ডিভাইস কি | ডিভাইস কত প্রকার ও কি কি?

আমরা জানি যে একটি কম্পিউটার বিভিন্ন ডিভাইস নিয়ে গঠিত হয়। যার মাধ্যমে একটি কম্পিউটার সিস্টেম সুষ্ঠুভাবে কাজ করতে পারে। তবে ডিভাইস সম্পর্কে এমন কিছু প্রশ্ন আছে যেগুলি অনেক ব্যক্তি জানেন না।

এইজন্য আজকের এই আর্টিকেল থেকে আমরা কম্পিউটার ডিভাইস সম্পর্কে আলোচনা করব। যেখান থেকে আপনি ডিভাইস কি, ডিভাইস কত প্রকার ও কি কি, ডিভাইস কাকে বলে – এই সকল প্রশ্নগুলির উত্তর পাবেন। যদি আপনিও কম্পিউটার ডিভাইস সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আগ্রহী হন তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি পড়তে পারেন।

ডিভাইস কি?

ডিভাইস হল এমন একটি ফিজিক্যাল হার্ডওয়ার বা ইকুইপমেন্ট, যেটি কম্পিউটারের সিস্টেমের মধ্যে আবদ্ধ থেকে কম্পিউটার সিস্টেমের বিভিন্ন ফাংশন প্রোভাইড করে।

সোজা কথায় বলা যায় ডিভাইস হলো এমন এক প্রকারের যন্ত্র যার মাধ্যমে কম্পিউটার বিভিন্ন কাজ সম্পাদন করতে পারে।

কম্পিউটারের প্রধান ডিভাইস দুই ধরনের হয়ে থাকে ইনপুট ডিভাইস এবং আউটপুট ডিভাইস।

ইনপুট ডিভাইস গুলির মাধ্যমে কম্পিউটার কে ইনপুট দেওয়া যায় এবং আউটপুট ডিভাইসের মাধ্যমে কম্পিউটার ইউজারকে আউটপুট দিয়ে থাকে।

কম্পিউটারের মাউস, কিবোর্ড, স্পিকার, প্রিন্টার ইত্যাদি সবকিছুই কম্পিউটার ডিভাইস এর উদাহরণ।

এক একটি ডিভাইস কম্পিউটারের নির্দিষ্ট কাজ করার জন্য ব্যবহার করা হয়।

ডিভাইস মানে কি?

ডিভাইস মানে হলো যন্ত্র। কম্পিউটারের বিভিন্ন যন্ত্রের সাহায্যে কম্পিউটার বিভিন্ন কাজ করতে পারে। এবং একটি কম্পিউটার পরিচালনার জন্য বিভিন্ন ডিভাইসকে সংযুক্ত করে, পুরো কম্পিউটার সিস্টেম তৈরি করা হয়।

অর্থাৎ, নির্দিষ্ট ডিভাইস হল এক ধরনের মেশিন যেটি নির্দিষ্ট কাজের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।

ডিভাইস কাকে বলে?

কম্পিউটারের মধ্যে থাকা যে সকল যন্ত্রগুলির মাধ্যমে কম্পিউটার সিস্টেম বিভিন্ন ধরনের ফাংশন গুলি নিয়ে কাজ করতে পারে সেই যন্ত্রগুলিকে ডিভাইস বলে।

কম্পিউটারের মধ্যে বিভিন্ন কাজ করার জন্য বিভিন্ন ধরনের ডিভাইস ব্যবহার করা হয়।

ডিভাইস কত প্রকার ও কি কি?

কম্পিউটার ডিভাইস সাধারণত চার প্রকারের। এগুলি হল –

1.ইনপুট ডিভাইস

কম্পিউটারকে ইনপুট দেওয়ার জন্য যে সকল ডিভাইস গুলোকে নিয়ে কাজ করা হয় সেগুলি হল ইনপুট ডিভাইস। ইনপুট ডিভাইসের উদাহরণ হল মাউস, কিবোর্ড, টাচপ্যাড ইত্যাদি।

2. স্টোরেজ ডিভাইস

কম্পিউটার নির্দিষ্ট ইনপুট নেওয়ার পর সেগুলিকে স্টোর করে রাখে প্রসেসিং করার জন্য। এবং ভবিষ্যতের প্রয়োজনে ডাটা স্টোর করে রাখার জন্য স্টোরেজ ডিভাইস কাজে লাগে।

Hard drive, USB flash drive, Floppy disk, Magnetic tape, DVD ইত্যাদি ডিভাইস গুলি স্টোরেজ ডিভাইস এর উদাহরণ।

3. প্রসেসিং ডিভাইস

প্রত্যেকটি কম্পিউটার ইনপুট ডিভাইস কে গ্রহণ করে সেটিকে প্রসেসিং করে আউটপুট ডিভাইসের মাধ্যমে ইউজারকে রেজাল্ট দিয়ে থাকে। প্রসেসিং করার জন্য কম্পিউটারের মধ্যে যে সকল ডিভাইসগুলি কাজ করে সেগুলিকে বলা হয় প্রসেসিং ডিভাইস।

CPU, Motherboard, Network card, Sound card, Video card – এই সকল ডিভাইসগুলি প্রসেসিং ডিভাইসের উদাহরণ।

4. আউটপুট ডিভাইস

কম্পিউটার ব্যবহারকারী যে সকল ডিভাইসের মাধ্যমে আউটপুট পেয়ে থাকে সেই সকল ডিভাইসকে আউটপুট ডিভাইস বলা হয়। আউটপুট ডিভাইসের উদাহরণ হল প্রিন্টার, মনিটর ইত্যাদি।

উপসংহার

আশা করছি আজকের এই আর্টিকেল থেকে ডিভাইস কি এবং ডিভাইস কত প্রকার ও কি কি এই সম্পর্কে বিস্তারিত বুঝতে পেরেছেন। যদি ডিভাইস সম্পর্কে আপনার এখনো কিছু জানার থাকে তাহলে আপনি কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন।

আরও পড়ুন

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment