ইঞ্জনিয়ারিং কাকে বলে – পড়ার খরচ ও যোগ্যতা

ইঞ্জনিয়ারিং কাকে বলে – আজকের যুগে, শিশুরা আগে থেকেই চিন্তা করে যে তাদের ভবিষ্যতে কী করতে হবে এবং তারা বড় হয়ে কী হতে চায়। যার মধ্যে বেশিরভাগ ছেলেমেয়েদের পছন্দ ইঞ্জিনিয়ার হওয়া এবং এটিও ভুল নয় কারণ ইঞ্জিনিয়ারিং শিশুদের অনেক বিকল্প রয়েছে। ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে শিশুরা স্কুলের সময় থেকেই প্রস্তুতি নিতে শুরু করে।

যে সমস্ত ছাত্রছাত্রীরা ইঞ্জিনিয়ারিং করতে চায় তারা স্কুলে 11 তম শ্রেণীতে বিজ্ঞানের বিষয় বেছে নেয় এবং 12 তম শ্রেণীতে এই বিষয়গুলি পড়তে হয় এবং তাদের প্রস্তুতি এখান থেকে শুরু হয়।

যদি আপনি ও ভবিষ্যতে ইঞ্জিনিয়ার হতে চান তাহলে আজকের এই আর্টিকেল থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পর্কে অল্প বিস্তর জেনে রাখুন।

ইঞ্জনিয়ারিং কাকে বলে?

যে ব্যক্তি কোনো বস্তু উদ্ভাবন করে, তার নকশা তৈরি করে বা কোনো যন্ত্র পরীক্ষা করে, বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে নতুন কোনো বস্তু উদ্ভাবনের মাধ্যমে সফলতা অর্জন করে, তাকে ইঞ্জিনিয়ার বলা হয়।

যে প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন দেখে তাকে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে হয়। যার জন্য প্রার্থীদের কমপক্ষে 3 বছরের ডিপ্লোমা বা ডিগ্রি থাকা আবশ্যক কারণ এই ডিগ্রিগুলি ছাড়া প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে পারবে না এবং ইঞ্জিনিয়ার হতে পারবে না।

অর্থাৎ কোন স্টুডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার জন্য যে বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করে তাকে ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স বলা হয়। এবং ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার পর সে যে কাজগুলি করে সেই কাজগুলোকে একত্রে ইঞ্জিনিয়ারিং কাজ এর অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

ইঞ্জিনিয়ার এর কাজ

একজন ইঞ্জিনিয়ার বৈজ্ঞানিক এবং গাণিতিক নীতি, অভিজ্ঞতা, বিচার এবং সাধারণ জ্ঞান প্রয়োগ করে এমন জিনিস তৈরি করার জন্য যা মানুষের উপকারে আসে।

এছাড়া বড় বড় সেতু নির্মাণ এবং জটিল চিকিৎসা সরঞ্জামের পাশাপাশি বড় আকারের সংক্রমণের জন্য সিস্টেমগুলি ডিজাইন করে।

ইঞ্জিনিয়ার কয় প্রকার ও কি কি?

ইঞ্জিনিয়ারিং এর মধ্যে বিভিন্ন ধরনের কোর্স আছে। নির্দিষ্ট কোর্স বেছে নিয়ে, বিভিন্ন স্টুডেন্ট বিভিন্ন ধরনের ইঞ্জিনিয়ার হয়ে থাকে। এখানে কিছু জনপ্রিয় ইঞ্জিনিয়ার এর ভাগগুলি দেয়া হলো।

  • Civil enginee
  • Chemical engineer
  • Mechanical engineer
  • Electrical engineer
  • Computer science
  • Software engineer
  • Biochemical engineer
  • Biomedical engineer
  • Nuclear engineer
  • Etc.

ইঞ্জনিয়ারিং পড়ার খরচ

ইঞ্জিনিয়ারিং এর মধ্যে অনেক ধরনের কোর্স আছে। আমি যে ধরনের কোর্স করতে চান এবং যে ধরনের ইঞ্জিনিয়ার হতে চান সেই ধরনের খরচ আপনাকে বহন করতে হবে।

ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার জন্য আপনি সরকারি কলেজ এবং বেসরকারি কলেজে উভয় থেকেই করতে পারেন।

যদি সরকারি কলেজে চান্স পান তাহলে ইঞ্জিনিয়ারিং এর খরচ অনেক কমে যাবে। এবার যদি বেসরকারি কলেজে কোর্স করেন তাহলে খরচ অনেক বেড়ে যাবে।

তবে মোটামুটি ভাবে বলা যায়, ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে গেলে আপনাকে 2 লক্ষ থেকে কুড়ি লক্ষ টাকার মধ্যে খরচ করতে হবে। সবকিছু নির্ভর করবে আপনার কোর্স এবং কলেজের ওপর।

ইঞ্জনিয়ারিং পড়ার যোগ্যতা

প্রকৌশলী হতে হলে প্রার্থীকে দ্বাদশ শ্রেণীতে সফলতা অর্জন করতে হবে। এছাড়া পার্থী দশম শ্রেণি পাশ করবার পর B.E এবং B.TEC ডিগ্রী নিতে পারে। এই ডিগ্রি পর পর সে সরাসরি ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে পারবে।

তা না হলে দ্বাদশ শ্রেণী পাশ করবার পর মেডিকেল বা নন মেডিকেল বিষয় বেছে নিয়ে তার ওপর ইঞ্জিনিয়ারিং করতে পারবে।

কিভাবে ইঞ্জিনিয়ার হবেন?

১) আপনার আগ্রহের বিরুদ্ধে একটি লক্ষ্য সেট করুন

প্রার্থীর স্বপ্ন পূরণের জন্য একজন ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার জন্য, প্রথমে তাকে ইঞ্জিনিয়ারিং এর সেই ক্ষেত্রটি বেছে নেওয়া উচিত যেটিতে তিনি আগ্রহী, কারণ প্রার্থী সেই কাজে আগ্রহী না হলে প্রার্থী একজন সফল ইঞ্জিনিয়ার হতে পারবেন না।

তাই প্রার্থীকে তার আগ্রহ অনুযায়ী সেই ক্ষেত্র বেছে নিয়ে তার প্রস্তুতি শুরু করতে হবে, সেই ক্ষেত্রে গিয়ে তার ডিপ্লোমা বা ডিগ্রি নিতে হবে।

2) ইঞ্জিনিয়ারিং শাখা থেকে ডিপ্লোমা বা ডিগ্রী থাকতে হবে

প্রার্থীরা 10 তম এবং 12 তম শ্রেণী পাশ করার পরে ইঞ্জিনিয়ারিং শাখা থেকে ডিপ্লোমা বা ডিগ্রী পেতে পারেন।

তবে 12 তম পাস করার পরে, প্রার্থীকে ডিগ্রী করার জন্য 12 তম শ্রেণীতে মেডিকেল এবং নন-মেডিকেল বিষয় বেছে নিতে হবে।

তারপর প্রার্থীরা এই ক্ষেত্রে আরও পড়াশোনা করতে পারবেন। এছাড়াও, প্রার্থী আইটিআই করে বা পলিটেকনিকের ডিপ্লোমা পেয়ে 10 তম শ্রেণির পরে B.Tech (B.Tech) করতে পারেন, যার পরে প্রার্থী একটি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি পাবেন।

৩) আপনার কাজের জন্য কোম্পানি চয়ন করুন

প্রার্থী ডিপ্লোমা বা ডিগ্রি পেলে, নির্দিষ্ট প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপ্লোমা সংশ্লিষ্ট কোম্পানি বেছে নিয়ে ওই কোম্পানিতে গিয়ে ইন্টারভিউ দিয়ে চাকরি পেতে পারেন এবং ইঞ্জিনিয়ার হতে পারেন।

উপসংহার

আশা করি আজকের এই আর্টিকেল থেকে আপনি ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পর্কে অল্প বিস্তর বুঝতে পেরেছেন। যদি আপনি ভবিষ্যতে ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে পড়াশোনা করার স্বপ্ন দেখেন তাহলে এটা আজকের দিনের খুবই একটি ভাল বিকল্প। আপনি যদি ভাল মানের ইঞ্জিনিয়ার হতে পারেন আপনার ভবিষ্যতের কোনো চিন্তা করতে হবে না।

আরও পড়ুন

Sanju

আমি সঞ্জু রাউত। আমার বাড়ি কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ। আমি অন্যকে ইনফরমেশন দিয়ে সাহায্য করতে ভালোবাসি। তাই আমি এই ব্লগটি ওপেন করি, যার দ্বারা আমার সখ এবং অন্যকে সাহায্য দুটোই সম্ভব হয়।

Leave a Comment