এলাচের উপকারিতা ও অপকারিতা

প্রতিটি ভারতীয় বাড়িতে এলাচ পাওয়া যায়। এটি একটি মাউথ ফ্রেশনার এবং মশলা, যা অনেক ধরনের খাবারে যোগ করা হয়। এলাচের স্বাদ আলাদা, যার কারণে এটি সবারই পছন্দ।

তবে এলাচের কিছু উপকারিতা ও অপকারিতা রয়েছে। যেগুলি আমরা আজকের আর্টিকেলে আলোচনা করব। তার আগে এলাচ কয় প্রকার এটি জেনে নেওয়া যাক।

এলাচ কয় প্রকার

এলাচ দুই প্রকারের হয়ে থাকে। কালো এলাচ এবং ছোট এলাচ।

১) কালো এলাচ

এটি মাউথ ফ্রেশনার হিসেবে ব্যবহৃত হয় না, এটি খাবারে মসলা হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এটি এক ধরনের খাদা মসলা যা গরম মসলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

২) ছোট এলাচ

এটি একটি মাউথ ফ্রেশনার যা সবাই খাওয়ার পর গ্রহণ করে। এটি মিষ্টিতে ব্যবহৃত হয়, কারণ এটি একটি ভিন্ন স্বাদ দেয় এবং এর সুগন্ধ সবাইকে আকৃষ্ট করে।

আশা করি আমরা দুই প্রকার এলাচ সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন। এবার আমরা এলাচের স্বাস্থ্য উপকারিতা এবং অপকারিতা গুলি জেনে নেব।

এলাচের উপকারিতা

চলুন প্রথমে আমরা এলাচের উপকারিতা গুলি সম্পর্কে জেনে নিই।

১) পাচনতন্ত্রকে শক্তিশালী করে

প্রত্যেক ভারতীয় খাবারের পর তার অতিথিদের মৌরি, এলাচ দেয়। আপনি কি জানেন কেন? কারণ এলাচের মধ্যে রয়েছে প্রাকৃতিক উপাদান যা খাবার হজমে সাহায্য করে।

এটি গলা ও পেটের জ্বালাপোড়া কমানোর পাশাপাশি পেটের ভেতরের ফোলাভাবও কমায়। এলাচ গ্যাস, অ্যাসিডিটি এবং পেট খারাপ কমায়।

এটিও জেনে নিন -  ইংরেজি সাত দিনের নাম | ইংরেজি বারের নাম | Week Name

যেভাবে ব্যবহার করবেন – ছোট টুকরা আদা, 2-3 লবঙ্গ, 3-4 এলাচ, 1 চা চামচ ধনে। এই সব পিষে গুঁড়ো তৈরি করুন, এখন প্রতিদিন খাওয়ার পর ১ চামচ পানি দিয়ে খান। হজম সংক্রান্ত যাবতীয় সমস্যা দূর হবে।

২) সর্দি-কাশি দূর করে

অনেক সময় ঠাণ্ডার কারণে গলায় প্রচণ্ড অদ্ভুত রকমের ব্যথা হয়। এটি নিরাময়ের সহজ উপায় হল এলাচ। সকালে খালি পেটে এবং রাতে ঘুমানোর আগে ১-২টি এলাচ চিবিয়ে খান।

তারপর কুসুম গরম জল পান করুন। কিছুক্ষণের মধ্যেই গলা স্বস্তি পাবে। এলাচ গরম করে, যার কারণে শরীরে তাপ বৃদ্ধি পায় এবং সর্দি-কাশি থেকে মুক্তি দেয়। কফের সমস্যাও দূর হয়।

৩) হেঁচকি বন্ধ করে

যে কোন সময় একজন ব্যক্তির হঠাৎ হেঁচকি উঠতে শুরু করে। এর কোনো ওষুধ নেই। অনেক সময় এটি একটানা দীর্ঘ সময় ধরে আসার কারণে সমস্যা অনুভূত হয়।

এটি বন্ধ করতে, আপনার মুখে 1টি এলাচ রাখতে হবে। এবং এটি চিবিয়ে খেতে থাকুন, কিছুক্ষণ পর হেঁচকি চলে যাবে।

৪) রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে

এলাচের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতাও রয়েছে, এতে রয়েছে পটাশিয়াম, ফাইবার যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। রক্তচাপের রোগীদের খাবারের পর এলাচ খাওয়া উচিত।

৫) বিষাক্ত পদার্থ সরায়

শরীরের অভ্যন্তরীণ পরিচ্ছন্নতা বাহ্যিকের মতোই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা বাহ্যিক পরিচ্ছন্নতার পূর্ণ যত্ন নিই কিন্তু শরীরের অভ্যন্তরীণ পরিচ্ছন্নতার কথা কখনো ভাবি না। তারা শাটারে যা কিছু খায়, ট্যাঙ্কারের মতো, তারা ভরতে থাকে।

অভ্যন্তরীণ পরিষ্কারের সহজ উপায় যদি বলি, তাহলে আপনাকে প্রতিদিন একটি করে এলাচ খেতে হবে, এটি কিডনি থেকে সমস্ত বিষাক্ত উপাদান দূর করবে।

৬) মনকে শক্তিশালী করে

এলাচ মনকে শক্তিশালী করতে, দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে এবং স্মৃতিশক্তি বাড়াতে খুবই সহায়ক। এলাচের বীজ ২-৩টি বাদাম ও ২-৩টি পেস্তা দিয়ে এবং ২-৩ চামচ দুধ দিয়ে পিষে নিন।

এটিও জেনে নিন -  হিন্দি গান ডাউনলোড mp3 download | অডিও গান হিন্দি ডাউনলোড

এবার ১ গ্লাস দুধে মিশিয়ে ঘন করুন যতক্ষণ না অর্ধেক হয়ে যায়। তারপর এতে চিনি মিশিয়ে খান। এটি শিশুদের জন্য খুবই উপকারী।

৭) গা গোলানো বন্ধ করে

বমি বমি ভাব, বমি, মুখে খারাপ স্বাদ হলে এলাচ চিবিয়ে খান। কিছুক্ষণের মধ্যেই ভালো লাগবে।

৮) মুখের সংক্রমণ দূর করে

এলাচ নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ, যেকোনো ধরনের সংক্রমণ, আলসার থেকে রক্ষা করে। নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ এড়াতে প্রতিদিন এলাচ খান।

৯) হৃদপিণ্ড ভালো রাখে

এলাচের মধ্যে উপস্থিত খনিজ উপাদান হার্টের সুরক্ষায় সহায়ক। এলাচ খেলে নাড়ির সমস্যা ঠিক থাকে এবং রক্ত ​​সঞ্চালন সুষ্ঠু হয়।

১০) চাপমুক্ত রাখে

আপনি যদি কোনো কিছু নিয়ে চিন্তিত থাকেন, বা কথা না বলে একাকীত্ব অনুভব করেন, এর কারণে আপনি ক্রমাগত বিষণ্ণতার শিকার হন। এলাচ মানসিক চাপমুক্ত থাকতে অনেক সাহায্য করে। এলাচ চিবিয়ে বা এলাচ চা পান করলে সঙ্গে সঙ্গে হরমোনের পরিবর্তন হয় এবং মানসিক চাপ চলে যায়।

এলাচের অপকারিতা

এলাচের অপকারিতা পড়ে ঘাবড়ে যাবেন না, কারণ এর সম্ভাবনা খুবই কম। এটাকে শুধু অভ্যাস করে নিবেন না, সীমিত পরিমাণে নিন।

১) এলার্জি হয়

একটানা এলাচ খেলে বা বেশি পরিমাণে এলাচ খেলে শরীরে প্রতিক্রিয়া শুরু হয়। আর তখনই শুরু হয় যেকোনো ধরনের অ্যালার্জি, যার কারণে শরীরে চুলকানি, ত্বকে ফুসকুড়ি, লাল দাগ দেখা দেয়।

অনেকেই এলাচের অ্যালার্জি সম্পর্কে অবগত নন এবং তারা এটি খান, যার কারণে তাদের শ্বাসকষ্ট শুরু হয়।

২) পেটে পাথর হয়

হ্যাঁ, অনেক সময় এলাচ পাথরের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। একটি গবেষণায় দেখা গেছে, আমাদের শরীর এলাচ সম্পূর্ণরূপে হজম করতে সক্ষম হয় না।

তারপর এটি অতিরিক্ত পরিমাণে সেবন করলে তা ধীরে ধীরে জমা হতে থাকে এবং গলব্লাডার স্টোন হওয়ার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এলাচ পাথরের রোগীকে এড়িয়ে চলতে হবে।

এটিও জেনে নিন -  মিলিটারি অর্থ কি - সামরিক বাহিনী কাকে বলে?

৩) বিপরীত প্রতিক্রিয়া তৈরি করে

আপনি যদি কোনো ধরনের ওষুধ সেবন করেন, তবে মাঝে মাঝে এলাচ তাদের সাথে প্রতিক্রিয়া করে এবং অন্যান্য সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। অথবা অনেক সময় ওষুধের প্রভাব বন্ধ করে দেবে। কোনো ওষুধ সেবন করলে এলাচ খাওয়ার অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে।

উপসংহার

এই ছিল আজকের পোস্ট এলাচের উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে। যদি আর্টিকেলটা আপনার ভালো লেগে থাকে তাহলে কমেন্ট করে আমাদের অবশ্যই জানান।

আরও পড়ুন

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment