন এর চাহিদা বেড়েই চলেছে। যদি আপনি মিষ্টি তৈরি করে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন তাহলে আপনি খুব তাড়াতাড়ি লাভবান হতে পারবেন।

মিঠাইয়ের ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে দুই থেকে তিন লক্ষ টাকা ইনভেস্ট করতে হবে। এরপর আপনি খুব সহজেই মাসিক ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

এবং বিভিন্ন উৎসবের সময় এর পরিমাণ আরো বেশি হবে।

কাপড়ের ব্যবসা

এটিও এমন একটি ব্যবসা যার চাহিদা প্রতিবছরই থাকে। আপনি এক থেকে দুই লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করে কাপড়ের ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এবং ব্যবসা সঠিকভাবে করার পর আপনি মাসিক ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা খুব সহজে উপার্জন করতে পারবেন।

তাজা সবজির ব্যবসা

এটি খুবই একটি সহজ ব্যবসার মধ্যে পড়ে। আপনি গ্রামের কৃষকদের কাছ থেকে বিভিন্ন সবজি খরিদ করে শহরের বিভিন্ন মানুষের মধ্যে বিক্রি করতে পারেন।

এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে কুড়ি থেকে ত্রিশ হাজার টাকা ইনভেস্ট করতে হবে। এবং সঠিকভাবে ব্যবসা করতে পারলে আপনি 10 থেকে 15 হাজার টাকা মাসে আয় করতে পারবেন।

বেকারির ব্যবসা

বেকারি জিনিসগুলির চাহিদা বেশিরভাগ সময় থাকে। যদি আপনি এক থেকে দেড় লক্ষ টাকা ইনভেস্ট করে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন তাহলে বিভিন্ন ধরনের বেকারি পণ্য তৈরি করে বিভিন্ন দোকানে দোকানে সেগুলি সেল করতে পারেন। এটিও একটি লাভবান ব্যবসার মধ্যে অন্তর্গত।

পাপড়ের ব্যবসা

পাপড়ের ব্যবসায় ৩০ থেকে ৪০% পর্যন্ত মুনাফা আয় করা যায়। এজন্য আপনি প্রথমে ১ লক্ষ টাকা ইনভেস্ট করে কাঁচামাল সরবরাহ করুন। এবং সেই কাঁচামালের পাপড় বানিয়ে বিভিন্ন দোকানে দোকানে বিক্রি করতে পারেন। যেখানে আপনি কুড়ি থেকে ত্রিশ হাজার টাকা লাভ অর্জন করতে পারবেন।

ফুচকার ব্যবসা

ফুচকা খায় না এমন লোক খুব কমই আছে। এবং এটির চাহিদা সর্বদা লেগে থাকে। যদি আপনি স্টল লাগিয়ে বা wholesale ফুচকা ব্যবসা করতে চান তাহলে আপনি খুব তাড়াতাড়ি ব্যবসার সফলতা লাভ করতে পারবেন। ফুচকা তৈরি করার জন্য আপনাকে ১০-১৫ হাজার টাকা ইনভেস্ট করতে হবে।

জন্মদিনের কেক তৈরির ব্যবসা

জন্মদিনের কেক তৈরির ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে এক থেকে দেড় লক্ষ টাকা খরচ করে একটি ছোট দোকান এবং কাঁচামাল সরবরাহ করতে হবে।

এবং ধীরে ধীরে আপনি আপনার ব্যবসাটিকে অনলাইন এবং অফলাইন মারফত বড় করতে পারেন। একটি কেকের পেছনে ২৫ থেকে ৩০% পর্যন্ত লাভ হয়ে থাকে।

নারিকেল জলের ব্যবসা

আপনি খুব সহজেই এই ব্যবসাটি করতে পারেন। দুই প্রকারে এই ব্যবসাটি করা যায়। প্রথমত একটি ঠেলাগাড়ি লাগিয়ে কাঁচা নারকেলের জল বিক্রি করতে পারেন। দ্বিতীয়ত নারকেলের জল সংরক্ষণ করে বা packeting করে, সারা বছর বিক্রি করতে পারেন।

এই ব্যবসা শুরু করার জন্য ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা ইনভেস্ট করতে হবে এবং মাসিক কুড়ি থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন।

টিফিন সার্ভিস এর ব্যবসা

এই ব্যবসা করার জন্য আপনি বিভিন্ন ছোট বড় অফিসগুলোকে টার্গেট করতে পারেন। এবং নির্দিষ্ট মূল্যে টিফিন তৈরি করে বা কিনে নিয়ে, তারমধ্যে প্রফিট অ্যাড করে বিভিন্ন ব্যক্তিদের সার্ভিস দিতে পারেন।

এই ব্যবসাটি আপনি ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকার মধ্যে শুরু করতে পারেন।

আলুর চিপস তৈরির ব্যবসা

এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে প্রথমে মেশিনপত্র কেনার জন্য ইনভেস্ট করতে হবে। যার জন্য তিন থেকে চার লক্ষ টাকা খরচ করতে হবে। মেশিন কেনার পরে কাঁচামাল সংগ্রহ করে, সেগুলি দিয়ে চিপস বানিয়ে, বিভিন্ন দোকানে ডিস্ট্রিবিউট করে, আপনি এই ব্যবসা করতে পারেন।

যদি একবার এই ব্যবসা দাঁড়িয়ে যায় তাহলে আপনি মাসিক ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা খুব সহজে উপার্জন করতে পারবেন।

খবরের কাগজের বিজনেস

এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে পঞ্চাশ হাজার টাকা ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনভেস্ট করতে হবে। এরপর আপনাকে কোন নির্দিষ্ট পত্রিকার (বড় ব্যান্ডের) franchise নিয়ে খবরের কাগজ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে হবে।

জুসের ব্যবসা

যদি আপনি জুসের ব্যবসা করতে চান তাহলে একটি ছোটখাটো দোকান বানিয়ে জুসের ব্যবসা শুরু করতে পারেন। যদি আপনি একটি জুসের গ্লাসের পেছনে কুড়ি থেকে ২৫ টাকা প্রফিট রাখতে পারেন তাহলে দিনে, ৫০ থেকে ৭০ টা গ্লাস বিক্রি করলেই আপনি হাজার থেকে পনেরশো টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

তবে এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে মেশিনপত্র কিনতে এবং দোকান ভাড়া নিতে আপনাকে ৫০ থেকে ৭০ হাজার টাকা ইনভেস্ট করতে হবে।

দুধের ব্যবসা

যদি আপনি কিছু গরু কিনে নিয়ে তার দুধ বিভিন্ন দোকানে দোকানে বিক্রি করতে পারেন তাহলে ভালো পরিমাণ অর্থ আয় করতে পারবেন। তবে ছোটখাটো ভাবে এই বিজনেস শুরু করার জন্য তিন থেকে চার লক্ষ টাকা খরচ করতে হবে।

ফাস্টফুড ব্যবসা

ফাস্টফুড ভারতে প্রচুর জনপ্রিয় একটি খাবার। যদি আপনি সঠিকভাবে ফাস্টফুড ব্যবসা করতে পারেন এবং ভালো ভালো খাবার তৈরি করতে পারেন তাহলে খুব সহজে এই ব্যবসায় আপনি লাভবান হবেন।

ফাস্টফুড ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে একটি দোকান তৈরি করতে হবে বা ভাড়া নিতে হবে।

কফি শপ ব্যবসা

চায়ের দোকান প্রত্যেকটি রাস্তার মোড়েই থাকে কিন্তু কফির দোকান খুবই কম আছে। এজন্য আপনি একটি ছোট কফির দোকান বানিয়ে কফি শপ খুলতে পারেন।

50000 থেকে 1 লক্ষ টাকা খরচ করে যদি আপনি ছোটখাটো একটি কফি শপ খুলতে পারেন তাহলে আপনার দৈনিক আয় ১ হাজার থেকে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত হতে পারে।

আরো কিছু লাভজনক ব্যবসা

  • স্কুল বাস ড্রাইভিং ব্যবসা
  • গ্যারেজ ব্যবসা
  • ইট তৈরির ব্যবসা
  • বালি পরিবহন ব্যবসা
  • বীজ ব্যবসা
  • সার ব্যবসা
  • নার্সারি ব্যবসা
  • ক্যাটারিং ব্যবসা
  • মুরগির খামার ব্যবসা
  • শুকনো ফলের ব্যবসা
  • আসবাবপত্র তৈরির ব্যবসা
  • বাড়ি ভাড়া ব্যবসা
  • ফ্যাশন ডিজাইনিং ব্যবসা
  • কুরিয়ার সার্ভিস ব্যবসা

সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা বাড়িতে বসে

  • চা পাতার ব্যবসা
  • মশলা ব্যবসা
  • ধূপ লাঠি ব্যবসা
  • টিফিন সার্ভিস
  • আচার ও পাপড় তৈরির ব্যবসা
  • মেহেন্দি লাগানোর ব্যবসা
  • কাপড় সেলাই
  • প্যাকিং কাজ

অনলাইনে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা

  • ব্লগিং দ্বারা
  • গ্রাফিক ডিজাইনার হিসেবে কাজ করা
  • অনলাইনে হাতে তৈরি জিনিস বিক্রি
  • এফিলিয়েট মার্কেটিং
  • ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করা
  • ডিজিটাল কোর্স বিক্রি
  • ডোমেইন ক্রয় এবং বিক্রয় ব্যবসা
  • একজন ফ্রিল্যান্সার হিসাবে কাজ করা
  • অনলাইন ফটো বিক্রি
  • অনলাইন পরামর্শ দেওয়া
  • ই বই বিক্রি
  • একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করা

উপসংহার

আশা করছি আজকের এই আর্টিকেল থেকে বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা সম্পর্কে ইনফরমেশন পেয়ে গেছেন। যদি আজকের তালিকায় দেওয়া কোন ব্যবসা, আপনার ভালো লেগে থাকে তাহলে সেই ব্যবসা সম্পর্কে আপনি আরোও রিসার্চ করে, তারপর ব্যবসা শুরু করুন। বর্তমানে আপনার নিকট এরকম ব্যবসা আছে কিনা, থাকলে ব্যবসায় লাভ কেমন হয়, ইনভেস্টমেন্ট কোন কোন বিষয়ে করতে হয় – এই সকল বিষয়ে ধারণা নেওয়ার পর তবেই ব্যবসা শুরু করুন।

আরও পড়ুন

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment