কৃষ্ণচূড়া নিয়ে কবিতা | কৃষ্ণচূড়া নিয়ে প্রেমের কবিতা

অনেকেই কৃষ্ণচূড়া নিয়ে কবিতা পড়তে ভালোবাসেন। এই জন্য আজকের এই আর্টিকেল থেকে আমরা কিছু কৃষ্ণচূড়া কবিতা পড়ে নেব। এই আর্টিকেলটির মধ্যে আপনি বিভিন্ন লেখকের কৃষ্ণচূড়া নিয়ে প্রেমের কবিতা পাবেন। যদি আপনি কৃষ্ণচূড়া নিয়ে কবিতা পড়তে ভালোবাসেন তাহলে কবিতাগুলি একটি একটি করে পড়ে নিন।

কৃষ্ণচূড়া নিয়ে কবিতা

লেখক – মাইকেল মধুসূদন দত্ত

এই যে কুসুম শিরোপরে, পরেছি যতনে,
মম শ্যাম-চূড়া-রূপ ধরে এ ফুল রতনে!
বসুধা নিজ কুন্তলে পরেছিল কুতূহলে
এ উজ্জ্বল মণি,
রাগে তারে গালি দিয়া, লয়েছি আমি কাড়িয়া-
মোর কৃষ্ণ-চূড়া কেনে পরিবে ধরণী?

এই যে কম মুকুতাফল, এ ফুলের দলে,-
হে সখি, এ মোর আঁখিজল, শিশিরের ছলে!
লয়ে কৃষ্ণচূড়ামণি, কাঁদিনু আমি, স্বজনি,
বসি একাকিনী,
তিতিনু নয়ন-জলে; সেই জল এই দলে
গলে পড়ে শোভিতেছে, দেখ্ লো কামিনি!

পাইয়া এ কুসুম রতন-শোন্ লো যুবতি,
প্রাণহরি করিনু স্মরণ -স্বপনে যেমতি!
দেখিনু রূপের রাশি মধুর অধরে বাঁশী,
কদমের তলে,
পীত ধড়া স্বর্ণরেখা, নিকষে যেন লো লেখা,
কুঞ্জশোভা বরগুঞ্জমালা দোলে গলে!

মাধবের রূপের মাধুরী, অতুল ভুবনে-
কার মনঃ নাহি করে চুরি, কহ লো ললনে?
যে ধন রাধায় দিয়া, রাধার মনঃ কিনিয়া
লয়েছিলা হরি,
সে ধন কি শ্যামরায়, কেড়ে নিলা পুনরায়?
মধু কহে, তাও কভু হয় কি, সুন্দরি?

কৃষ্ণচূড়া নিয়ে কবিতা পড়তে ভালোবাসেন। এই জন্য আজকে রই আর্টিকেল থেকে আমরা কিছু কৃষ্ণচূড়া কবিতা পড়ে নেব। এ

কৃষ্ণচূড়া নিয়ে প্রেমের কবিতা

লেখক – সৌম্যকান্তি চক্রবর্তী

কৃষ্ণচূড়ার রঙ লেগেছে
মনের গভীর কোণে –
তাইতো ভাবি তোমায়
এত পড়ছে কেন মনে ?

কৃষ্ণচূড়া লাল রঙেতে
ভরিয়েছে বসন্ত –
আমার মনের কষ্ট
কেন ভরায় হৃদয় দিগন্ত !

কৃষ্ণচূড়া তোমার রঙে
ছড়ায় কত আলো !
আমার ছোট্ট অণু যে নেই
লাগছে না তাই ভালো !

কৃষ্ণচুড়া তুমি আমায়
করতে পারোনি সুখী –
মনের দুঃখ কষ্টটাকে
কেমনে চেপে রাখি !

কৃষ্ণচূড়া আমার প্রিয়
মেয়েকে এনে দাও !
তোমার খুশির রঙের আলো
আমার মনে ও ছড়াও !

কৃষ্ণচূড়া কবিতা

লেখক – এস এম খায়রুল বাসার

কৃষ্ণচূড়া,
লালে রাঙা আগুন ঝরা
প্রিয়ার খোপার ফুল।
কৃষ্ণচূড়া,
হাওয়ায় খেলা পাপড়ি দোলা
বঁধুর কানের দুল।
কৃষ্ণচূড়া
গগণ তলে সবুজ মাঝে,
বনিতার অবাধ নৃত্য।
কৃষ্ণচূড়া
সোনার গায়ে চিমটি কাটা
আমার নিত্য কৃত্য।
কৃষ্ণচূড়া,
গ্রীষ্মে পোড়া ঝড়ো হাওয়া,
ক্লান্তি হারা হুঁশ।
কৃষ্ণচূড়া ,
সাঁজের বেলা আলতো ছোঁয়া
লজ্জাবতীর খুশ
কৃষ্ণচূড়া,
রক্তিম ঠোঁটে চুম্বন আঁকা
আলতো ছোঁয়া বুক।
কৃষ্ণচূড়া ,
আদর মাখা একটু ঘামা
তোমার কোমল মুখ।
কৃষ্ণচূড়া,
শাখে বসা কোকিল ডাকা
ভালোবাসায় অন্ধ।
কৃষ্ণচূড়া,
আঁধারে বোঝা চির চেনা
প্রিয়ার তনুর গন্ধ।

কবিতা – কৃষ্ণচূড়া

লেখিকা – সুভদ্রা রায়

যে নামে পরিচিত তুমি – হৃদয় উত্তাল
ফুলের সম্ভারে আকাশ ছুঁয়েছে ধরাতল
গন্ধহীন এ ফুলের নামে মন্ত্র পড়েনি আজও পুরোহিত
দেবতার পায়ে হয়নি কো স্থান – জগৎ পিতা তোমায় নিয়ে মেতেছে বারবার
চূড়ায় পড়েছে কৃষ্ণ তোমায় – তোমারই জয়গান,
রূদ্র দাবদাহে তোমার ছায়াতলে ছত্র মেলেছে আকাশ জুড়ে
কত পশু পাখি পথিকের দীর্ঘস্বাস তোমার শীতল ছায়ায় পায় প্রাণ – ভালোবাসা নাম লেখে প্রেমিক প্রেমিকার
আদিবাসী রমনীর সাজের অঙ্গ তুমি
প্রেয়সীর সুপ্ত কামনার বর্নে রাঙা খোঁপাখানি –
গুচ্ছ গুচ্ছ শোভা পায় বেলা অবেলার দ্বারে
নানা রঙে তোমার সম্ভার আনি,
প্রকৃতি উজার করে দিয়েছে বর্ন তোমার
লাল কমলা গোলাপি বিরল হলুদেও আছো তাই
তোমার শাখায় বসে কপোত কপোতী ভাবে
এত প্রেম এত সুখ কেমনে আসে –

নীরব সাক্ষী হয়ে লিখেছো প্রেমগাঁথা ব্যর্থ প্রেমিকের
প্রিয় মোর রঙে তুমি, সাজানো বাসরখানি
ঝরে পড়া পাপড়িতে গালিচা বিছায়ে
মোহ আছে – আছে প্রেম তোমারই বৃক্ষতলে
ফুল তবু ফুল নয় প্রেমের জোয়ার –
রাধিকার প্রিয় তুমি – তাই কৃষ্ণচূড়া নাম তোমার..।

কৃষ্ণচূড়া নিয়ে কবিতা পড়তে ভালোবাসেন। এই জন্য আজকে রই আর্টিকেল থেকে আমরা কিছু কৃষ্ণচূড়া কবিতা পড়ে নেব। এ

কৃষ্ণচূড়া নিয়ে কবিতা

লেখক – মাজুমদার

কৃষ্ণচূড়ার বনে লেগেছে আগুন,
নবীন বসন্তে আজ মাতাল ফাগুণ।
বন্ধু বহুদিন পরে এসেছ ফিরে।
তোমায় নিয়ে স্বপ্ন বিভোর।
কত রাত্রি কেটে গেল মাঝে,
কত প্রহর সন্ধ্যা বেলার সাঁঝে।
কত বৃষ্টি ঝরে গেল নীরবে,
নিল আকাশের অঢেল নিলে,
সেই তুমি আজ এলে ফিরে।
তোমায় পেয়ে মুগ্ধ এ মন।
মেঘের খেলায় জেন রঙ্গের আগুন
কৃষ্ণচূড়ার বনে আজ মাতাল ফাগুণ।

উপসংহার

আশা করছি আজকাল এই আর্টিকেল থেকে আপনি কৃষ্ণচূড়া নিয়ে কবিতা পেয়ে গেছেন। এখানে যে সকল কবিতা গুলি দেওয়া হয়েছে সেগুলি ইন্টারনেট এর মাধ্যমে বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে। যদি কোন লেখক এর কোন আপত্তি থাকে তাহলে কবিতাগুলি এখান থেকে মুছে দেওয়া হবে। যদি কবিতাগুলি নিয়ে, কারোর কোন সমস্যা থাকে তাহলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। ধন্যবাদ ভালো থাকবেন।

আরও পড়ুন

শেয়ার করতে চান!

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment