পেনড্রাইভ কি এবং পেনড্রাইভ এর ব্যবহার কেন করা হয়

পেনড্রাইভ কি – পেনড্রাইভ এর নাম সবাই শুনে থাকবেন এবং আজকের দিনে যে কোন ফাইল ট্রান্সফার করার জন্য, পেনড্রাইভ এর ব্যবহার হয়ে থাকে। যদি আপনি পেন ড্রাইভ সম্পর্কে বিশেষ খেলতে চান তাহলে আজকের আর্টিকেল থেকে পেনড্রাইভ কি, পেনড্রাইভের দাম, পেনড্রাইভ এর জনক কে এবং পেনড্রাইভ কিভাবে ব্যবহার করতে হয় এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর গুলো জানতে পারবেন।

তাই চলুন পেন ড্রাইভ সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

পেনড্রাইভ কি?

পেনড্রাইভ হলো এক ধরনের স্টোরেজ ডিভাইস, যেটি একটি কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে ডাটা ট্রান্সফার করার জন্য ব্যবহার করা হয়। ড্রাইভ সাধারণত ডাটা স্টোর করার জন্য ব্যবহার করা হয়। এবং এই ড্রাইভের সাহায্য একটি লোকেশন থেকে অন্য লোকেশনে ডাটা ট্রান্সফার করা হয়। এই ধরনের ড্রাইভ কতকটা পেন এর মত দেখতে হওয়ার কারণে এটিকে পেনড্রাইভ বলে।

পেনড্রাইভ এর অপর নাম হল Commonly USB flash drive। Pen drives বা USB flash drives কে Universal Serial Bus (USB) port এর দ্বারা কম্পিউটারে কানেক্ট করা হয়। আর এই ধরনের পথ চালানোর জন্য আলাদা করে power supply এর প্রয়োজন হয় না। কারণ ইউএসবি পোর্ট এর সাহায্যে এটি পাওয়ার সাপ্লাই নিয়ে কাজ করে।

আগেকার দিনে ডাটা ট্রান্সফার করবার জন্য CD’s, Floppy Disk এর ব্যবহার করা হতো। কিন্তু পেনড্রাইভ এর storing capacity এবং transferring speed সবথেকে বেশি হওয়ার কারণে, আজকের দিনে Pendrive সবথেকে বেশি ব্যবহৃত হয়।

পেনড্রাইভ খুব ছোট হওয়ার কারণে, এটিকে কম্পিউটার থেকে খুলে নিয়ে খুব সহজে পকেটে ভরে বহন করা সম্ভব হয়। এবং পেনড্রাইভের সাহায্যে অডিও, ভিডিও, পিকচার, ডকুমেন্ট এই সমস্ত ফাইলগুলি খুব সহজেই একটি কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে ট্রান্সফার করা যায়। এবং যেকোন ফাইল পেনড্রাইভ থেকে কপি করে কম্পিউটারে, এবং কম্পিউটার থেকে কপি করে পেনড্রাইভে খুব সহজে আদান-প্রদান করা যায়।

পেনড্রাইভ এর জনক কে

১৯৯৯ সালে ইজরায়েলের কোম্পানি M- System, পেনড্রাইভ এর Pataient করবার জন্য, আমেরিকার কাছে আবেদন জানায়। এবং সাথে সাথে আমেরিকার আবেদন পাওয়ার পর, মালয়েশিয়ার K.S Pua Khein Seng নামক এক ব্যক্তি, পেনড্রাইভ এর এডভান্স ভার্সন তৈরি করেন।

পেন ড্রাইভ তৈরী হওয়ার পর সাথে সাথে জনপ্রিয় হয়ে পড়ে। এরপর Toshiba এর মত বড় বড় কোম্পানি পেন ড্রাইভ তৈরী করার কাজে লেগে পরে।

পেনড্রাইভ এর স্টোরেজ ক্যাপাসিটি

আগেকার দিনে কোন ফাইল ট্রান্সফার করবার জন্য, CD, DVD, floppy disc ব্যবহার করা হতো। যেটি সাইজে বড় ছিল কিন্তু ডাটা স্টোর করার ক্ষমতা বা ক্যাপাসিটি কম ছিল। এবং ডাটা ট্রান্সফার করার গতি ছিল খুবই ধীর।

এই জন্য এই সমস্ত ডিভাইস এর বদলে পেনড্রাইভ এর ব্যবহার শুরু হয়। মার্কেটে বিভিন্ন দামে বিভিন্ন ধরনের কোম্পানির আলাদা আলাদা পেনড্রাইভ মজুদ আছে। যেগুলি 512MB থেকে 256GB পর্যন্ত ডাটা স্টোর করতে পারে। এবং প্রত্যেকটি পেনড্রাইভে আকার এবং সাইজ আলাদা হয়।

পেনড্রাইভ এর অন্য নাম

পেনড্রাইভ বিভিন্ন কাজের জন্য বিভিন্ন নামে পরিচিত। পেনড্রাইভকে, Pen Drive ছাড়াও এসব নামে চেনা যায়।

  • USB drive
  • Thump drive
  • Flash drive
  • USB memory
  • Jump drive

পেনড্রাইভ ব্যবহার করার সুবিধা

  1. ডাটা স্টোরিং ক্যাপাসিটি অন্যান্য স্টোরেজ ডিভাইস এর থেকে বেশি।
  2. 512GB থেকে 256GB পর্যন্ত data store ধরে রাখতে পারে।
  3. Boot করার সময়, bootable ডিভাইস হিসাবে ব্যবহার করা যায়।
  4. কম্পিউটারের প্রাইমারি মেমোরির মতো লাইফটাইম ডাটা ধরে রাখা যায়।
  5. অন্যান্য storage device এর তুলনায় দ্রুত গতিতে ডাটা ট্রান্সফার করতে পারে।
  6. Handy হওয়ার কারণে খুব সহজে বহন করা যায়।

পেনড্রাইভ এর ব্যবহার কেন করা হয়

আজকাল পেনড্রাইভ প্রচুর পরিমাণে ব্যবহার করা হয়। পেনড্রাইভ ব্যবহার করার বিশেষ কারণ গুলো রয়েছে সেগুলি জেনে নিন।

File transfer করার জন্য

একটি কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে ডাটা ট্রান্সফার করার জন্য পেনড্রাইভ ব্যবহার করা হয়। পেনড্রাইভ এর মাধ্যমে একসাথে অধিক পরিমাণ ডাটা, দ্রুতগতিতে ট্রান্সফার করা যায়। একটি কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে পেনড্রাইভকে খুব সহজে insert এবং Remove ও করা যায়।

Protability বেশি

পেনড্রাইভ খুব ছোট হওয়ার কারণে এটি কে খুব সহজে পকেটে ভরে, এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যাওয়া যায়। এবং বেশিরভাগ পেনড্রাইভ প্লাস্টিক এর তৈরি হওয়ার কারণে এটি ভেঙে যাওয়ার ভয় কম থাকে। এবং Usb পোর্ট মজবুত হওয়ার কারণে কম্পিউটারে insert করার সময়, কোন সমস্যা হয় না।

Backup নেওয়া যায়

যদি কম্পিউটারে কোন সমস্যা থাকে তাহলে, অনেক সময় পেনড্রাইভ এর মধ্যে সমস্ত ইম্পর্টেন্ট ডাটাগুলো স্টোর করে ধরে রাখা যায়। এবং দিয়ে ডাটাগুলো ভবিষ্যতে ব্যবহার করার সময়, কম্পিউটারের লাগিয়ে খুব সহজে অ্যাকসেস করা যায়। এবং কোন কম্পিউটার ফরম্যাট করার সময় কম্পিউটারের সমস্ত ডাটাগুলো, পেনড্রাইভ এর মধ্যে রাখলে, ডাটা সুরক্ষিত থাকে।

পেন ড্রাইভ কিভাবে ব্যবহার করতে হয়

পেনড্রাইভ ব্যাবহার করা খুব সহজ। পেন ড্রাইভ ব্যবহার করবার জন্য প্রথমে পেনড্রাইভটি কম্পিউটারের, usb পোর্ট এ insert করে দিন।

এরপর, পেনড্রাইভটি কম্পিউটারে লাগানোর সাথে সাথে কম্পিউটারে একটি নোটিফিকেশন আসবে। এবং দেখানো হবে কম্পিউটারে পেনড্রাইভটি কোন ড্রাইভে দেখানো হচ্ছে। কারণ পেনড্রাইভ, কম্পিউটারে লাগানোর সাথে সাথে, পেনড্রাইভে এর জন্য একটি ড্রাইভ তৈরি হয়। এবং সেই ড্রাইভের মধ্যে পেনড্রাইভ এর সমস্ত ফাইল গুলি থাকে।

এবং কম্পিউটারে থাকা সেই ড্রাইভ থেকে আপনি যেসব ডাটা গুলি কম্পিউটারে কপি করে রাখতে চান, সেগুলো কম্পিউটারে নিয়ে নিন। এবং যদি প্রিন্টারের মাধ্যমে অন্য কম্পিউটারে ডাটা ট্রান্সফার করতে চান তাহলে, কম্পিউটার থেকে data প্রথমে পেন ড্রাইভে কপি করে নিন। এরপর পেনড্রাইভকে নির্দিষ্ট কম্পিউটার থেকে খুলে নিয়ে অন্য কম্পিউটারে লাগিয়ে, পেনড্রাইভ থেকে ডাটা নিয়ে নিন।

পেন ড্রাইভ তৈরি করে এমন কিছু কোম্পানি

  • SanDisk
  • Kingston Technology
  • Toshiba
  • Seagate
  • OCZ
  • Sony
  • iBall
  • Quontom Corporation
  • Transcend Information
  • HP
  • Verwatim
  • Imation
  • Konami
  • PNY
  • Umax

পেনড্রাইভ কি ধরনের ডিভাইস?

একটি কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে, পেনড্রাইভ এর সাহায্যে ডাটা ট্রান্সফার করা হয়। এবং যেহেতু এটি ডেটা স্টোর করে ধরে ধরে রাখতে পারে। তাই পেনড্রাইভ হলো এক ধরনের স্টোরেজ ডিভাইস (storage device)।

Pen drive সংযুক্ত করার জন্য কি port ব্যবহৃত হয়?

Pen drive সংযুক্ত করার জন্য USB পোর্ট এর ব্যবহার করা হয়। এবং যে ইউএসবি port টি ব্যবহার করা হয় তার নাম হলো USB connector।

পেনড্রাইভ এর দাম কত?

পেনড্রাইভের দাম তার ক্যাপাসিটি এর উপর নির্ভর করে। যেহেতু এটি 1GB থেকে 256GB পর্যন্ত হয়ে থাকে তাই এটির দাম ভিন্ন।

সাধারণত পেনড্রাইভের দাম ২০০ টাকা থেকে ২৫০০ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। আপনি ক্যাপাসিটি এর উপর ভিত্তি করে যেকোনো ই-কমার্স সাইট থেকে পেনড্রাইভ এর দাম দেখতে পারেন।

উপসংহার:

আশাকরি ওপরের ইনফর্মেশন থেকে পেনড্রাইভ কি, পেনড্রাইভ এর জনক কে, পেনড্রাইভ এর দাম এবং পেনড্রাইভ কেন ব্যবহার করতে হয় এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। যদি এর সম্পর্কে আরোও কিছু জানার থাকে তাহলে আপনি কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন।

আরও পড়ুন:

শেয়ার করতে চান!
  •  
  •  
  •  
  •  

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment