কম্পিউটার এর বৈশিষ্ট্য (Features of Computer)

কম্পিউটার মানুষের দৈনন্দিন জীবনের অনেক কাজকে সহজ করে দিয়েছে। যে সকল কাজ করতে আগে অনেক সময়ের দরকার হতো সেই সকল কাজ গুলি কম্পিউটারের মাধ্যমে কয়েক মিনিটের মধ্যেই সম্পন্ন হয়ে যায়। কম্পিউটারের এমন কিছু বৈশিষ্ট্য আছে যেগুলি অন্য সব যন্ত্রপাতি থেকে কম্পিউটারকে আলাদা জায়গায় নিয়ে এসেছে। আজ আমরা এমনই কিছু কম্পিউটার এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে আলোচনা করবো।

কম্পিউটার এর প্রধান বৈশিষ্ট্য

একটি কম্পিউটারের মধ্যে অনেক বৈশিষ্ট্য থাকে। তবে যে বৈশিষ্ট্য গুলি না বললেই নয় সেগুলি সম্পর্কে আজ আমরা এখান থেকে জেনে নেব। তাই চলুন দেরি না করে কম্পিউটার এর প্রধান বৈশিষ্ট্য (Main features of Computer) গুলি জেনে নেওয়া যাক।

1. Multitasking

বেশিরভাগ যন্ত্র আছে যেগুলি একটি সময় শুধুমাত্র একটি কাজ করতে পারে। কিন্তু একটি কম্পিউটার একই সময়ে একের অধিক কাজ করতে পারে। একসাথে অনেকগুলি কাজ একই সময়ে করার জন্য কম্পিউটার সমস্ত যন্ত্রপাতি থেকে আলাদা।

একজন মানুষ যখন দুটি কাজ একসাথে করে তখন তার ভুল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। কিন্তু কম্পিউটার একই সময়ে বিভিন্ন ধরনের কাজ সম্পাদন করে এবং সেটি নির্ভুলভাবে ও খুবই তাড়াতাড়ি। একসাথে অনেকগুলি কাজ বা Multitasking হলো কম্পিউটারের প্রধান বৈশিষ্ট্য গুলির মধ্যে একটি।

2. Accurate

Accurate কথাটির মানে হল নির্ভুল। কম্পিউটার যেকোনো কাজ নির্ভুলভাবে পালন করে থাকে। তবে হ্যাঁ, যদি ইউজার কম্পিউটারকে নির্ভুল দিয়ে থাকে তবেই কম্পিউটার নির্ভুল আউটপুট দিয়ে থাকবে। যদি ইউজার ভুল ইনপুট দেয়, তাহলে কম্পিউটারও ভুল রেজাল্ট দেখাবে।

3. Speed

কম্পিউটার যে কোন কাজ খুব দ্রুত গতিতে সম্পন্ন করে থাকে। আমরা জানি যে কম্পিউটার বৈদ্যুতিক সংকেত এর মাধ্যমে কাজ করে থাকে। এই সংকেতের গতি আলোর গতি থেকে কিছুটা কম। এই কারণেই কম্পিউটার এই সংকেতের মাধ্যমে খুবই দ্রুত গতিতে যে কোন কাজ অল্প সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করতে পারে।

এটিও জেনে নিন -  ডিজিটাল কম্পিউটার কাকে বলে ও কত প্রকার

কম্পিউটারের কাজ করার গতিকে মিলি সেকেন্ড, মাইক্রো সেকেন্ড এর মতো একক দ্বারা প্রকাশ করা হয়ে থাকে। একটি শক্তিশালী কম্পিউটার প্রতি সেকেন্ডে ৩০ থেকে ৪০ লক্ষের বেশি গাণিতিক কাজ সম্পন্ন করে থাকে। অর্থাৎ দ্রুত গতিতে কাজ করা হলো কম্পিউটারের একটি অভিন্ন বৈশিষ্ট্য।

4. Memory

কম্পিউটারের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের স্টোরেজ বা মেমোরি যুক্ত করা থাকে। যার মধ্যে কম্পিউটার বিভিন্ন ডাটা সংরক্ষণ করতে পারে। এবং যেকোনো সময় সেই সংকট সংরক্ষণ করার ডাটা ব্যবহারকারী এবং কম্পিউটার দ্বারা পুনরায় ব্যবহার করা যায়।

বিভিন্ন কম্পিউটারের মধ্যে বিভিন্ন ক্যাপাসিটির মেমোরি যুক্ত করা থাকে। এবং কম্পিউটার মেমোরির মধ্যে যেকোন ডাটা সংরক্ষণ করার পর সেটি যুগের পর যুগ ধরেও অক্ষত ভাবে রাখা যায়।

5. Diligence/ Efficient

এই কথাটির মানে হল ক্লান্ত না হয়ে অনবরত কাজ করে যাওয়া বা ক্লান্তিহীনতা। একটি কম্পিউটার ঘন্টার পর ঘন্টা এবং দিনের পর দিন ধরে একটি কাজ অনবরত করে যেতে পারে। এটাই হলো মানুষের থেকে কম্পিউটারের প্রধান ফারাক।

একজন মানুষ কিছুক্ষণ কাজ করবার পর বিশ্রাম গ্রহণ করে কিন্তু কম্পিউটার তা করে না। যদি কম্পিউটার কে চালিয়ে রেখে কোন নির্দেশ দেওয়া হয় তাহলে সে সেটি মাসের পর মাস এবং বছরের পর বছর ধরেও পালন করতে থাকে।

6. Reliability

এই কথাটির মানে হল নির্ভরশীল। নির্ভুল ভাবে যে কোন কাজ সম্পাদন করা এবং খুব দ্রুতগতিতে যে কোন কাজ করবার জন্য কম্পিউটারের ওপর খুব সহজেই নির্ভর করা যায়। কম্পিউটারের মধ্যে accurate এবং speed এই দুটি গুন থাকার কারণে, যেকোনো কম্পিউটার ব্যবহার কারি, যেকোনো ধরনের লজিক্যাল এবং গাণিতিক কাজ করার জন্য কম্পিউটার ব্যবহার করতে পারে।

7. Non intelligent

কম্পিউটারে নিজস্ব কোন বুদ্ধিমত্তা নেই। কম্পিউটার শুধুমাত্র ব্যবহারকারীর দেওয়া ইনপুট গুলি বিভিন্ন প্রোগ্রামের মাধ্যমে পালন করে থাকে। একজন ব্যবহারকারী যেভাবে কম্পিউটার কে আদেশ দেবে ঠিক তেমনি কম্পিউটার সেটি পালন করবে। অর্থাৎ কম্পিউটারের নিজের কোন সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা নেই।

এটিও জেনে নিন -  ক্লাউড কম্পিউটিং কী - সুবিধা, বৈশিষ্ট্য ও সার্ভিস মডেল

8. Logical decision

আমরা জানি যে কম্পিউটার বিভিন্ন ধরনের গাণিতিক কাজগুলো সম্পন্ন করে থাকে। তবে এর পাশাপাশি কম্পিউটার বিভিন্ন লজিকাল কাজগুলোও সম্পন্ন করে থাকে। একটি নির্দিষ্ট প্রোগ্রামে যুক্ত করা যুক্তি অনুযায়ী কম্পিউটার তার নিজস্ব লজিকে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকে। এবং নির্দিষ্ট প্রোগ্রামের মাধ্যমে সে বুঝতে পারে তাকে কি করতে হবে বা নির্দিষ্ট নির্দেশ গ্রহণ করার পর কি ধরনের লজিক থাকতে পারে।

তবে কম্পিউটার নিজে কিছুই বিচার বিবেচনা করতে পারেনা। শুধুমাত্র তাকে দেওয়া প্রোগ্রাম বা নির্দেশ অনুযায়ী সে বিভিন্ন ধরনের লজিক্যাল ডিসিশনগুলি নিয়ে ও দিয়ে থাকে।

ডিজিটাল কম্পিউটার এর বৈশিষ্ট্য

  1. ডিজিটাল কম্পিউটারের কাজের গতি এনালগ কম্পিউটার থেকে অনেক বেশি
  2. এনালগ কম্পিউটারের থেকে অনেক বেশি নির্ভরযোগ্যতা রয়েছে
  3. এই ধরনের কম্পিউটার ব্যবহার করা অনেক সহজ
  4. মনিটর স্কিনের মাধ্যমে ফলাফল দেখা যায়
    বিদ্যুৎ খরচ অনেক কম
  5. প্রচুর পরিমাণে data সংরক্ষণ করে রাখতে পারে
  6. প্রসেসিং স্পিড অনেক বেশি
  7. ইনপুট এবং আউটপুট এর জন্য অনেক ধরনের ডিভাইস থাকে
  8. ইত্যাদি।

উপসংহার

আশা করছি আজকের এই লেখাটি থেকে কম্পিউটার এর বৈশিষ্ট্য কি – এই সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। কম্পিউটার হলো এমন একটি যন্ত্র যার অসংখ্য বৈশিষ্ট্য রয়েছে। প্রতিটি ক্ষেত্রে এর এমন কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে যেগুলি অন্য যন্ত্রের মধ্যে সচরাচর দেখতে পাওয়া যায় না। তবে এখানে শুধুমাত্র কম্পিউটারের প্রধান বৈশিষ্ট্য গুলি সম্পর্কে ইনফরমেশন দেওয়া হলো। যদি আপনারা পরবর্তীকালে কম্পিউটারের আরো কিছু বৈশিষ্ট্য জানতে চান তাহলে আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারেন। ধন্যবাদ।

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment