ড্রপশিপিং ব্যবসা কি – Dropshipping Business Model

Dropshipping Business – ইন্টারনেট এবং প্রযুক্তি যত দ্রুত বাড়ছে, ই-কমার্স ব্যবসাও তত দ্রুত বাড়ছে। আজ উচ্চ-গতির ইন্টারনেট পৌঁছে গেছে প্রতিটি গ্রামে ও প্রতিটি শহরে। তাই আজ সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সবাই যদি একটি পণ্য কিনতে চায়, তবে তারা প্রথমে অ্যামাজন, ফ্লিপকার্টের মতো ই-কমার্স ওয়েবসাইটে অনলাইনে চেক করে।

আমরা সেই পণ্যগুলি পাওয়া যায় কি না তা খুঁজে বের করি, যদি তারা সেই পণ্যগুলি খুঁজে পায় তবে আমরা সেখান থেকেও অর্ডার দিই এবং কয়েক দিনের মধ্যে তার অর্ডার করা পণ্যটি তার বাড়িতে পৌঁছে যায়।

অ্যামাজন, ফ্লিপকার্টের মতো ই-কমার্স বিজনেস মডেলে অ্যামাজন, ফ্লিপকার্ট ছাড়াও অনেক পাইকারি এবং খুচরা বিক্রেতা এর সাথে যুক্ত, যাদেরকে তাদের পণ্যের সংগ্রহ রাখতে হয় এবং যদি একজন গ্রাহক তাদের পণ্য কেনেন তবে অ্যামাজন, ফ্লিপকার্ট এর মত যেসকল ই-কমার্স ওয়েবসাইট আছে, তার থেকে সেই বিক্রেতা বিজ্ঞপ্তি পায়, তারপর বিক্রেতাকে এই ই-কমার্স কোম্পানির ডেলিভারি সিস্টেমের মাধ্যমে গ্রাহকের বাড়িতে সেই পণ্য পৌঁছে দিতে হয়।

তবে এটি ছাড়াও, আরও একটি অনুরূপ ই-কমার্স ব্যবসায়িক মডেল রয়েছে, যেখানে বিক্রেতাকে কোনও বড় বিনিয়োগ করতে হবে না কারণ এতে বিক্রেতাকে কোনও শারীরিক পণ্য সংগ্রহ রাখতে হয় না, বা কোনও পরিচালনা করার দরকার নেই।

যেকোন প্রকারের ইনভেন্টরি এবং প্রোডাক্ট শিপিং এর কোন দায় নেই। এই model এ বিক্রেতাকে শুধুমাত্র নিজের অনলাইন স্টোর তৈরি করে অর্ডার নিতে হয়, বাকি দায়িত্ব সরবরাহকারীর অর্থাৎ যার পণ্য বিক্রি হচ্ছে।

এই ই-কমার্স বিজনেস মডেলের নাম ড্রপশিপিং (Dropshipping)। যার সম্পর্কে অনেক ব্যাক্তির ধারণা নেই।

এই জন্য আজকের আর্টিকেল থেকে ড্রপশিপিং কি, ড্রপশিপিং বিজনেস মডেল এবং কিভাবে কাজ করে, কিভাবে ড্রপশিপিং ব্যবসা করে অর্থ উপার্জন করা যায়, এই সকল প্রশ্নের উত্তর আপনাদের সাথে শেয়ার করব।

ড্রপশিপিং কি? (What is Dropshipping)

ড্রপশিপিং হল এমন একটি ই-কমার্স ব্যবসায়িক মডেল যেখানে যে কোনো ব্যক্তি কোনো পণ্য না কিনে বা ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে কোনো বড় বিনিয়োগ না করেই উচ্চমূল্যে গ্রাহকদের কাছে কোনো পণ্য বিক্রি করে মুনাফা অর্জন করতে পারে।

এটি একটি অনলাইন তৃতীয় পক্ষের পণ্য বিক্রির মডেল যেখানে শপিফাই, Woocommerce বা অন্য প্ল্যাটফর্মের মতো একটি অনলাইন ই-কমার্স ওয়েবসাইটে একটি স্টোর তৈরি করে তৃতীয় পক্ষের পণ্য বিক্রি করে লাভ অর্জিত হয়।

এই ব্যবসায়িক মডেলে, বিক্রেতার অর্থাৎ যার একটি অনলাইন স্টোর রয়েছে তার কোন বড় বিনিয়োগের প্রয়োজন হয় না কারণ এতে দোকানটি অন্য কারো এবং পণ্যটি অন্য কারোর, তাই বিক্রেতাকেও ড্রপশিপিংয়ে বেশি পুঁজি বিনিয়োগ করতে হবে না।

এখানে ব্যবসা, বা কোনও বিশেষ ব্যবস্থাপনার ঝামেলা নেই কারণ পণ্য সম্পর্কিত সমস্ত দায়িত্ব যেমন স্টক রাখা, পণ্য সংগ্রহ করা, পণ্যটি গ্রাহকের কাছে পাঠানো ইত্যাদি ড্রপশিপিং সরবরাহকারীর দায়িত্ব।

Dropshipping Business Model কিভাবে কাজ করে?

ড্রপশিপিং ব্যবসায়িক মডেলের সাথে প্রধানত তিনটি পক্ষ জড়িত থাকে, যার মধ্যে একটি হল যার নিজস্ব অনলাইন ই-স্টোর রয়েছে যেখানে প্রচুর বা নির্বাচিত পণ্য তালিকা রয়েছে, অন্যটি হল যার পণ্য রয়েছে, অর্থাৎ একজন প্রত্যক্ষ পণ্য প্রস্তুতকারক অথবা যেকোন পাইকারী বিক্রেতা এবং তৃতীয় গ্রাহক যিনি খুচরা পণ্যটি কিনবেন।

এখন আসা যাক, এই পুরো সিস্টেমটি কিভাবে কাজ করে –

তাহলে আমরা সবাই জানি যে একটি পক্ষের নিজস্ব অনলাইন স্টোর রয়েছে যেখানে তৃতীয় পক্ষের পণ্যের তালিকা করে সেই পণ্যটি বিক্রি করা হয়।

অর্থাৎ আমরা বলতে পারি যে, Shopify বা Woocommerce-এর মতো একটি প্ল্যাটফর্মে আমাদের নিজস্ব অনলাইন স্টোর তৈরি করা হয়েছে, যেখানে একটি ড্রপশিপিং সরবরাহকারীর সাথে টাই-আপ করে এবং এর কিছু পণ্য নির্বাচন করে, আমরা আমাদের পণ্যগুলো স্টোরের মধ্যে মূল্য ও ট্যাগ সহ তালিকাভুক্ত করেছি।

এখন যখনই আমাদের অনলাইন স্টোরে একজন গ্রাহক সেই পণ্যটির জন্য অর্ডার দেন, তখন আমাদের কাছে একটি notification আসবে এবং তখন আমাদের শুধুমাত্র সেই সরবরাহকারীর সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

তাকে গ্রাহকের ঠিকানা এবং অর্ডারকৃত পণ্যটি সহ ইনফর্মেশন দিয়ে, সেই গ্রাহকের কাছে পণ্যটি সরবরাহ করতে বলতে হবে।

তারপর সেই সরবরাহকারী সেই পণ্যটি গ্রাহকের ঠিকানায় প্রেরণ করে দেবে। এখানে পণ্যটি আমাদের কাছে না এসে সরাসরি সেই গ্রাহকের কাছে পৌঁছে যায়। এভাবেই ড্রপশিপিং মডেল কাজ করে।

এই সেলিং মডেলে, আমাদের শুধুমাত্র পণ্য বিক্রি করে অর্থপ্রদান করতে হবে, বাকিটা সরবরাহকারীর দায়িত্ব এবং পণ্যটি সরাসরি সরবরাহকারীর কাছ থেকে সহজেই গ্রাহকের কাছে পৌঁছে যায়।

আমাদের এবং সরবরাহকারীর মধ্যে লেনদেন কীভাবে ঘটবে তা নির্ভর করে উভয়ের মধ্যে কীভাবে টাই-আপ হয়েছে বা আমাদের ড্রপশিপিং সরবরাহকারীর নীতি অনুযায়ী।

ড্রপশিপিং এর সুবিধা

  • এতে, যে বিক্রেতার দোকান আছে তাকে খুব বেশি বিনিয়োগ করতে হবে না কারণ একটি ড্রপ শিপিং ব্যবসা শুরু করতে খুব কম মূলধন বিনিয়োগের প্রয়োজন হয়, তাই যারা কম বিনিয়োগে ব্যবসা শুরু করতে চান তাদের জন্য ড্রপশিপিং ব্যবসা করা অবশ্যই ভাল বিকল্প।
  • ড্রপশিপিং ব্যবসায় বিক্রেতার দায়িত্ব খুবই কম কারণ এতে স্টক ম্যানেজমেন্ট, ইনভেন্টরি ম্যানেজমেন্ট, প্রোডাক্ট শিপিং ইত্যাদির দায়িত্ব সরবরাহকারীর।
  • ড্রপশিপিং ব্যবসায়, আপনার স্টোরের জন্য পছন্দসই পণ্য নির্বাচন করার জন্য একটি খুব ভাল বিকল্প রয়েছে, যার কারণে আমরা কেবলমাত্র সেই পণ্যগুলি নির্বাচন করতে পারি যার বিক্রয় বেশি এবং মার্জিনও বেশি।
  • শুধুমাত্র একটি ল্যাপটপ বা কম্পিউটার এবং ইন্টারনেটের সাহায্যে যেকোনো স্থান থেকে এই ব্যবসা করা যায়।
  • এই ব্যবসা একাও করা যায় কারণ এখানে সবসময় শারীরিকভাবে বিশেষ কোনো কাজ করতে হয় না।
    এই ব্যবসায়িক মডেলে, বিক্রেতাকে শুধুমাত্র ডিজিটাল মার্কেটিং এর উপর বিশেষভাবে ফোকাস করতে হবে, কারণ এই মার্কেটিং কৌশলটি বিক্রেতার জন্য সবচেয়ে লাভজনক।
  • ড্রপশিপিং ব্যবসার জন্য একটি অনলাইন স্টোর তৈরি করতে, Shopify, Woocommerce এর মতো অনেকগুলি প্ল্যাটফর্ম রয়েছে যা আমাদেরকে খুব কম দামে একটি স্টোর তৈরি করতে দেয়, পাশাপাশি এখানে আমরা খুব সহজেই কোনও বিশেষ প্রযুক্তিগত জ্ঞান ছাড়াই একটি ই-কমার্স অনলাইন স্টোর তৈরি করতে পারি।

ড্রপশিপিং এর অসুবিধা

  • এর সবচেয়ে বড় অসুবিধা হল এই ব্যবসাটি বোঝা যতটা সহজ মনে হয়, এটি আরও কঠিন, কারণ যে কোনও ব্যক্তি অর্থ উপার্জনের জন্য ব্যবসা করে এবং ব্যবসাটি ভালভাবে সম্পন্ন হলেই অর্থ উপার্জন করা যায়।
  • ড্রপশিপিং একটি পণ্য বিক্রির ব্যবসায়িক মডেল, তাই এখানে বিক্রয় না হলে আমরা কোনও লাভ করব না এবং পণ্যটি তখনই বিক্রি হবে যখন লোকেরা আমাদের দোকানে আসবে।
  • ড্রপশিপিং-এ, আপনার দোকানে গ্রাহকদের আনা একটি খুব ভারী কাজ কারণ নতুন দোকানে আপনার কোনও ব্র্যান্ডিং নেই, আপনার কাছে কোনও লোক নেই, তাই প্রাথমিক পর্যায়ে লোকেরা আপনার অনলাইন স্টোরকে খুব বেশি বিশ্বাস করবে না।
  • পণ্যের প্রস্তুতকারক বা পাইকারী বিক্রেতার মধ্যে যদি কোনও সমস্যা হয়, তবে এটি দোকানের প্রতিনিধিত্বও নষ্ট করে, যার কারণে কাজটিও খারাপ হতে শুরু করে।
  • এই ব্যবসায়িক মডেলে, সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ বিক্রেতার হাতে থাকে না কারণ এখানে পুরো সিস্টেম দুটি লোকের সমন্বয়ে চলছে।
  • বিপণন ব্যয় যদি লাভের চেয়ে বেশি হয়, তাহলে নিট লাভ তাদের মধ্যে নগণ্য হতে শুরু করে।

উপসংহার

আশা করি আজকের আর্টিকেল থেকে ড্রপশিপিং ব্যবসা কি এবং Dropshipping Business Model সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। যদি এখনও এই সম্পর্কে কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে আপনি কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন। ধন্যবাদ, ভালো থাকবেন।

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment